"সঞ্জীবা রানাতুঙ্গা" পাতাটির দুইটি সংশোধিত সংস্করণের মধ্যে পার্থক্য

বট নিবন্ধ পরিষ্কার করেছে। কোন সমস্যায় এর পরিচালককে জানান।
(→‎শীর্ষ: সংশোধন)
(বট নিবন্ধ পরিষ্কার করেছে। কোন সমস্যায় এর পরিচালককে জানান।)
 
{{তথ্যছক ক্রিকেটার
{{Infobox cricketer
| name = সঞ্জীবা রানাতুঙ্গা<br>සංජීව රණතුංග
| image =
| caption =
 
| fullname = সঞ্জীবা রানাতুঙ্গা
| clubnumber1 =
| club2 =
| year2 =
 
| columns = 2
সাবেক [[শ্রীলঙ্কা জাতীয় ক্রিকেট দলের অধিনায়কদের তালিকা|শ্রীলঙ্কান ক্রিকেট অধিনায়ক]] অর্জুনা রানাতুঙ্গা, [[দম্মিকা রানাতুঙ্গা]], [[নিশান্ত রানাতুঙ্গা]] ও প্রসন্ন রানাতুঙ্গা সম্পর্কে তার সহোদর ভ্রাতা।
 
আনন্দ কলেজে অধ্যয়ন করেন। বিদ্যালয় পর্যায়ে বেশ রান তুলেছেন। আনন্দ কলেজের অধিনায়কের দায়িত্ব পালনসহ শ্রীলঙ্কান এ দলের পক্ষে বেশ কয়েকবার অংশ নিয়েছেন।
 
== প্রথম-শ্রেণীর ক্রিকেট ==
১৯৮৮-৮৯ মৌসুম থেকে ২০০০-০১ মৌসুম পর্যন্ত সঞ্জীবা রানাতুঙ্গা’র [[প্রথম-শ্রেণীর ক্রিকেট|প্রথম-শ্রেণীর]] খেলোয়াড়ী জীবন চলমান ছিল। সুপরিচিত ও জনপ্রিয় জ্যেষ্ঠ ভ্রাতা [[অর্জুনা রানাতুঙ্গা|অর্জুনা রানাতুঙ্গা’র]] ন্যায় সঞ্জীবা রানাতুঙ্গা কখনো [[আন্তর্জাতিক ক্রিকেট]] অঙ্গনে নিজেকে মেলে ধরতে পারেননি। তবে, ঘরোয়া পর্যায়ের ক্রিকেটে প্রতিভাবান বামহাতি ব্যাটসম্যান হিসেবে সুনাম কুড়িয়েছেন।
 
== আন্তর্জাতিক ক্রিকেট ==
সমগ্র খেলোয়াড়ী জীবনে নয়টিমাত্র [[টেস্ট ক্রিকেট|টেস্ট]] ও তেরোটি [[একদিনের আন্তর্জাতিক|একদিনের আন্তর্জাতিকে]] অংশগ্রহণ করেছেন সঞ্জীবা রানাতুঙ্গা। ২৬ আগস্ট, ১৯৯৪ তারিখে ক্যান্ডিতে সফরকারী [[পাকিস্তান জাতীয় ক্রিকেট দল|পাকিস্তান দলের]] বিপক্ষে টেস্ট ক্রিকেটে অভিষেক ঘটে তার। ২০ জুন, ১৯৯৭ তারিখে কিংস্টনে স্বাগতিক ওয়েস্ট ইন্ডিজ দলের বিপক্ষে সর্বশেষ টেস্টে অংশ নেন তিনি।
 
১৯৯৪ সালে নিজ দেশে পাকিস্তানের মুখোমুখি হন। একদিনের সিরিজে বেশ ভালোমানের খেলা উপহার দেন। কলম্বোর আর. প্রেমাদাসা স্টেডিয়ামে নিজস্ব দ্বিতীয় খেলায় ৭০ রান তুলেন। পরবর্তীতে, একদিনের আন্তর্জাতিকে এটিই তার ব্যক্তিগত সর্বোচ্চ রানের ইনিংস হিসেবে রয়ে যায়। এরফলে, তার দল ৭ উইকেটের ব্যবধানে জয়লাভে সমর্থ হয়।<ref>{{citeওয়েব webউদ্ধৃতি |urlইউআরএল= http://www.howstat.com/cricket/Statistics/Matches/MatchScorecard_ODI.asp?MatchCode=0978 |titleশিরোনাম= 1994–1995 Sri Lanka v Pakistan – 2nd Match – Colombo}}</ref> এ ইনিংসের কল্যাণে তিনি [[ম্যান অব দ্য ম্যাচ|ম্যান অব দ্য ম্যাচের]] [[পুরস্কার]] লাভ করেন। এরপর থেকেই তার খেলার মানের ক্রমাবনতি হতে থাকে। ফলশ্রুতিতে, ১৩টি ওডিআইয়ে অংশ নেয়ার পর আন্তর্জাতিক ক্রিকেট থেকে তাকে বিদেয় নিতে হয়। জানুয়ারি, ১৯৯৬ সালে সর্বশেষ ওডিআইয়ে অংশ নেন তিনি।
 
তবে, তুলনামূলকভাবে টেস্ট ক্রিকেটে বেশ সফলতা পেয়েছিলেন। টেস্ট খেলাগুলোয় দুইটি [[শতক (ক্রিকেট)|শতরানের]] ইনিংস খেলেছেন। ১৯৯৪ সালে [[জিম্বাবুয়ে জাতীয় ক্রিকেট দল|জিম্বাবুয়ে]] সফরে [[হারারে স্পোর্টস ক্লাব]] ও [[কুইন্স স্পোর্টস ক্লাব]] মাঠে নিজস্ব দ্বিতীয় ও তৃতীয় টেস্টে উপর্যুপরী টেস্ট শতক করেন। তবে, উভয় টেস্টই [[ফলাফল (ক্রিকেট)|ড্রয়ে]] পরিণত হয়েছিল। সাত টেস্ট শেষে তার ব্যাটিং গড় দাঁড়ায় ৫৯.৭১। ফলশ্রুতিতে, নিউজিল্যান্ড, পাকিস্তান ও অস্ট্রেলিয়া গমন করার সুযোগ লাভ করেন।
 
[[Sri Lankan cricket team in Australia in 1995–96|১৯৯৬]] সালে [[অস্ট্রেলিয়া জাতীয় ক্রিকেট দল|অস্ট্রেলিয়া]] গমন করেন। অ্যাডিলেড টেস্টে ৬০ ও ৬৫ রানের মূল্যবান ইনিংস খেলেন। কিন্তু, আন্তর্জাতিক অঙ্গনে তিনি বেশ প্রতিকূল অবস্থার মুখোমুখি হন। ফলে, তাকে দলের বাইরে রাখতে বাধ্য করা হয়। জুন, ১৯৯৭ সালে বিতর্কিতভাবে তাকে জাতীয় দলে খেলার জন্যে আমন্ত্রণ জানানো হয়। দলের সাথে [[ওয়েস্ট ইন্ডিজ ক্রিকেট দল|ওয়েস্ট ইন্ডিজ]] গমন করেন। কিন্তু, একটি খেলায় দূর্বল ক্রীড়াশৈলী প্রদর্শন করায় তাকে আর দলে রাখা হয়নি।
! style="width;30px;"| ক্রমিক !! style="width:50px;"| রান !! style="width:50px;"| খেলা !! style="width:140px;"| প্রতিপক্ষ !! style="width:280px;"| শহর/দেশ !! style="width:250px;"| মাঠ !! style="width:150px;"| তারিখ !!style="width:90px;"| ফলাফল
|-
| '''[১]''' || ১১৮ || ২ || {{cr|ZIM}} || {{flagiconপতাকা আইকন|ZIM}} [[Harare|হারারে]], [[জিম্বাবুয়ে]] || [[Harare Sports Club|হারারে স্পোর্টস ক্লাব]] || ১১ অক্টোবর, ১৯৯৪ || ড্র
|-
| '''[২]''' || ১০০* || ৩ || {{cr|ZIM}} || {{flagiconপতাকা আইকন|ZIM}} [[Bulawayo|বুলাওয়ে]], জিম্বাবুয়ে || [[Queens Sports Club|কুইন্স স্পোর্টস ক্লাব]] || ২০ অক্টোবর, ১৯৯৪ || ড্র
|}
 
১,৭৮,৫৭৪টি

সম্পাদনা