"একতা এক্সপ্রেস" পাতাটির দুইটি সংশোধিত সংস্করণের মধ্যে পার্থক্য

বিষয়শ্রেণী অপসারণ
ট্যাগ: মোবাইল সম্পাদনা মোবাইল ওয়েব সম্পাদনা
(বিষয়শ্রেণী অপসারণ)
১৯৮৬ সালে উত্তরবঙ্গের দিনাজপুর থেকে রাজধানী ঢাকা পর্যন্ত একতা এক্সপ্রেস নাম নিয়ে একটি আন্তঃনগর ট্রেন চালু হয়। সেই সময় যমুনা সেতু না থাকায় একতা এক্সপ্রেস দিনাজপুর থেকে ছেড়ে পার্বতীপুর, রংপুর, কাউনিয়া, গাইবান্ধা হয়ে বালাসী ঘাট এসে যাত্রী নামিয়ে দিত, তারপর যাত্রীগণ রেলওয়ের নিজস্ব ফেরী সেবার মাধ্যমে যমুনা নদী পাড়ি দিয়ে বাহাদুরাবাদ ঘাটে পৌঁছাতো। সেখানে একতা এক্সপ্রেসের অপর রেক পুনরায় যাত্রা শুরু করে জামালপুর, ময়মনসিংহ, জয়দেবপুর হয়ে ঢাকায় পৌছাত, সংক্ষেপে তখন ট্রেনটি দিনাজপুর থেকে ছেড়ে রংপুর, গাইবান্ধা, জামালপুর, ময়মন-সিংহ,গাজীপুর হয়ে ঢাকায় আসত। পরে যমুনা সেতু চালু হলে এই ট্রেনটি দিনাজপুর থেকে ছেড়ে জয়পুরহাট, নাটোর, পাবনা, সিরাজগঞ্জ, টাঙ্গাইল ও গাজীপুর হয়ে ঢাকায় পৌছায়।
==কোচসমূহ==
এই ট্রেনে ১২টি বগি আছে। যার মধ্যে ১টি এসি চেয়ার, ১টি এসি স্লিপার, ১টি পাওয়ার কার, ২টি খাবার গাড়ী, ৭টি শোভন চেয়ার।
 
== সময়সূচী==
[[বিষয়শ্রেণী:বাংলাদেশের নামযুক্ত যাত্রীবাহী ট্রেন]]
[[বিষয়শ্রেণী:১৯৮৬-এ চালু রেল পরিষেবা]]
[[বিষয়শ্রেণী:গাজীপুর জেলার রেল পরিবহন]]
[[বিষয়শ্রেণী:জয়পুরহাট জেলার রেল পরিবহন]]
[[বিষয়শ্রেণী:টাঙ্গাইল জেলার রেল পরিবহন]]
[[বিষয়শ্রেণী:ঠাকুরগাঁও জেলার রেল পরিবহন]]
[[বিষয়শ্রেণী:ঢাকা জেলার রেল পরিবহন]]
[[বিষয়শ্রেণী:দিনাজপুর জেলার রেল পরিবহন]]
[[বিষয়শ্রেণী:নাটোর জেলার রেল পরিবহন]]
[[বিষয়শ্রেণী:পঞ্চগড় জেলার রেল পরিবহন]]
[[বিষয়শ্রেণী:বগুড়া জেলার রেল পরিবহন]]
[[বিষয়শ্রেণী:সিরাজগঞ্জ জেলার রেল পরিবহন]]
৩,৭৮,২২৪টি

সম্পাদনা