"শালবন বৌদ্ধ বিহার" পাতাটির দুইটি সংশোধিত সংস্করণের মধ্যে পার্থক্য

চিত্র স্থানান্তর
({{অসম্পূর্ণ}} ফলক অপসারণ, বাংলাদেশের পর্যটন স্থল শ্রেণী সংযোজন)
(চিত্র স্থানান্তর)
==বর্ণনা==
আকারে এটি চৌকো। শালবন বিহারের প্রতিটি বাহু ১৬৭.৭ মিটার দীর্ঘ। বিহারের চার দিকের দেয়াল পাঁচ মিটার পুরু। কক্ষগুলো বিহারের চার দিকের বেষ্টনী দেয়াল পিঠ করে নির্মিত। বিহারে ঢোকা বা বের হওয়ার মাত্র একটাই পথ ছিল। এ পথ বা দরজাটি উত্তর ব্লকের ঠিক মাঝামাঝি স্খানে রয়েছে। প্রতিটি কক্ষের মাঝে ১.৫ মিটার চওড়া দেয়াল রয়েছে। বিহার অঙ্গনের ঠিক মাঝে ছিল কেন্দ্রীয় মন্দির।
[[চিত্র:Shalbon budha bihar2.jpg|right|thumb|শালবন বৌদ্ধ বিহার]]
==কক্ষ==
বিহারে সর্বমোট ১৫৫টি কক্ষ আছে। কক্ষের সামনে ৮.৫ ফুট চওড়া টানা বারান্দা ও তার শেষ প্রান্তে অনুচ্চ দেয়াল। প্রতিটি কক্ষের দেয়ালে তিনটি করে কুলুঙ্গি রয়েছে। কুলুঙ্গিতে দেবদেবী, তেলের প্রদীপ ইত্যাদি রাখা হতো। এই কক্ষগুলো ছিল [[বৌদ্ধ ভিক্ষু|বৌদ্ধ ভিক্ষুরা]] থাকতেন। সেখানে বিদ্যাশিক্ষা ও ধর্মচর্চ্চা করতেন।
 
 
 
[[চিত্র:Shalbon budha bihar2.jpg|right|thumb|শালবন বৌদ্ধ বিহার]]
 
{{বাংলার প্রত্নস্থল}}
[[বিষয়শ্রেণী:বাংলাদেশের ইতিহাস]]
[[বিষয়শ্রেণী:বাংলাদেশের দর্শনীয় স্থান]]
[[বিষয়শ্রেণী:বাংলাদেশের পর্যটন স্থল]]
[[বিষয়শ্রেণী:প্রাচীন যুগ]]
[[বিষয়শ্রেণী:বাংলার ইতিহাস]]
[[বিষয়শ্রেণী:বাংলার প্রত্নস্থল]]
[[বিষয়শ্রেণী:বাংলাদেশের প্রাচীন নিদর্শন]]
[[বিষয়শ্রেণী:বাংলাদেশের পর্যটন স্থল]]