জিনা লল্লোব্রিজিদা: সংশোধিত সংস্করণের মধ্যে পার্থক্য

কর্মজীবন
(প্রারম্ভিক জীবন)
(কর্মজীবন)
'''লুইজিনা "জিনা" লল্লোব্রিজিদা''' ({{lang-en|Luigina "Gina" Lollobrigida}}; জন্ম: ৪ জুলাই ১৯২৭) হলেন একজন ইতালীয় অভিনেত্রী, আলোকচিত্র সাংবাদিক ও ভাস্কর। তিনি ১৯৫০-এর দশক থেকে ১৯৬০-এর দশকের শুরু পর্যন্ত অন্যতম সেরা ইউরোপীয় অভিনেত্রী ছিলেন এবং এই সময়ে তিনি আন্তর্জাতিক যৌন আবেদনের প্রতীক হয়ে ওঠেন।
 
লল্লোব্রিজিদা ১৯৫৩ সালে ''পানে, আমোরে এ ফান্তাসিয়া'' চলচ্চিত্রে অভিনয় করে শ্রেষ্ঠ অভিনেত্রী বিভাগে [[নাস্ত্রো দারজেন্তো]] পুরস্কার লাভ করেন এবং [[শ্রেষ্ঠ প্রধান চরিত্রে অভিনেত্রী বিভাগে বাফটা পুরস্কার|শ্রেষ্ঠ বিদেশি অভিনেত্রী বিভাগে বাফটা পুরস্কারের]] মনোনয়ন লাভ করেন। তিনি ''লা দোন্নো পিউ বেল্লা দেল মোন্দো'' (১৯৫৫), ''ভেনেরে ইমপেরিয়েলে'' (১৯৬২) ও ''বোনা সেরা, মিসেস ক্যাম্পবেল'' (১৯৬৮) ছবিতে অভিনয় করে শ্রেষ্ঠ অভিনেত্রী বিভাগে তিনটি [[দাভিদ দি দোনাতেল্লো]] লাভ করেন।
 
চলচ্চিত্র কর্মজীবনের পড়তিকালীন তিনি আলোকচিত্র সাংবাদিক ও ভাস্কর হিসেবে তার দ্বিতীয় কর্মজীবন শুরু করেন। ১৯৭০-এর দশকে তিনি [[ফিদেল কাস্ত্রো]]র সাক্ষাৎকার গ্রহণের সুযোগ পান। তিনি ইতালীয় ও ইতালীয় মার্কিন বিভিন্ন সমস্যায় সক্রিয় কর্মী হিসেবে, বিশেষ করে ন্যাশনাল ইতালিয়ান আমেরিকান ফাউন্ডেশনের হয়ে, কাজ করেন। ২০০৮ সালে প্রতিষ্ঠানটির বার্ষিক আয়োজনে তাকে এনআইএএফ আজীবন সম্মাননা পুরস্কার প্রদান করা হয়।<ref>{{ওয়েব উদ্ধৃতি|শিরোনাম=Legendary Actress Gina Lollobrigida To be Honored at Largest Italian-American Gala in Nation’s Capital {{!}} The National Italian American Foundation|ইউআরএল=http://www.niaf.org/niaf_event/legendary-actress-gina-lollobrigida-to-be-honored-at-largest-italian-american-gala-in-nations-capital/|ওয়েবসাইট=এনআইএএফ|সংগ্রহের-তারিখ=৪ জুলাই ২০১৮|ভাষা=en-US}}</ref><ref>{{সংবাদ উদ্ধৃতি|শেষাংশ1=ডোনাডিও|প্রথমাংশ1=রেচেল|শিরোনাম=The Lifetime Honors Arrive for Gina Lollobrigida; Meanwhile, the Life Goes On|ইউআরএল=https://www.nytimes.com/2008/10/26/movies/26dona.html|সংগ্রহের-তারিখ=৪ জুলাই ২০১৮|কর্ম=[[দ্য নিউ ইয়র্ক টাইমস]]|তারিখ=২৪ অক্টোবর ২০০৮|ভাষা=en}}</ref>
 
১৯৪৭ সালে লল্লোব্রিজিদা মিস ইতালিয়া সুন্দরী প্রতিযোগিতায় অংশগ্রহণ করে তৃতীয় স্থান অধিকার করেন, যার ফলে তিনি জাতীয় পরিসরে পরিচিতি অর্জন করেন।
 
==কর্মজীবন==
১৯৫৩ সালে লল্লোব্রিজিদার অভিনীত ''পানে, আমোরে এ ফান্তাসিয়া'' চলচ্চিত্রটি বক্স অফিসে সফলতা অর্জন করে।<ref name=Hughes>{{cite magazine|title=Kept Out of Hollywood 8 Years, Lollobrigida Pretty Mad at Hughes|last=ওয়েরবা |first=হ্যাংক |magazine=[[ভ্যারাইটি (পত্রিকা)|ভ্যারাইটি]] |date=26 November 1958|page=১৮ |url=http://www.archive.org/stream/variety212-1958-11#page/n245/mode/1up|access-date=২৪ ডিসেম্বর ২০২০ |via=[[Archive.org]]}}</ref> তিনি এই চলচ্চিত্রে অভিনয় করে শ্রেষ্ঠ অভিনেত্রী বিভাগে [[নাস্ত্রো দারজেন্তো]] লাভ করেন এবং [[শ্রেষ্ঠ প্রধান চরিত্রে অভিনেত্রী বিভাগে বাফটা পুরস্কার|শ্রেষ্ঠ বিদেশি অভিনেত্রী বিভাগে বাফটা পুরস্কারের]] মনোনয়ন লাভ করেন। এরপর তিনি ''লা প্রোভিনচিয়ালে'' (১৯৫৩) ও ''লা রোমানা'' (১৯৫৪) চলচ্চিত্রে অভিনয় করেন।
 
তিনি ''লা দোন্নো পিউ বেল্লা দেল মোন্দো'' (১৯৫৫) চলচ্চিত্রে অভিনয় করে শ্রেষ্ঠ অভিনেত্রী বিভাগে তার প্রথম [[দাভিদ দি দোনাতেল্লো]] লাভ করেন। এই চলচ্চিত্রে তিনি ইতালীয় সোপরানো লিনা কাভালিয়েরির চরিত্রে অভিনয় করেন, এবং নিজের কণ্ঠে কয়েকটি তোস্কা গান।
 
তিনি ১৯৬২ সালে [[স্টিফেন বয়েড]]ের বিপরীতে জঁ দেলানয়ের পরিচালনায় ''ভেনেরে ইমপেরিয়েলে'' (১৯৬২) চলচ্চিত্রে অভিনয় করেন। এই কাজের জন্য তিনি শ্রেষ্ঠ অভিনেত্রী বিভাগে [[নাস্ত্রো দারজেন্তো]] ও [[দাভিদ দি দোনাতেল্লো]] লাভ করেন। এরপর তিনি [[শন কনারি]]র বিপরীতে ''ওম্যান অব স্ট্র'' (১৯৬৪), [[রক হাডসন]]ের বিপরীতে ''স্ট্রেঞ্জ বেডফেলোস'' (১৯৬৫) ও [[অ্যালেক গিনেস]]ের বিপরীতে ''হোটেল পারাদিজো'' (১৯৬৬) চলচ্চিত্রে অভিনয় করেন।
 
তিনি [[শেলি উইন্টার্স]], [[ফিল সিলভার্স]], [[পিটার লফোর্ড]] ও [[টেলি স্যাভালাস]]ের সাথে ''বোনা সেরা, মিসেস ক্যাম্পবেল'' (১৯৬৮) চলচ্চিত্র অভিনয় করেন। এই কাজের জন্য তিনি [[গোল্ডেন গ্লোব পুরস্কার]]ের মনোনয়ন লাভ করেন এবং শ্রেষ্ঠ অভিনেত্রী বিভাগে তার তৃতীয় দাভিদ দি দোনাতেল্লো লাভ করেন।
 
==তথ্যসূত্র==