"ফনোগ্রাফ" পাতাটির দুইটি সংশোধিত সংস্করণের মধ্যে পার্থক্য

ট্যাগ: মোবাইল সম্পাদনা মোবাইল ওয়েব সম্পাদনা
ট্যাগ: মোবাইল সম্পাদনা মোবাইল ওয়েব সম্পাদনা
===পূর্বসূরিদের ফনোগ্রাফ===
যদিও থমাস আলভা এডিসনকে ফনোগ্রাফের আবিষ্কার বলা হয়। প্রকৃতপক্ষে এডিশন তার পূর্বসূরী কিছু বিজ্ঞানী শব্দ ধারণ এবং বাদনের উপযোগী পদ্ধতি উদ্ভাবন করেছিলেন। এডিসন এই সব আবিষ্কারকে একটি একটি চূড়ান্ত রূপ দিতে সক্ষম হয়েছিলেন।
''ফনোটোগ্রাফ'' নামে প্রকৃত শব্দধারণ করার প্রথম যন্ত্র আবিষ্কার করেছিলেন ফরাসি বিজ্ঞানী [[এডওয়ার্ড-লিওন স্কট ডি মার্টিনভিল]]। যেখানে বাতাসের ভিতর দিয়ে ভেসে আসা শব্দ এই  যন্ত্রের পার্চমেন্ট কাগজের পর্দায় আঘাত হানতো। এর ফলে যে শব্দের কম্পাঙ্ক সৃষ্টি হতো তা এই পর্দার সাথে যুক্ত একটি বিশেষ ধরণের লেখনীকে কম্পিত করতো। এই লেখনী একটি ঘূর্ণায়মান চোখের উপর রাখা এক ধরণের কালচে কাগজের উপর শব্দ কম্পাঙ্কের ছবি আঁকতো। মূলত শব্দের প্রকৃতি চাক্ষুষভাবে পরীক্ষা করার জন্য এই যন্ত্র ব্যবহৃত হতো। কাগজে আঁকা এই শব্দ-কম্পাঙ্ক বাজানোর কোনো ব্যবস্থা সে সময়ে ছিল না। ফরাসি কবি এবং সৌখিন কবি [[চার্লস ক্রোস]], প্রথম একটি শব্দ ধারণ এবং ধারণকৃত শব্দ বাজানোর যন্ত্রের তৈরির কথা ভাবেন। এই বিষয়ে তিনি ১৮৭৭ খ্রিষ্টাব্দের ৩০ এপ্রিলে ফরাসি বিজ্ঞান একাডেমিতে একটি প্রতিবেদন পাঠান। এই বৎসরে এই যন্ত্র সম্পর্কিত প্রতিবেদন প্রকাশ করেন ৩০ অক্টোবরে। এই প্রতিবেদনের নাম ছিল ফনোগ্রাফি। কিন্তু লেখকের পছন্দের নাম ছিল পেলিওফোন।
 
এই যন্ত্রটির স্বত্বাধিকার গ্রহণ করা হয়েছিল ১৮৫৭ খ্রিষ্টাব্দের ২৫ মার্চ। এই যন্ত্রটিও তৈরি করা হয়েছিল শব্দ-গবেষণাগারের জন্য।
 
শব্দকে যথাযথভাবে যন্ত্রের সাহায্যে বারবার বাজানোর উপযোগী প্রথম যন্ত্র হলো [[টিউনিং ফর্ক]]। ১৮০৭ খ্রিষ্টাব্দে এই যন্ত্রটি প্রথম আবিষ্কার করেছিলেন ইংরেজ বিজ্ঞানী [[থমাস ইয়ং]]। কিন্তু যন্ত্রের কাঁটাকে এমনভাবে তৈরি করা হতো। যাতে আঘাত করলে সুনির্দিষ্ট কম্পাঙ্কের শব্দ তৈরি হয়। এতে কোনো শব্দকে গ্রহণ করে ধারণ করা যায় না। এখনো পদার্থবিজ্ঞানের গবেষণাগারে এই যন্ত্র ব্যবহার করা হয়।
বেনামী ব্যবহারকারী