"বেফাকুল মাদারিসিল কওমিয়া গওহরডাঙ্গা বাংলাদেশ" পাতাটির দুইটি সংশোধিত সংস্করণের মধ্যে পার্থক্য

সম্পাদনা সারাংশ নেই
'''বেফাকুল মাদারিসিল কওমিয়া গওহরডাঙ্গা''', [[বাংলাদেশ]] ৷ সংক্ষেপে '''গওহরডাঙ্গা বোর্ড''', হলো বাংলাদেশের কওমি মাদরাসাসমূহের একটি বৃহত্তম বোর্ড।  এটি বাংলাদেশ‘আল-হাইআতুল উলয়া লিল-জামি’আতিল কওমিয়া বাংলাদেশ’ এর অধীনস্থ ৬টি কওমি মাদরাসা শিক্ষা বোর্ডবোর্ডের নামেওএকটি।<ref>{{ওয়েব পরিচিত। এটিউদ্ধৃতি|ইউআরএল=http://bdlaws.minlaw.gov.bd/act-details-1263.html|শিরোনাম=‘আল-হাইআতুল ছাড়াওউলয়া বাংলাদেশেরলিল-জামি’আতিল কওমিকওমিয়া মাদরাসাবাংলাদেশ’ সমূহেরএর ছোটঅধীন ‘কওমি মাদরাসাসমূহের দাওরায়ে হাদিস (তাকমীল)-বড়এর আরোসনদকে প্রায়মাস্টার্স আঠারোটিডিগ্রি শিক্ষা(ইসলামিক বোর্ডস্টাডিজ ও আরবি)-এর সমমান প্রদান আইন, ২০১৮’|ওয়েবসাইট=bdlaws.minlaw.gov.bd|সংগ্রহের-তারিখ=2020-09-10}}</ref> আছে। বেফাকুল মাদারিস তাদের নিবন্ধিত শিক্ষাপ্রতিষ্টানের পাঠ্যসূচি প্রণয়ন, উন্নয়ন, বিভিন্ন স্তরভেদে পরীক্ষা গ্রহণ এবং সনদ প্রদানের কাজ করে। ২০১ খ্রিস্টাব্দের রিপোর্ট অনুযায়ী তাদের অধীনে পাঁচ শ'য়েরও বেশি কওমি মাদরাসা রয়েছে।
 
== বর্তমান শিক্ষা ব্যবস্থা ==
* ৪র্থ স্তর:- মারহালাতুল তাকমিল (মাস্টার্স ডিগ্রি)। এতে রয়েছে দু'বছর। এ স্তরকে দাওরায়ে হাদীস বলা হয়।
তৃতীয় পর্যায়: এ পর্যায়ে রয়েছে বিষয়ভিত্তিক ডিপ্লোমা ও গভেষনামূলক শিক্ষা কোর্স। যথা: হাদীস, তাফসির, ফিকহ, ফতওয়া, তাজবিদ, আরবিসাহিত্য, বাংলা সাহিত্য, ইংরেজি, উর্দূ ও ফারসি ভাষা, ইসলামের ইতিহাস, ও সীরাত, ইলমুল কালাম, ইসলামি দর্শন, অর্থনীতি, রাষ্টবিজ্ঞান, পৌর বিজ্ঞান ও সমাজ বিজ্ঞান, ইত্যাদি বিষয়ের গবেষণামূলক শিক্ষা।
 
==তথ্যসূত্র==
{{সূত্র তালিকা}}
 
{{কওমি মাদ্রাসা শিক্ষা বোর্ড}}
 
[[বিষয়শ্রেণী:বাংলাদেশের শিক্ষা বোর্ড]]
[[বিষয়শ্রেণী:কওমি মাদ্রাসার শিক্ষা বোর্ড]]