"পোষা কবুতর" পাতাটির দুইটি সংশোধিত সংস্করণের মধ্যে পার্থক্য

বানান ও অন্যান্য সংশোধন
(২টি উৎস উদ্ধার করা হল ও ০টি অকার্যকর হিসেবে চিহ্নিত করা হল।) #IABot (v2.0.8)
(বানান ও অন্যান্য সংশোধন)
* কিং: এ জাতের কবুতরের মধ্যে হোয়াইট কিং এবং সিলভার কিং আমেরিকাসহ ইউরোপের অন্যান্য দেশগুলিতে বিশেষ জনপ্রিয়তা লাভ করেছে। কিং জাতের কবুতর প্রদর্শনী এবং স্কোয়াব উৎপাদনে ব্যবহার হয়। এছাড়াও রয়েছে ব্লু রেড এবং ইয়েলো কিং। এই জাতের কবুতর মূলত প্রদর্শনীতে ব্যবহৃত হয়।
* প্রিন্স
* গিরিবাজ : পাক-ভারতীয় সাদা চোখ ও কালো মণী বিশিষ্ট কবুতর গিরিবাজ নামে পরিচিত। এদের উৎপত্তিস্থল পাক-ভারত উপমহাদেশ। গিরিবাজ কবুতর প্রধানত তিন টাইপের হাই ফ্লাইয়ার/টিপলার,লো ফ্লাইয়ার ও কালারিং টাইপের হয়। হাই ফ্লাইয়ার গিরিবাজ অনেক উচুতে দীর্ঘ সময় সময় উড়তে পারে।পৃথিবীতে এই জাতের কবুতর ফ্লাইং টুর্নামেন্টে ২২ ঘন্টাঘণ্টা উড়ার রেকর্ড আছে। হাই ফ্লাইয়ার কবুতর দিয়ে উড়ানোর খেলা হয়ে থাকে।এই খেলা টুর্নামেন্ট আকারে হয়। টুর্নামেন্ট এ যার কবুতর দীর্ঘ সময় উড়ে সে বিজয়ী হয়। আমেরিকা,লন্ডন,ভারত,পাকিস্তান ও বাংলাদেশে এসব ফ্লাইং টুর্নামেন্ট হয়।উপমহাদেশে যারা এসব হাই ফ্লাইয়ার কবুতর নিয়ে চর্চা করে তাদের ওস্তাদ বলা হয়। বাংলাদেশের ঢাকা,খুলনা,চট্টগ্রাম,রাজশাহী, ময়মনসিংহ অঞ্চলে ব্যাপকভাবে গিরিবাজ কবুতরের ফ্লাইং চর্চা হয়।হাই ফ্লাইং জাতের মধ্যে পাকিস্তানি টেডি,শিয়ালকোটি,কাসুরি,গোল্ডেন,কামাগার,থার্টি ফাইভ সহ দেশিও কয়েকটি জাত বিখ্যাত।(তথ্যগুলি কবুতর বিশেষজ্ঞ হিমেল তরফদারের কবুতর পরিচিতি বই এবং ব্লগ থেকে সংগৃহীত) আমাদের দেশে এদের যথেষ্ট কদর রয়েছে। বিভিন্ন গিরিবাজের মধ্যে অন্যতম:
**বাঘা
**চুইনা: সমস্ত শরীর সাদা কিন্তু সমস্ত চোখ কালো নয়।
** লাল গলা
* পটার: গলার নিচটা ফুটবলের মতো।
* মুকি: এ জাতের কবুতরের গলা রাজহাঁসের মত পিছন দিকে বাঁকানো এবং কম্পমান অবস্থায় থাকে। মুকি জাতের কবুতরের উৎপত্তি ভারতে বলে ধারণা করা হয়। এদের উভয় ডানার তিনটি উড়বার উপযোগী পালক সাদা হয় যা অন্য কোনো কবুতরে দেখা যায় না। এ জাতের কবুতরের মাথা সাদা, বুক খুব একটা চওড়া নয় তবে উঁচু ও বেশ কিছুটা সামনের দিকে বাড়ানো থাকে। সাদা, কালো এবং নীল বর্ণের এই কবুতরের পায়ে লোম থাকে। এই ক কবুতর আপনারা সব দেশেই [https://www.alorrasta.xyz/2021/02/blog-post.html পাবেন] {{ওয়েব আর্কাইভ|urlইউআরএল=https://web.archive.org/web/20210207205028/https://www.alorrasta.xyz/2021/02/blog-post.html |dateতারিখ=৭ ফেব্রুয়ারি ২০২১ }}।
* ফ্রিল ব্যাক
* জ্যাকোবিন: এই কবুতরের মাথার পালক ঘাড় অবধি ছড়ানো থাকে যা বিশেষ ধরনের মস্তকাবরণের মত দেখায়। এদের উৎপত্তিস্থল সম্পর্কে সঠিকভাবে জানা যায় না। তবে এদের আদি জন্মস্থান ভারত বলেই ধারণা করা হয়। এই কবুতর সাধারণত সাদা, লাল, হলুদ, নীল ও রূপালি বর্ণের হয়। এদের দেহ বেশ লম্বাটে। চোখ মুক্তার মত সাদা হয়।
* [http://www.nationalpigeonassociation.co.uk/ National Pigeon Association (Great Britain)]
* [http://www.pigeonfanciers.ca/ The Canadian Pigeon Fanciers Association]
* [http://www.kobutor.net/ Learn About Pigeons In Bangla] {{ওয়েব আর্কাইভ|urlইউআরএল=https://web.archive.org/web/20200609112708/https://www.kobutor.net/ |dateতারিখ=৯ জুন ২০২০ }}
* [http://spud1.50megs.com/ Australian National Pigeon Association]
* [http://nepal.tipplers.com/ Nepal Pigeon Keeper's Association]
*[https://www.blogger.com/blog/post/edit/3107439623140947085/258541205411445038 Pigeon Circo Virus Treatment]
*
[https://www.facebook.com/himel.org] [https://www.alorrasta.xyz/2021/02/blog-post.html কবুুুতর] {{ওয়েব আর্কাইভ|urlইউআরএল=https://web.archive.org/web/20210207205028/https://www.alorrasta.xyz/2021/02/blog-post.html |dateতারিখ=৭ ফেব্রুয়ারি ২০২১ }}
 
[[বিষয়শ্রেণী:কলাম্বা]]
[[বিষয়শ্রেণী:গৃহপালিত পাখি]]
৪,৮৫৫টি

সম্পাদনা