"শালবন বৌদ্ধ বিহার" পাতাটির দুইটি সংশোধিত সংস্করণের মধ্যে পার্থক্য

তথ্যসূত্র সংযোজন
(ভূমিকায় তথ্য সংযোজন)
(তথ্যসূত্র সংযোজন)
প্রত্নতাত্ত্বিক খননের মাধ্যমে বিহারটির ধ্বংসাবশেষ থেকে আটটি তাম্রলিপি, প্রায় ৪০০টি স্বর্ণ ও রৌপ্য মুদ্রা, অসংখ্য পোড়া মাটির ফলক বা টেরাকোটা, সিলমোহর, ব্রৌঞ্জ ও মাটির মূর্তি পাওয়া গেছে। এগুলো বাংলাদেশের প্রাচীন প্রত্নতাত্ত্বিক ঐতিহ্যের স্বাক্ষর বহন করছে।
 
==তথ্যসূত্র==
 
* ইফফাত আরা, ‌‌''জানার আছে অনেক কিছু‌‌'', ১৯৯৯, দেশ প্রকাশন, ঢাকা।
* এ, কে, এম, শামসুল আলম, ‌‌''ময়নামতি'', ১৯৭৬, ডিপার্টমেন্ট অফ আর্কিওলজি এন্ড মিউজিয়াম, ঢাকা।
* মোঃ শফিকুল আলম, ''এক্সভেশান এট রুপবনমুরা‌‌, ২০০০, ডিপার্টমেন্ট অফ আর্কিওলজি এন্ড মিউজিয়াম, ঢাকা।