"রাজস্ব নীতি" পাতাটির দুইটি সংশোধিত সংস্করণের মধ্যে পার্থক্য

বট নিবন্ধ পরিষ্কার করেছে। কোন সমস্যায় এর পরিচালককে জানান।
(১টি উৎস উদ্ধার করা হল ও ০টি অকার্যকর হিসেবে চিহ্নিত করা হল।) #IABot (v2.0)
(বট নিবন্ধ পরিষ্কার করেছে। কোন সমস্যায় এর পরিচালককে জানান।)
 
== রাজস্ব নীতির ধরণ ==
রাজস্ব নীতি কেমন হবে সেটি নির্ভর করে দেশের সামগ্রিক অর্থনৈতিক অবস্থার উপর। পরিস্থিতি বিবেচনায় সরকার রাজস্ব নীতি নির্ধারণ করে থাকে অর্থাৎ রাষ্ট্রীয় ব্যয় ও রাজস্ব নির্ধারণ করে থাকে।রাজস্ব নীতি সাধারণত নিন্মক্ত ধরণেরধরনের হয়ে থাকে-<ref>{{বই উদ্ধৃতি|ইউআরএল=https://books.google.com.bd/books?id=vPxAHAAACAAJ&dq=isbn:0130630853&hl=en&sa=X&ved=0ahUKEwjXwbWl4ejoAhUScCsKHT00At4Q6AEIJjAA|শিরোনাম=Economics: Principles in Action|শেষাংশ=O'Sullivan|প্রথমাংশ=Arthur|শেষাংশ২=Sheffrin|প্রথমাংশ২=Steven M.|তারিখ=2003|প্রকাশক=Prentice Hall|ভাষা=en|আইএসবিএন=978-0-13-063085-8}}</ref><ref>{{সংবাদ উদ্ধৃতি|ইউআরএল=https://economictimes.indiatimes.com/budget-faqs/what-are-the-three-types-of-government-budgets/articleshow/67466774.cms?from=mdr|শিরোনাম=What are the three types of government budgets?|তারিখ=2020-01-10|কর্ম=The Economic Times|সংগ্রহের-তারিখ=2020-04-14}}</ref>
 
* '''নিরপেক্ষ রাজস্ব নীতি-''' সাধারণত অর্থনৈতিক অবস্থা যখন স্থিতিশীল থাকে তখন নিরপেক্ষ রাজস্ব নীতি অবলম্বন করা হয় অর্থাৎ যখন অর্থনৈতিক প্রসার বা অর্থনৈতিক মন্দা কোনটাই ঘটে না। এক্ষেত্রে সরকারের রাজস্ব এবং ব্যয় প্রায় সমান থাকে এবং অর্থনৈতিক কার্যকলাপের উপর রাজস্ব নীতির আলাদা কোন প্রভাব থাকে না বরং নিরপেক্ষ থাকে।
* '''সম্প্রসারণমূলক রাজস্ব নীতি-''' সাধারণত অর্থনৈতিক মন্দা চলাকালীন সময়ে সরকার [[অর্থনৈতিক চক্র]] সংকোচন মোকাবেলায় এই নীতি অনুসরণ করে থাকে। এক্ষেত্রে সরকার রাজস্ব আয়ের থেকে ব্যয় বেশি করে। বিশেষ করে জনসাধারণের সুবিধায় ব্যবহার্য অবকাঠামো নির্মাণ ও উন্নয়ন এবং ক্ষেত্রবিশেষ প্রণোদনা দিয়ে থাকে। সেই সাথে কর হার কমিয়ে দেয় যাতে জনসাধারণের ক্রয়ক্ষমতা বৃদ্ধি পায়। রাজস্ব নীতির জাতীয় বাজেটভিত্তিক প্রয়োগ বিবেচনায় এক্ষেত্রে ঘাটতি বাজেট প্রণয়ন করা হয়।
* '''সংকোচনমূলক রাজস্ব নীতি-''' এই ধরণেরধরনের রাজস্ব নীতি সরকার সাধারণত মুদ্রাস্ফীতির চাপ সামাল দিতে গ্রহণ করে থাকে। এক্ষেত্রে সরকার হয় কর হার বাড়িয়ে দেয় অথবা সামগ্রিক সরকারী ব্যয় কমাতে চায় অথবা উভয় ব্যবস্থা গ্রহণ করে। কর হার বৃদ্ধি পেলে জনসাধারণের তথা ব্যবসায়ীদের খরচযোগ্য আয় কমে যায়। অন্যদিকে সরকারের ব্যয় কমে গেলে সেটা মোট দেশজ উৎপাদনে সরাসরি প্রভাব ফেলে অর্থাৎ মোট দেশজ উৎপাদনে কমে যায়। এতে মুদ্রাস্ফীতির উপর চাপ কমে কিন্তু সেই সাথে বেকারত্ব বেড়ে যায়।
 
== রাজস্ব নীতির হাতিয়ারসমূহ ==
 
=== সরকারি রাজস্ব ===
বাজেটের অর্থায়নের মূল উৎস হচ্ছে সরকারের বিভিন্ন রাজস্ব বা আয়। সরকারি রাজস্বকে সাধারণত দুই ভাগে ভাগ করা যায়। যথাঃ
 
* '''কর রাজস্ব-''' কর রাজস্বের মধ্যে আছে [[আয়কর|আয়কর]], [[মূল্য সংযোজন কর]], বাণিজ্য শুল্ক, [[আবগারী শুল্ক]], সম্পূরক শুল্ক, ভুমি রাজস্ব, নন-জুডিশিয়াল স্ট্যাম্প এবং অন্যান্য করসমুহ। কর রাজস্বই সরকারের আয়ের অন্যতম উৎস। সরকারি আয়ের সিংহভাগই আসে বিভিন্ন রকমের প্রত্যক্ষ এবং পরোক্ষ কর থেকে।
* '''কর বহির্ভূত রাজস্ব-''' কর বহির্ভূত রাজস্বের মধ্যে আছে সরকারি প্রতিষ্ঠান হতে লভ্যাংশ ও মুনাফা, সরকার প্রদত্ত ঋণের থেকে প্রাপ্ত সুদ, সরকারি সেবা খাত থেকে প্রাপ্ত আয় এবং বিভিন্ন দণ্ড ও জরিমান থেকে প্রাপ্ত অর্থ। এছাড়াও আরও কিছু ক্ষেত্র থেকে সরকার রাজস্ব আদায় করে থাকে।
 
=== ঋণগ্রহণ ===
সরকার ঘাটতি বাজেট অর্থায়নের জন্য দেশ অথবা বিদেশ থেকে ঋণ গ্রহনগ্রহণ করে থাকে। দেশীয় উৎস থেকে সাধারণত ট্রেজারি বিল, সরকারি বিভিন্ন মেয়াদী সিকিউরিটিজ এবং বন্ডসমূহ বিক্রি করে ঋণ নেয় হয়। অন্যদিকে, বিদেশি ঋণ সাধারণত বিভিন্ন দাতাসংস্থা যেমন- [[বিশ্ব ব্যাংক]] ও [[ইন্টারন্যাশনাল ফাইন্যান্স কর্পোরেশন]] অথবা বিদেশি সরকারের কাছ থেকে গ্রহনগ্রহণ করা হয়। দেশি-বিদেশি উভয়ক্ষেত্রেই সরকারকে উক্ত ঋণের বিপরীতে নির্দিষ্ট পরিমান সুদ দিতে হয়।
 
=== অনুদান ===
ক্ষেত্রবিশেষ সরকার ঘাটতি বাজেট অর্থায়নের জন্য বিদেশি অনুদান গ্রহনগ্রহণ করে থাকে। সাধারণত [[উন্নত দেশ|উন্নত দেশসমুহ]] অনুন্নত ও [[উন্নয়নশীল দেশ|উন্নয়নশীল দেশসমূহকে]] অনুদান দিয়ে থাকে। তবে, এই অনুদান শুধুমাত্র নগদ অর্থের মাধ্যমেই হয় না বরং অন্য অনেক উপায়ে হতে পারে।
 
=== পূর্ববর্তী উদ্বৃত্ত বাজেট থেকে অর্থায়ন ===
সরকার পূর্ববর্তী উদ্বৃত্ত বাজেটের অর্থ থেকে পরবর্তী বছরের বাজেট অর্থায়ন করতে পারে।অর্থাৎ পূর্ববর্তী কোন অর্থবছরের বাজেটের যে অর্থ উদ্বৃত্ত হিসেবে ছিল সেই অর্থ ঘাটতি বাজেটে ব্যবহার করে থাকে। যদিও এই ধরণেরধরনের অর্থায়ন সাধারণত দেখা যায় না।<ref>{{ওয়েব উদ্ধৃতি|ইউআরএল=https://www.economicshelp.org/blog/glossary/budget-surplus/|শিরোনাম=Budget Surplus|শেষাংশ=Pettinger|প্রথমাংশ=Tejvan|ওয়েবসাইট=Economics Help|ভাষা=en-GB|সংগ্রহের-তারিখ=2020-04-15}}</ref> কারণ সব দেশের সরকারই বাজেটের একটা ধারা অব্যহত রাখতে চেষ্টা করে। যেমন কোন কোন দেশের সরকার ঘাটতি বাজেট দেয় বিদেশি অনুদানের ও অন্যান্য সুবিধা পাবার আশায় এবং এই ধারা অনেক বছর অব্যহত রাখে। আবার খুব কম দেশই উদ্বৃত্ত বাজেট নীতি অনুসরণ করে। যেহেতু সরকার কোন লাভজনক সংস্থা নয় তাই তার ব্যয় থেকে আয় বেশি হবার প্রয়োজন পরে না বরং প্রয়োজনে ভারসাম্যপূর্ণ বাজেট করে থাকে।
 
=== স্থায়ী সম্পদের বিক্রয় ===
বিশেষ ক্ষেত্রে সরকার ঘাটতি বাজেট অর্থায়নের জন্য সরকারি স্থায়ী সম্পদ বিক্রয় করতে পারে। যদিও এ ধরণেরধরনের অর্থায়ন খুব একটা দেখা যায় না।
 
== রাজস্ব নীতির অর্থনৈতিক প্রভাব ==
দেশের সামগ্রিক অর্থনৈতিক কার্যকলাপের উপর প্রভাব বিস্তারের জন্য সরকার রাজস্ব নীতির ব্যবহার করে থাকে। ফলে অর্থনীতিতে রাজস্ব নীতির গুরুত্বপূর্ণ প্রভাব রয়েছে। সরকার বিশেষ করে সামগ্রিক চাহিদাকে প্রভাবিত করে নির্দিষ্ট কিছু অর্থনৈতিক লক্ষ্য অর্জন করতে চায়। এসব লক্ষ্যের মধ্যে অন্যতম হচ্ছে-<ref>{{ওয়েব উদ্ধৃতি|ইউআরএল=https://www.epi.org/publication/econ_stmt_2003/|শিরোনাম=Economists&#8217; statement opposing the Bush tax cuts (2003)|ওয়েবসাইট=Economic Policy Institute|ভাষা=en-US|সংগ্রহের-তারিখ=2020-04-14}}</ref><ref>{{বই উদ্ধৃতি|ইউআরএল=http://archive.org/details/economists0000unse|শিরোনাম=The economists|শেষাংশ=Silk|প্রথমাংশ=Leonard Solomon|তারিখ=1974|প্রকাশক=New York, Basic Books|অন্যান্য=Internet Archive}}</ref>
 
*'''মূল্য স্থিতিশীলতা-''' একটি দেশের সামগ্রিক অর্থনীতিতে মূল্য স্থিতিশীলতা খুবই তাৎপর্যপূর্ণ নিয়ামক। দ্রব্যমূল্য বৃদ্ধি পেলে দেশের জনগনের বিশেষ করে মধ্যবিত্ত ও নিন্ম আয়ের মানুষের জীবনযাত্রায় খরচ বেড়ে যায়। কিন্তু এই সময়ে তাদের আয়ের পরিবর্তন হয় না অর্থাৎ মানুষের হাতে খরচযোগ্য আয় একই থাকে। তখন হয় তাকে ভোগ কমাতে হবে না হয় তুলনামূলক কম মানের পণ্য ব্যবহার করতে হবে। এতে তার জীবনযাত্রায় মান কমে যাবে। এজন্য সব দেশের সরকারই চায় মূল্যস্তর স্থিতিশীলতা রাখতে। এই লক্ষ্য অর্জনের জন্য সরকার সাধারণত সংকোচনমূলক রাজস্ব নীতি গ্রহনগ্রহণ করে থাকে যাতে মুদ্রাস্ফীতির অতিমাত্রায় বেড়ে না যায় এবং মূল্যস্তরও স্থিতিশীল থাকে।<ref>{{ওয়েব উদ্ধৃতি|ইউআরএল=http://www.prothom-alo.com/detail/date/2011-09-15/news/185721|শিরোনাম=মুদ্রাস্ফীতি বনাম মূল্যস্ফীতি|ওয়েবসাইট=www.prothom-alo.com|সংগ্রহের-তারিখ=2020-04-15|আর্কাইভের-ইউআরএল=https://web.archive.org/web/20120206105923/http://www.prothom-alo.com/detail/date/2011-09-15/news/185721|আর্কাইভের-তারিখ=২০১২-০২-০৬|অকার্যকর-ইউআরএল=হ্যাঁ}}</ref>
*'''সম্পূর্ণ কর্মসংস্থান-''' সরকার চায় তার দেশের সকল নাগরিকদের কর্মসংস্থানের ব্যবস্থা করতে যেটাকে অর্থনীতির ভাষায় সম্পূর্ণ বা পূর্ণ কর্মসংস্থান বলে। যদিও বাস্তবে সম্পূর্ণ কর্মসংস্থান বা ১০০ শতাংশ কর্মসংস্থান সম্ভব হয় না। তবুও প্রতিটা সরকার চায় সর্বোচ্চ সংখ্যক কর্মসংস্থানের সুযোগ সৃষ্টি করেতে এবং সে অনুযায়ী রাজস্ব নীতি গ্রহনগ্রহণ করে থাকে।
*'''অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধি-''' অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধি ধারা বৃদ্ধি এবং অব্যাহত রাখাই সরকারের গৃহীত সকল অর্থনৈতিক নীতির মুখ্য উদ্দেশ্য। অর্থাৎ দেশের অর্থনীতিতে পণ্য ও সেবার উৎপাদন বৃদ্ধি করা।
 
সর্বোপরি, সরকার কেন্দ্রীয় ব্যাংক প্রণীত মুদ্রানীতির সাথে সমন্বয় করে রাজস্ব নীতি গ্রহনগ্রহণ করে যাতে সামষ্টিক অর্থনৈতিক উদ্দেশ্যগুলি অর্জন বিশেষকরে মোট দেশজ উৎপাদন বৃদ্ধির পাশাপাশি মুদ্রানীতির উদ্দেশ্য যেমন মুদ্রাস্ফীতি ও সুদের হার নিয়ন্ত্রণে রেখে দেশের সামগ্রিক উন্নয়ন সাধিত হয়।<ref>{{ওয়েব উদ্ধৃতি|ইউআরএল=https://www.ecb.europa.eu/press/key/date/2010/html/sp100226.en.html|শিরোনাম=Monetary and fiscal policy interactions during the financial crisis|শেষাংশ=Bank|প্রথমাংশ=European Central|ওয়েবসাইট=European Central Bank|ভাষা=en|সংগ্রহের-তারিখ=2020-04-15}}</ref>
 
== তথ্যসূত্র ==
১,৮১,০৪১টি

সম্পাদনা