"কেউটে সাপ" পাতাটির দুইটি সংশোধিত সংস্করণের মধ্যে পার্থক্য

সম্প্রসারণ
(Al Riaz Uddin Ripon মনোকলড কোবরা পাতাটিকে কেউটে সাপ শিরোনামে পুনির্নির্দেশনার মাধ্যমে স্থানান্তর করেছেন: পূর্বাবস্থায় ফেরত নেওয়া হোক)
(সম্প্রসারণ)
| range_map_caption = ''গোক্ষুর গোখরা'' বিস্তৃতি
}}
'''গোক্ষুর গোখরা''' (বৈজ্ঞানিক নাম ''Naja kaouthia,'' ইংরেজিতে '''monocled cobra)''' হল [[কোবরা|গোখরা]] প্রজাতির একটি সাপ যা [[দক্ষিণ এশিয়া|দক্ষিণ]] এবং [[দক্ষিণপূর্ব এশিয়া]] দেখা যায়। এটিকে [[IUCN|আইইউসিএন]] কর্তৃক [[ন্যূনতম বিপদগ্রস্ত]] তালিকাভুক্ত করা হয়েছে।<ref name=iucn>{{IUCN |assessor=Stuart, B. |assessor2=Wogan, G. |last-assessor-amp=yes |year=2012 |id=177487 |taxon=Naja kaouthia |version=2016.2}}</ref> এ গোখরোর ফণার পিছনে গরুর ক্ষুর বা পুরোনো দিনের ডাঁটি ছাড়া জোড়া-চোখো চশমারক্ষুরের মত দাগ থাকে যার থেকে বাংলা গোক্ষুর নামটি এসেছে। অন্যদিকে ইংরেজিতে মনোকলড অর্থ হল একচোখাএকচোখা। এ সাপটিকে মনোকলড বলার কারন হল এই সাপের ফণার পিছনে গোল দাগ থাকে যা দেখতে একচোখা চশমার মত লাগে তাই এর ইংরেজি নাম মনোকল্ড কোবরা। সকল গোখরা প্রজাতির সাপ উত্তেজিত হলে ওদেরফণা মেলে ধরে। সাপের ঘাড়ের লম্বা হাড় স্ফীত হয়ে ওঠে, তাতে চমৎকার ফণাটি বিস্তৃত হয়।
 
ইংরেজি কোবরার (Cobra) আক্ষরিক অর্থ হল কেউটে বা গোখরা। প্রকৃত পক্ষে কোবরা হল [[নাজা]] নামক বিস্তৃত ও বৃহৎ সর্পগণ (Genus)। এই গণে (Genus) সকল প্রজাতির কোবরাকে অর্ন্তভুক্ত করা হয়। কোবরা ভারতীয় উপমহাদেশের বিভিন্ন দেশ ছাড়াও মিশর, আরব, দক্ষিন আফ্রিকা, বার্মা, চীন ইত্যাদি দেশ ও অঞ্চলে দেখা যায়।
 
অনেকে ভুলবশত গোখরা/কেউটে বলতে শুধুমাত্র [[স্পেকটাকলড কোবরা]] বা মনোকল্ড কোবরাকে বুঝে থাকে। এটি আসলে একটি বৃহৎ সর্পগোষ্ঠির সাধারণ নাম।
 
বাংলাদেশের ২০১২ সালের বন্যপ্রাণী (সংরক্ষণ ও নিরাপত্তা) আইনে এ প্রজাতিটি সংরক্ষিত।<ref>বাংলাদেশ গেজেট, অতিরিক্ত, জুলাই ১০, ২০১২, গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকার, পৃষ্ঠা-১১৮৫০৮</ref>
২,২২৬টি

সম্পাদনা