"নটর ডেম কলেজ, ঢাকা" পাতাটির দুইটি সংশোধিত সংস্করণের মধ্যে পার্থক্য

বিষয়বস্তু যোগ
(রচনাশৈলী)
(বিষয়বস্তু যোগ)
ট্যাগ: মোবাইল সম্পাদনা মোবাইল ওয়েব সম্পাদনা দৃশ্যমান সম্পাদনা
'''নটর ডেম কলেজ''' (সংক্ষেপে ''এনডিসি'') [[বাংলাদেশ|বাংলাদেশের]] রাজধানী [[ঢাকা]]য় অবস্থিত [[পবিত্র ক্রুশ সন্ন্যাস সংঘ|পবিত্র ক্রুশ সন্ন্যাস সংঘের]] ধর্মযাজকদের দ্বারা প্রতিষ্ঠিত ও পরিচালিত একটি [[উচ্চ মাধ্যমিক স্কুল সার্টিফিকেট|উচ্চ মাধ্যমিক]] ও [[স্নাতক উপাধি|স্নাতক]] শিক্ষা প্রতিষ্ঠান।<ref>{{সংবাদ উদ্ধৃতি|ইউআরএল=http://m.dailyinqilab.com/article/205470/%E0%A6%B6%E0%A7%80%E0%A6%B0%E0%A7%8D%E0%A6%B7-%E0%A6%95%E0%A6%B2%E0%A7%87%E0%A6%9C%E0%A7%87-%E0%A6%86%E0%A6%B8%E0%A6%A8-%E0%A6%AA%E0%A6%BE%E0%A6%93%E0%A7%9F%E0%A6%BE%E0%A7%9F-%E0%A6%9A%E0%A7%8D%E0%A6%AF%E0%A6%BE%E0%A6%B2%E0%A7%87%E0%A6%9E%E0%A7%8D%E0%A6%9C|শিরোনাম=শীর্ষ কলেজে আসন পাওয়ায় চ্যালেঞ্জ|তারিখ=১১ মে ২০১৯|কর্ম=[[দৈনিক ইনকিলাব]]|সংগ্রহের-তারিখ=|ইউআরএল-অবস্থা=কার্যকর}}</ref> [[ভারত বিভাজন|ভারত বিভাগের]] পর কলেজ প্রতিষ্ঠার জন্য [[পূর্ব পাকিস্তান|পূর্ব পাকিস্তানে]] সরকারের আমন্ত্রণ পেয়ে তৎকালীন [[আর্চবিশপ]] লরেন্স গ্রেনারের তৎপরতায় ও পবিত্র ক্রুশ সন্ন্যাস সংঘের সিদ্ধান্ত অনুসারে [[রোমান ক্যাথলিক]] পাদ্রি সম্প্রদায় কর্তৃক ১৯৪৯ খ্রিষ্টাব্দের ৩ নভেম্বর ঢাকার [[লক্ষ্মীবাজার, ঢাকা|লক্ষ্মীবাজারে]] [[সেন্ট গ্রেগরিজ উচ্চ বিদ্যালয়|সেন্ট গ্রেগরিজ উচ্চ বিদ্যালয়ের]] পরিবর্ধিত রূপ হিসাবে ''সেন্ট গ্রেগরিজ কলেজ'' প্রতিষ্ঠিত হয়। ১৯৫৪ খ্রিষ্টাব্দে কলেজটিকে [[কমলাপুর রেলস্টেশন|কমলাপুর রেলস্টেশনের]] নিকটবর্তী [[মতিঝিল থানা]]র অন্তর্গত [[আরামবাগ, মতিঝিল, ঢাকা|আরামবাগে]] স্থানান্তরিত করা হয় এবং [[মেরি, যিশুর মাতা|যিশু খ্রিষ্টের মাতা মেরির]] নামে কলেজটি উৎসর্গ করে ''নটর ডেম কলেজ'' নাম রাখা হয়। [[ফরাসি ভাষা|ফরাসি শব্দগুচ্ছ]] “নোত্‌র দাম”-এর অর্থ ''আমাদের মহীয়সী নারী'' হলেও নটর ডেম কলেজ প্রতিষ্ঠালগ্ন থেকে পূর্ণাঙ্গরূপে বালকদের শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান।
 
১৯৫০ খ্রিষ্টাব্দে নটর ডেম কলেজ, [[ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়|ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের]] অধিভুক্ত হয়ে ১৯৫৯ খ্রিষ্টাব্দে তৎকালীন [[পূর্ব পাকিস্তান|পূর্ব পাকিস্তানের]] সেরা শিক্ষা প্রতিষ্ঠান হিসেবে স্বীকৃতি পায়। প্রতিষ্ঠাকালে শুধু [[মানবিক শাখা|কলামানবিক]] ও [[ব্যবসায় শিক্ষা|বাণিজ্য বিভাগ]] থাকলেও ১৯৫৫ খ্রিষ্টাব্দে ''বি.এ'' এবং ১৯৬০ খ্রিষ্টাব্দে ''বি.এস.সি'' চালু করা হয়। তবে ১৯৭২-৭৩ শিক্ষাবর্ষ থেকে ''বি.এস.সি'' কোর্স বন্ধ ঘোষণা করা হয়। বর্তমানে কলেজটিতে ইংরেজি ও বাংলা মাধ্যমে [[উচ্চ মাধ্যমিক স্কুল সার্টিফিকেট|উচ্চ মাধ্যমিক]] ও ''বি.এ'' কোর্স চালু আছে। ১৯৯২ সালে কলেজটি [[জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়|জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের]] অন্তর্ভুক্ত হয়। জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃক কলেজটি চারবার (১৯৫৯, ১৯৮৮, ১৯৯২, ১৯৯৭ খ্রিষ্টাব্দে) জাতীয় পর্যায়ে শ্রেষ্ঠ শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান হিসাবে স্বীকৃতি পেয়েছে।<ref name="বাংলাপিডিয়া" /> [[খ্রিষ্টধর্ম প্রচার অভিযান|খ্রিষ্টান মিশনারি]] কর্তৃক পরিচালিত এই শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানটি মূলত খ্রিষ্টান সম্প্রদায়, আদিবাসী, সংখ্যালঘু ও হতদরিদ্র জনগোষ্ঠীর কাছে শিক্ষা পৌঁছে দেয়ার জন্য পরিচালিত হলেও<ref name="হলিক্রস"/><ref name="কালের কণ্ঠ"/> এটি সকল ধর্ম ও সম্প্রদায়ের শিক্ষার্থীদের অধ্যয়নের জন্য উন্মুক্ত এবং প্রতিষ্ঠালগ্ন থেকেই অধিকাংশ শিক্ষার্থী [[বাঙালি মুসলমান|বাঙালি মুসলিম]]। ২০১৯ সালের পরিসংখ্যান অনুযায়ী প্রতিষ্ঠানটির ৮৫ শতাংশ শিক্ষার্থী মুসলিম।<ref name="হলিক্রস">{{সংবাদ উদ্ধৃতি|ইউআরএল=https://holycrosscongregation.org/news/notre-dame-college-in-dhaka-celebrates-its-70th-anniversary/|শিরোনাম=Notre Dame College in Dhaka Celebrates its 70th Anniversary|ভাষা=ইংরেজি|অনূদিত-শিরোনাম=ঢাকার নটর ডেম কলেজের ৭০ বছর পূর্তি উদযাপন|শেষাংশ=প্রশাসন|প্রথমাংশ=সাধারণ|তারিখ=২০ ফেব্রুয়ারি ২০১৯|কর্ম=[[পবিত্র ক্রুশ সন্ন্যাস সংঘ]]|সংগ্রহের-তারিখ=১২ জুলাই ২০২০|উক্তি=Eighty five percent of the student body is Muslim, yet the College as part of its mission has always made special provisions for the education of Christians and other minorities.}}</ref> নটর ডেম কলেজের শিক্ষার্থীরা “নটর ডেমিয়ান” নামে পরিচিত।
 
২০১২ খ্রিষ্টাব্দে [[বাংলাদেশ সুপ্রীম কোর্ট|বাংলাদেশ সুপ্রীম কোর্টের]] রায়ের ভিত্তিতে নিজস্ব ভর্তি পরীক্ষার মাধ্যমে শিক্ষার্থী নেওয়ার সুযোগ পাওয়া চারটি প্রতিষ্ঠানের মধ্যে নটর ডেম কলেজ একটি। পাঁচ [[একর|একরের]] উপর স্থাপিত কলেজটিতে বর্তমানে তিনটি ছয়তলাবিশিষ্ট ও একটি তিনতলাবিশিষ্ট শিক্ষাভবন, চারতলাবিশিষ্ট একটি আবাসিক ছাত্রাবাস ও ধর্মযাজকদের জন্য একটি [[যাজকাবাস]] রয়েছে। সহশিক্ষা কার্যক্রম হিসেবে প্রতিষ্ঠান কর্তৃপক্ষ ২৪টি [[#সহশিক্ষা সংগঠন|ক্লাব]] পরিচালনা করে।
৩৬টি

সম্পাদনা