সত্যবতী: সংশোধিত সংস্করণের মধ্যে পার্থক্য

১,৭৫২ বাইট বাতিল হয়েছে ,  ১ বছর পূর্বে
সম্পাদনা সারাংশ নেই
ট্যাগ: মোবাইল সম্পাদনা মোবাইল ওয়েব সম্পাদনা
সম্পাদনা সারাংশ নেই
ট্যাগ: মোবাইল সম্পাদনা মোবাইল ওয়েব সম্পাদনা
'''সত্যবতী''' ([[দেবনাগরী]]: सत्यवती ) হলেন মহাভারতে বর্ণিত [[হস্তিনাপুর|হস্তিনাপুরের]] কুরুরাজ [[শান্তনু|শান্তনুর]] মহিষী। তিনি [[কৌরব]] ও [[পাণ্ডব|পাণ্ডবদের]] প্রপিতামহী এবং তিনি বেদব্যাসের জননী । তার উপাখ্যান [[মহাভারত]], [[হরিবংশ]] ও [[দেবীভাগবত পুরাণ|দেবীভাগবদ্পুরাণে]] বর্ণিত হয়েছে।
 
সত্যবতী চেদীরাজ [[উপরিচর বসু]] এবং শাপগ্রস্তা মৎস্যরূপিণী অপ্সরা [[অদ্রিকা|অদ্রিকার]] কন্যা। ধীবরদের রাজা দাশ তাকে তার যমজ ভাইয়ের সাথে অদ্রিকার উদরে পান। রাজা বসু পুত্র সন্তানটিকে নিজের কাছে রেখে সত্যবতীকে দাশের কাছে পরিপালন করতে দেন। তার ভাই মৎস্যরাজ নামে এক ধার্মিক রাজা হন। তার গায়ে তীব্র মাছের গন্ধ থাকায় তার আরেক নাম 'মৎস্যগন্ধা'। এজন্য কেউ তার কাছে আসতে চাইত না। তাই পালকপিতার নির্দেশে তিনি যমুনার বুকে নৌকা চালানো আর জেলেনীরজেলেনী হিসেবে কাজ করতেকরতেন। পরবর্তীতে রাজা শান্তনু তার সৌন্দর্য ও গায়ের সৌরভে মুগ্ধ হয়ে তার প্রেমে পড়েন এবং [[দাশরাজ|দাশরাজের]] কাছে বিবাহের প্রস্তাব করলে দাশ বলেন যদি তার কন্যার সন্তানেরা রাজা হন তবেই তিনি কন্যাদান করবেন। এজন্য শান্তনুর জ্যেষ্ঠপুত্র ভীষ্ম রাজা হননি। সত্যবতী শান্তনুর মাধ্যমে [[চিত্রাঙ্গদ]] ও [[বিচিত্রবীর্য|বিচিত্রবীর্যের]] জন্ম দেন। কিন্তু তার দুই পুত্রই কোন উত্তরাধিকারী না-রেখেই মারা যান। এজন্য তিনি তার পুত্র ব্যাসকে ভ্রাতৃবধূদের গর্ভে সন্তান জন্মানোর জন্য নির্দেশ দেন। যার ফলে [[ধৃতরাষ্ট্র]] ও [[পাণ্ডু|পাণ্ডুর]] জন্ম হয়, যারা কৌরব ও পাণ্ডবদের পিতা। তিনি পাণ্ডুর মৃত্যুর পর তার পুত্র ব্যাসের আশ্রমে তপস্যারত অবস্থায় মারা থাকেন।যান।
 
একদা ঋষি [[পরাশর]] তার নৌকায় উঠে তার সৌন্দর্যে মুগ্ধ হন। তিনি তার সাথে মিলন প্রার্থনা করেন। লজ্জিতা সত্যবতী বলেন যে তিনি কুমারী। তার কৌমার্য নষ্ট হলে সমাজ তাকে ত্যাগ করবে। তখন পরাশর তাকে বলেন তার পুত্রলাভ হলেই তিনি আবার কুমারী হয়ে যাবেন। প্রত্যাখ্যান অপারগ সত্যবতী আবার বলেন, নদীবক্ষে প্রকাশ্য দিবালোকে তাদের মিলিত হলে সবাই দেখে ফেলবে। তাছাড়া তিনি জেলেনি বলে তার দেহে মৎস্যের দুর্গন্ধ। কামার্ত পরাশর তখন নিজেদের চারদিকে কুয়াশার আবরণ সৃষ্টি করেন ও তার শরীরের দুর্গন্ধকে মৃগনাভির সৌরভে রূপান্তরিত করেন; যেজন্য তিনি 'যোজনগন্ধা' ও 'গন্ধবতী' নামেও পরিচিত। এইবার সত্যবতী বাধ্য হন আত্মসমর্পণ করতে। নদী বক্ষে তারা মিলিত হলে সত্যবতী গর্ভিনী হন ও ব্যাসদেবের জন্ম দেন। পরবর্তীতে রাজা শান্তনু তার সৌন্দর্য ও গায়ের সৌরভে মুগ্ধ হয়ে তার প্রেমে পড়েন এবং [[দাশরাজ|দাশরাজের]] কাছে বিবাহের প্রস্তাব করলে দাশ বলেন যদি তার কন্যার সন্তানেরা রাজা হন তবেই তিনি কন্যাদান করবেন। এজন্য শান্তনুর জ্যেষ্ঠপুত্র ভীষ্ম রাজা হননি। সত্যবতী শান্তনুর মাধ্যমে [[চিত্রাঙ্গদ]] ও [[বিচিত্রবীর্য|বিচিত্রবীর্যের]] জন্ম দেন। কিন্তু তার দুই পুত্রই কোন উত্তরাধিকারী না-রেখেই মারা যান। এজন্য তিনি তার পুত্র ব্যাসকে ভ্রাতৃবধূদের গর্ভে সন্তান জন্মানোর জন্য নির্দেশ দেন। যার ফলে [[ধৃতরাষ্ট্র]] ও [[পাণ্ডু|পাণ্ডুর]] জন্ম হয়, যারা কৌরব ও পাণ্ডবদের পিতা। তিনি পাণ্ডুর মৃত্যুর পর তার পুত্র ব্যাসের আশ্রমে তপস্যারত অবস্থায় মারা যান।
 
== সাহিত্যিক উৎস ও নামসমূহ ==
৬২টি

সম্পাদনা