"রামরাম বসু" পাতাটির দুইটি সংশোধিত সংস্করণের মধ্যে পার্থক্য

ট্যাগ: মোবাইল সম্পাদনা মোবাইল ওয়েব সম্পাদনা
ট্যাগ: মোবাইল সম্পাদনা মোবাইল ওয়েব সম্পাদনা
==কর্মজীবন==
 
১৭৯৩ সালে [[উইলিয়াম কেরি]] কলকাতায় এলে রামরাম বসু কেরির মুনশি নিযুক্ত হন। ১৭৯৫ সালের জুন মাসের ১৫ তারিখে কেরি মালদহ মদনবাটি নীলকুঠির তত্ত্বাবধায়ক নিযুক্ত হলে তিনিও সঙ্গে যান। ১৮০০ সালে শ্রীরামপুরে ব্যাপটিস্ট মিশন মুদ্রাযন্ত্র ও বাংলা বিদ্যালয় স্থাপন হলে তিনি এই বছরের জুন মাসে নিযুক্ত হন।<ref name = "সংসদ"> সুবোধচন্দ্র সেনগুপ্ত ও অঞ্জলি বসু সম্পাদিত, ''সংসদ বাঙালি চরিতাভিধান'', প্রথম খণ্ড, সাহিত্য সংসদ, কলকাতা, আগস্ট ২০১৬ পৃষ্ঠা ৬৬৭, {{আইএসবিএন|978-81-7955-135-6}}</ref> ১৮০১ সালের ৪ মে রামরাম বসু ফোর্ট উইলিয়াম কলেজের বাংলা বিভাগে দ্বিতীয় পণ্ডিতের পদে মাসিক ৪০ টাকা বেতনে নিযুক্ত হন। তিনিশিক্ষকতার "লিপিমালা"পাশাপাশি নামেরামরাম একটিবসু গ্রন্থঅনুবাদ ও সাহিত্য রচনা করেছিলেনকরেছেন। যা'গসপেল ১৮০২মেসেঞ্জার'গ্রন্থটি সনে'হরকরা' শ্রীরামপুরনামে থেকেকবিতায় প্রকাশিতঅনুবাদ করেন। পরে এটি ওড়িয়া ও হিন্দিতেও অনূদিত হয়। এরপর ১৮০০ সালে 'জ্ঞানোদয়' ও 'খৃষ্টবিবরণামৃতং' নামে কবিতায় খ্রিষ্টচরিত রচনা করেন। তবে তাঁর প্রধান কীর্তি ১৮০১ সালে প্রথম বাংলা গদ্যে রচিত ষোড়শ শতাব্দীর বাঙালি জমিদার প্রতাপাদিত্যের জীবনী - 'রাজা প্রতাপাদিত্য চরিত্র'। প্রতাপাদিত্যের বংশধর হওয়ার কারণে এই গ্রন্থে ঐতিহাসিক ও লোকশ্রুতির সমাহার লিপিবদ্ধ করতে পেরেছেন। <ref name="সাহিত্যসঙ্গী">[[ধনঞ্জয়শিশিরকুমার রায়]];দাশ দিনাজপুর-মালদহেরসংকলিত মিশনারী যুগ;সম্পাদিত, বরেন্দ্র''সংসদ সাহিত্যবাংলা পরিষদসাহিত্যসঙ্গী'', মালদহ;সাহিত্য ফেব্রুয়ারিসংসদ, ১৯৯৪;কলকাতা, আগস্ট ২০১৯, পৃষ্ঠা ১৯০,১৯৫ {{আইএসবিএন|978-১৮81-২০।7955-007-9}}</ref> এরপর'লিপিমালা' নামে আর একটি গ্রন্থ। এটিও বাংলা গদ্যে
১৮০২ সালে শ্রীরামপুর থেকে প্রকাশিত হয়।<ref>[[ধনঞ্জয় রায়]]; দিনাজপুর-মালদহের মিশনারী যুগ; বরেন্দ্র সাহিত্য পরিষদ, মালদহ; ফেব্রুয়ারি, ১৯৯৪; পৃষ্ঠা-১৮-২০।</ref> রামরাম বসু উইলিয়াম কেরির বাংলা শিক্ষক ছিলেন। কেরির বাংলা বাইবেলের পরিমার্জনা করেছিলেন তিনি।
 
== তথ্যসূত্র ==