লিগাল ফ্রেমওয়ার্ক অর্ডার, ১৯৭০: সংশোধিত সংস্করণের মধ্যে পার্থক্য

সম্পাদনা সারাংশ নেই
(→‎শীর্ষ: সম্প্রসারণ)
সম্পাদনা সারাংশ নেই
 
==নিয়ম==
১৯৭০ সালের ৩১৩০ মার্চ জেনারেল [[ইয়াহিয়া খান]] লিগাল ফ্রেমওয়ার্ক অর্ডার ঘোষণা করেন।<ref>{{বই উদ্ধৃতি|ইউআরএল=https://archive.org/details/pakistanmodernhi00talb|শিরোনাম=Pakistan, a modern history|শেষাংশ=Talbot, Ian.|প্রথমাংশ=|তারিখ=1998|বছর=|প্রকাশক=St. Martin's Press|অবস্থান=New York|পাতাসমূহ=[https://archive.org/details/pakistanmodernhi00talb/page/190 ১৯০]|আইএসবিএন=0-312-21606-8|oclc=38739043}}</ref> এতে বলা হয় যে আইনসভায় ৩০০টি আসন থাকবে।<ref name="A"/> ১৯৫৬ সালের সংবিধানে সংখ্যাসাম্যের উল্লেখ ছিল। ফ্রেমওয়ার্কে রাষ্ট্রের দুই অংশের জন্য সংখ্যানুপাতের কথা বলা হয়। এই নিয়মের আওতায় পূর্ব পাকিস্তান ১৬২টি ও পশ্চিম পাকিস্তান ১৩৮টি আসন লাভ করে।<ref name="A"/> আরো উল্লেখ করা হয় যে জাতীয় পরিষদ অধিবেশন আহ্বানের ১২০ দিনের মধ্যে একটি নতুন সংবিধান প্রণয়ন করবে, কিন্তু প্রক্রিয়ার নিয়ম ভবিষ্যত আইনসভার হাতে অর্পণ করা হয়।<ref name="A"/> ১২০ দিনের মধ্যে নতুন আইনসভা সংবিধান প্রণয়নে ব্যর্থ হলে নতুন নির্বাচন দেয়া হবে। রাজনৈতিক দল কর্তৃক প্রস্তাবিত সকল বক্তব্য ও সম্মতি প্রস্তাব রাষ্ট্রপতির সামনে সত্যায়িত করার জন্য পেশ করা হবে।<ref name="G">{{বই উদ্ধৃতি|শিরোনাম=War and Secession: Pakistan, India and the Creation of Bangladesh|লেখক=Richard Sisson, Leo E. Rose|প্রকাশক=University of California Press|পাতাসমূহ=55|বছর=1991|আইএসবিএন=978-0-520-07665-5}}</ref> এছাড়াও এক ইউনিট পদ্ধতি বাতিল করা হয়। পূর্বে এক ইউনিটের আওতায় পশ্চিম পাকিস্তানের চারটি প্রদেশকে একত্রে একটি প্রদেশ গণ্য করা হত।<ref name="B"/><ref name="A"/>
 
==ফলাফল==