কোকো দ্বীপ: সংশোধিত সংস্করণের মধ্যে পার্থক্য

(সংশোধন)
(বট নিবন্ধ পরিষ্কার করেছে। কোন সমস্যায় এর পরিচালককে জানান।)
((সংশোধন))
ট্যাগ: মোবাইল সম্পাদনা মোবাইল ওয়েব সম্পাদনা উচ্চতর মোবাইল সম্পাদনা
ষোড়শ খ্রিষ্টাব্দে পুর্তগীজ নাবিকরা দ্বীপটির নাম "কোকো" রাখেন। "কোকো" শব্দটি [[পূর্তগীজ|পূর্তগীজ ভাষায়]] নারিকেল বোঝায়। আঠারোো শতকে [[ব্রিটিশ ইস্ট ইন্ডিয়া কোম্পানি|ব্রিটিশ ইস্ট ইন্ডিয়া কোম্পানী]] [[আন্দামান দ্বীপপুঞ্জ]] দখল করে এবং ঊনবিংশ শতাব্দীতে ভারতের ব্রিটিশ ঔপনিবেশিক শক্তি এখানে বন্দী শিবির স্থাপন করে। তখন কোকো দ্বীপপুঞ্জ সেখানকার খাদ্য সরবরাহের উৎস হিসেবে কাজ করত। ব্রিটিশ সরকার দ্বীপপুঞ্জ গুলোকে বার্মার জাদেত পরিবারের কাছে লীজ দেয়<ref>https://idsa.in/system/files/book/book_andman-nicobar.pdf</ref> যারা ছিল ইয়াঙ্গুনের একটি সন্মানিত পরিবার।
 
কোকো দ্বীপগুলোর দুর্গমতার জন্য এগুলোকে ঠিকভাবে শাসন করা যাচ্ছিল না। তাই ব্রিটিশ সরকার দ্বীপগুলোর নিয়ন্ত্রণ রেঙ্গুন সরকারের হাতে হস্তান্তর করে। ১৮৮২ সালে দ্বীপগুলো দাপ্তরিকভাবে ব্রিটিশ বার্মার অধীনস্তঅধীনস্থ হয়। ১৯৩৭ সালে বার্মা যখন ভারত থেকে আলাদা হয়, তখন এগুলো বার্মার আওতাধীন অঞ্চল হিসেবে পরিগণিত হয়। ১৯৪২ সালে আন্দামান ও নিকোবর দ্বীপগুলো সহ এই দ্বীপগুলোও [[জাপান]] দখল করে নেয়। পরবর্তিতে বার্মা যখন ১৯৪৮ সালে যুক্তরাজ্য থেকে স্বাধীনতা লাভ করে তখন কোকো দ্বীপপুঞ্জ স্বাধীন বার্মার অঞ্চল হিসেবে পরিচিতি লাভ করে।
 
[[বিষয়শ্রেণী:ভারত মহাসাগর]]