"সুরেন্দ্রনাথ বন্দ্যোপাধ্যায়" পাতাটির দুইটি সংশোধিত সংস্করণের মধ্যে পার্থক্য

ট্যাগ: মোবাইল সম্পাদনা মোবাইল ওয়েব সম্পাদনা
ট্যাগ: মোবাইল সম্পাদনা মোবাইল ওয়েব সম্পাদনা
এছাড়াও, সুরেন্দ্রনাথ বন্দ্যোপাধ্যায় ভারতীয় [[বিধানসভা|বিধানসভার]] অন্যতম সদস্য ছিলেন। ১৮৭৬-১৮৯৯ সাল পর্যন্ত একাধারে তিনি কলকাতা কর্পোরেশনেরও সদস্য হিসেবে ছিলেন।
 
তার সুদক্ষ ও সুচারু নেতৃত্বের ফলে ভারতীয়ভারত সংঘসভা অল্প সময়েই পরিস্ফুটিত হয়। ১৮৮৩ সাল থেকে ভারতের সকল এলাকা থেকে আগত প্রতিনিধিদের নিয়ে নিয়মিতভাবে বার্ষিক সভা পরিচালনা করতেন তিনি। ১৮৮৫ সালে [[ভারতীয় জাতীয় কংগ্রেস|কংগ্রেস]] প্রতিষ্ঠা পায় এবং এর লক্ষ্য, উদ্দেশ্যও ভারতীয় সংঘের সাথে মিল থাকায় ১৮৮৬ সালে [[কলকাতা|কলকাতায়]] অনুষ্ঠিত কংগ্রেসের ২য় অধিবেশনে সুরেন্দ্রনাথ বন্দ্যোপাধ্যায় সিদ্ধান্ত নিলেন ভারতীয় সংঘকে কংগ্রেসের সাথে একীভূত করেন। তিনি নতুন প্রতিষ্ঠিত কংগ্রেসকে আরো শক্তিশালী ও গতিশীল করার লক্ষ্যে দুইবার - ১৮৯৫ এবং ১৯০৭ সালে এর সভাপতিত্ব করেন।
১৮৮৫ সালে [[ভারতীয় জাতীয় কংগ্রেস|কংগ্রেস]] প্রতিষ্ঠা পায় এবং এর লক্ষ্য, উদ্দেশ্যও ভারত সভার সাথে মিল থাকায় ১৮৮৬ সালে [[কলকাতা|কলকাতায়]] অনুষ্ঠিত কংগ্রেসের ২য় অধিবেশনে সুরেন্দ্রনাথ বন্দ্যোপাধ্যায় সিদ্ধান্ত নিলেন ভারত সভাকে কংগ্রেসের সাথে একীভূত করা প্রয়োজন।
তিনি নতুন প্রতিষ্ঠিত কংগ্রেসকে আরো শক্তিশালী ও গতিশীল করার লক্ষ্যে দুইবার - ১৮৯৫ এবং ১৯০৭ সালে এর সভাপতিত্ব করেন।
 
১৯০৫ সালে সুরেন্দ্রনাথ [[বঙ্গভঙ্গ|বঙ্গভঙ্গের]] বিরুদ্ধে কঠোর অবস্থান নেন এবং [[স্বদেশী আন্দোলন|স্বদেশী আন্দোলনে]] নেতৃত্ব দেন। এর ফলে হিন্দু-মুসলমানের মধ্যে [[সাম্প্রদায়িকতা]] মাথাচাড়া দিয়ে উঠেওঠে এবং [[জাতীয়তাবাদ|জাতীয়তাবাদের]] উত্থান ঘটে। পরবর্তীতে তিনি মতানৈক্যজনিত কারণে ১৯১৮ সালে কংগ্রেস থেকে নিজেকে প্রত্যাহার করে নেন। এরপর তিনিএবং [[মধ্যপন্থী]] হিসেবে হিন্দু-মুসলিম উভয় পক্ষকে একীকরণের জন্য উদ্যোগী হন। ১৯২১ সালে তিনি [[নাইট]] উপাধি লাভ করেন এবং বাংলায় তৎকালীন সরকারের মন্ত্রী হিসেবে ১৯২১ থেকে ১৯২৪ সাল পর্যন্ত দেশের সেবায় মনোনিবেশ ঘটান।
তিনি উদ্যোগী হন।
১৯২১ সালে তিনি [[নাইট]] উপাধি লাভ করেন এবং বাংলায় তৎকালীন সরকারের মন্ত্রী হিসেবে ১৯২১ থেকে ১৯২৪ সাল পর্যন্ত দেশের সেবায় মনোনিবেশ ঘটান।
 
== সমাজ সংস্কারে ==
বেনামী ব্যবহারকারী