"মণি সিংহ" পাতাটির দুইটি সংশোধিত সংস্করণের মধ্যে পার্থক্য

→‎পাকিস্তান আমল: সম্প্রসারণ
(রচনাশৈলী)
(→‎পাকিস্তান আমল: সম্প্রসারণ)
 
== পাকিস্তান আমল ==
১৯৪৭ সালে [[পাকিস্তান]] গঠিত হওয়ার পর কমিউনিস্ট পার্টি বিপ্লবমুখী নীতি গ্রহণ করে। পার্টির নেতা ও কর্মীদের ব্যাপকহারে গ্রেপ্তার শুরু হয়। মণি সিংহ আত্মগোপন করতে বাধ্য হন। তিনি পার্টি পুনর্গঠনের জন্য কাজ করতে থাকেন। পঞ্চাশের দশকে তিনি পূর্ব পাকিস্তান কমিউনিস্ট পার্টির সাধারণ সম্পাদক নির্বাচিত হন। [[যুক্তফ্রন্ট]] সরকারের সময় অল্প কিছুদিন তিনি আত্মগোপন অবস্থা থেকে বেরিয়ে এসেছিলেন। পাকিস্তান আমলের অনেকটা সময়ই তাঁকে আত্মগোপনে থাকতে হয়; এর মাঝেই কয়েকবার তাঁকে জেলেও যেতে হয়েছে। তবে এই প্রতিকূল অবস্থার মধ্যেও বামপন্থী সংগ্রাম ও গণআন্দোলন সংগঠনে তিনি গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রেখেছেন। ১৯৬৭ সালে গ্রেপ্তার হয়ে তিনি মুক্তি পান [[ঊনসত্তরের গণঅভ্যুত্থান]]ের পর।{{তথ্যসূত্র প্রয়োজন}}
 
১৯৪৯ সালে তিনি পূর্ব বঙ্গীয় প্রাদেশিক কৃষক সভার সভাপতি নির্বাচিত হন।
 
পঞ্চাশের দশকে তিনি পূর্ব পাকিস্তান কমিউনিস্ট পার্টির সাধারণ সম্পাদক নির্বাচিত হন। [[যুক্তফ্রন্ট]] সরকারের সময় অল্প কিছুদিন তিনি আত্মগোপন অবস্থা থেকে বেরিয়ে এসেছিলেন। পাকিস্তান আমলের অনেকটা সময়ই তাঁকে আত্মগোপনে থাকতে হয়; এর মাঝেই কয়েকবার তাঁকে জেলেও যেতে হয়েছে। তবে এই প্রতিকূল অবস্থার মধ্যেও বামপন্থী সংগ্রাম ও গণআন্দোলন সংগঠনে তিনি গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রেখেছেন। ১৯৬৭ সালে গ্রেপ্তার হয়ে তিনি মুক্তি পান [[ঊনসত্তরের গণঅভ্যুত্থান]]ের পর।{{তথ্যসূত্র প্রয়োজন}}
 
== মুক্তিযুদ্ধ ও স্বাধীন বাংলাদেশ ==
৩২,৪৫০টি

সম্পাদনা