"ব্যুত্থান" পাতাটির দুইটি সংশোধিত সংস্করণের মধ্যে পার্থক্য

(রচনাশৈলী)
১৯৯৪ সালে বাংলাদেশের সকল ক্যাডেট কলেজগুলিতে শারীরিক শিক্ষার অংশ হিসেবে ব্যুত্থান বাধ্যতামূলক প্রশিক্ষণ কর্মসূচিতে যুক্ত হয়। আমেরিকার টেক্সাসে অবস্থিত ন্যাশনাল সিকিউরিটি অ্যাকাডেমির (এন এস এ) একজন প্রশিক্ষক অ্যান্ডি স্কট ব্যুত্থান কে যুক্তরাষ্ট্রে প্রচারে সহযোগিতা করেন। ব্যুত্থানকে সারা পৃথিবীব্যপি পরিচিত করার উদ্দেশ্যে ১৯৯৮ সালে যুক্তরাষ্ট্রের হিউস্টোনে ওয়ার্ল্ড ব্যুত্থান ফেডারেশন গঠিত হয়। ২০০২ সালে ইংল্যান্ডে ব্যুত্থানের প্রশিক্ষক এবং পরামর্শকগণের উপস্থিতিতে এই প্রতিষ্ঠানের নাম পরিবর্তন করে 'ইন্টারন্যাশনাল ব্যুত্থান ফেডারেশন’ করা হয়। 'ইন্টারন্যাশনাল ব্যুত্থান ফেডারেশন’ দক্ষিণ পূর্ব এশিয়া, ইউরোপ এবং যুক্তরাষ্ট্রে মার্শাল আর্ট প্রচার করে থাকে। ২০০৪ সালে মায়ানমারের থাইং ফেডারেশন দেশের ৩২ জন গ্র্যান্ড মাস্টারের উপস্থিতিতে ব্যুত্থানের স্থপতি ম্যাক ইউরির সম্মানে এক সংবর্ধনা অনুষ্ঠানের আয়োজন করে। এই সংবর্ধনা অনুষ্ঠানে মায়ানমার ব্যুত্থানের বিশ্বব্যপি প্রচারণার সাথে তাদের একাত্মতা ঘোষণা করে।
 
ব্যুত্থান প্রচারের উদ্দেশ্যে ম্যাক ইউরী ২০০৫ সালে [[ইংল্যান্ড|ইংল্যান্ডের]] সুইনডন শহরে গমন করেন। সুইনডনের তৎকালীন মেয়র স্টিভ ওয়াক ফিল্ড ব্যুত্থানের প্রশিক্ষণ গ্রহণ করেন এবং ব্যুত্থান প্রচারে সহযোগিতা করেন। ২০০৭ সালে ‘ওয়ার্ল্ড মার্শাল আর্ট হল অফ ফেইম‘ ম্যাক ইউরিকে ‘গ্র্যান্ড মাস্টার অব দ্য ইয়ার’ পদকে ভূষিত করে। যুক্তরাজ্য ভিত্তিক মার্শাল আর্ট বিষয়ক ম্যাগাজিন ‘কমব্যাট‘ ম্যাক ইউরিকে নিয়ে প্রচ্ছদ কাহিনী ছাপায়, যার ফলে মার্শাল আর্ট জগতে ব্যুত্থান বিশ্বব্যপি পরিচিতি লাভ করে। পরবর্তীতে এই ম্যাগাজিন এর সম্পাদক পল ক্লিফটন ব্যুত্থানের প্রচার ও প্রসারে আন্তরিকভাবে সহযোগিতা করেন। উপরন্তু, সুইনডন শহরস্থ ব্রিটিশ রাজনীতিবিদ ডেরেক মনটাতে, যুক্তরাজ্যে ব্যুত্থান প্রচারে সক্রিয়ভাবে অংশগ্রহণ করেন। ২০১০ সালে বারমিংহ্যাম, ইংল্যান্ডের এ অবস্থিত ন্যাশনাল এক্সহিবিশন সেন্টারে অনুষ্ঠিত ইন্টারন্যাশনাল মার্শাল আর্ট এক্সহিবিশনে ইন্টারন্যাশনাল ব্যুত্থান ফেডারেশন প্রচারণা স্টল স্থাপনের মাধ্যমে অংশগ্রহণ করে। ২০১৩ সালে বাংলাদেশ জাতীয় ক্রীড়া পরিষদ, যুব ও ক্রীড়া মন্ত্রণালয়ের অধীনে বাংলাদেশের একটি জাতীয় ক্রীড়া হিসেবে ব্যুত্থান অনুমোদন লাভ করে। ২০১৫ সালে '''মার্শাল আর্ট ইলাসট্রেটর''' ম্যাগাজিন তাদের প্রচ্ছদ কাহিনী হিসেবে ব্যুত্থানকে ঘিরে বিশেষ প্রবন্ধ প্রকাশ করে। ২০১৮ সালের এপ্রিলে [[ব্রনেইব্রুনাই|ব্রনেই দারুস সালামের]] সরকার তাদের দেশে জাতীয় পর্যায়ে অনুশীলনের জন্য ক্রীড়া হিসেবে ব্যুত্থানকে আনুষ্ঠানিক ভাবে স্বীকৃতি দেয়।<ref name=observer>{{cite web |url=https://www.observerbd.com/details.php?id=137219 |date=May 12, 2018 |title=Brunei Butthan becomes member of Int'l Butthan Fed |accessdate=May 20, 2020 |publisher=[[দ্য ডেইলি অবজারভার]]}}</ref>
 
==ব্যুত্থান দর্শন ও চালচিত্র==