"পোষা কবুতর" পাতাটির দুইটি সংশোধিত সংস্করণের মধ্যে পার্থক্য

সম্পাদনা সারাংশ নেই
ট্যাগ: মোবাইল সম্পাদনা মোবাইল ওয়েব সম্পাদনা দৃশ্যমান সম্পাদনা
ট্যাগ: মোবাইল সম্পাদনা মোবাইল ওয়েব সম্পাদনা দৃশ্যমান সম্পাদনা
* কিং: এ জাতের কবুতরের মধ্যে হোয়াইট কিং এবং সিলভার কিং আমেরিকাসহ ইউরোপের অন্যান্য দেশগুলিতে বিশেষ জনপ্রিয়তা লাভ করেছে। কিং জাতের কবুতর প্রদর্শনী এবং স্কোয়াব উৎপাদনে ব্যবহার হয়। এছাড়াও রয়েছে ব্লু রেড এবং ইয়েলো কিং। এই জাতের কবুতর মূলত প্রদর্শনীতে ব্যবহৃত হয়।
* প্রিন্স
* গিরিবাজ : পাক-ভারতীয় সাদা চোখ ও কালো মণী বিশিষ্ট কবুতর গিরিবাজ নামে পরিচিত। এদের উৎপত্তিস্থল পাক-ভারত উপমহাদেশ। গিরিবাজ কবুতর প্রধানত তিন টাইপের হাই ফ্লাইয়ার/টিপলার,লো ফ্লাইয়ার ও কালারিং টাইপের হয়। হাই ফ্লাইয়ার গিরিবাজ অনেক উচুতে দীর্ঘ সময় সময় উড়তে পারে।পৃথিবীতে এই জাতের কবুতর ফ্লাইং টুর্নামেন্টে ২২ ঘন্টা উড়ার রেকর্ড আছে। হাই ফ্লাইয়ার কবুতর দিয়ে উড়ানোর খেলা হয়ে থাকে।এই খেলা টুর্নামেন্ট আকারে হয়। টুর্নামেন্ট এ যার কবুতর দীর্ঘ সময় উড়ে সে বিজয়ী হয়। আমেরিকা,লন্ডন,ভারত,পাকিস্তান ও বাংলাদেশে এসব ফ্লাইং টুর্নামেন্ট হয়।উপমহাদেশে যারা এসব হাই ফ্লাইয়ার কবুতর নিয়ে চর্চা করে তাদের ওস্তাদ বলা হয়। বাংলাদেশের ঢাকা,খুলনা,চট্টগ্রাম,রাজশাহী, ময়মনসিংহ অঞ্চলে ব্যাপকভাবে গিরিবাজ কবুতরের ফ্লাইং চর্চা হয়।হাই ফ্লাইং জাতের মধ্যে পাকিস্তানি টেডি,শিয়ালকোটি,কাসুরি,গোল্ডেন,কামাগার,থার্টি ফাইভ সহ দেশিও কয়েকটি জাত বিখ্যাত।(তথ্যগুলি কবুতর বিশেষজ্ঞ হিমেল তরফদারের ব্লগ থেকে সংগৃহীত) আমাদের দেশে এদের যথেষ্ট কদর রয়েছে। বিভিন্ন গিরিবাজের মধ্যে অন্যতম:
* টাম্বলার/গিরিবাজ: (উড়ানোর জন্য বিখ্যাত) - এসব জাতের কবুতর আকাশে ডিগবাজি খায় বলে এদের টাম্বলার বলে। আমাদের দেশে এই জাতটি গিরিবাজ নামে পরিচিত। এদের উৎপত্তিস্থল পাক-ভারত উপমহাদেশ। মনোরঞ্জনের জন্য আমাদের দেশে এদের যথেষ্ট কদর রয়েছে। বিভিন্ন গিরিবাজের মধ্যে অন্যতম:
**বাঘা
**চুইনা: সমস্ত শরীর সাদা কিন্তু সমস্ত চোখ কালো নয়।
২৮টি

সম্পাদনা