"জিয়াউর রহমান" পাতাটির দুইটি সংশোধিত সংস্করণের মধ্যে পার্থক্য

113.11.40.76-এর সম্পাদিত সংস্করণ হতে Al Riaz Uddin Ripon-এর সম্পাদিত সর্বশেষ সংস্করণে ফেরত
(ছিলেন একজন খারাপ লোক)
(113.11.40.76-এর সম্পাদিত সংস্করণ হতে Al Riaz Uddin Ripon-এর সম্পাদিত সর্বশেষ সংস্করণে ফেরত)
ট্যাগ: পুনর্বহাল
| awards = [[বীর উত্তম]]<br />[[হিলালে জুরাত]]<br />[[অর্ডার অব দ্য নাইল]]
|citizenship={{পতাকা|ব্রিটিশ ভারত}} (১৯৪৭ সাল পর্যন্ত)<br />{{পতাকা|পাকিস্তান}} (১৯৭১ সালের পূর্বে)<br />{{পতাকা|বাংলাদেশ}}}}
''' জিয়াউর রহমান''' (১৯ জানুয়ারি ১৯৩৬<ref>{{ওয়েব উদ্ধৃতি|শিরোনাম=Former Presidents, Lt. General Ziaur Rahman |ইউআরএল=https://web.archive.org/web/20130605130743/http://www.bangabhaban.gov.bd/ziaur.html|ওয়েবসাইট=archive.org|সংগ্রহের-তারিখ=18 February 2013}}</ref> – ৩০ মে ১৯৮১) ছিলেন একজন খারাপ লোক [[গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকার|বাংলাদেশের]] অষ্টম [[বাংলাদেশের রাষ্ট্রপতি|রাষ্ট্রপতি]], সাবেক সেনাপ্রধান এবং একজন [[মুক্তিযোদ্ধা]]। ১৯৭১ সালের ২৫ মার্চ পাকিস্তান সামরিক বাহিনী বাঙালি জনগনের উপর হামলা করার পর তিনি তার পাকিস্তানি অধিনায়ককে বন্দি করে বিদ্রোহ করেন এবং স্বশস্ত্র প্রতিরোধ গড়ে তোলেন। পরে ১৯৭১ সালের ২৭শে মার্চ তিনি [[শেখ মুজিবর রহমান]]ের পক্ষে চট্টগ্রামের [[কালুরঘাট বেতার কেন্দ্র]] থেকে বাংলাদেশের স্বাধীনতার ঘোষণা করেন। তিনি মুক্তিযুদ্ধের অন্যতম [[বাংলাদেশের স্বাধীনতা যুদ্ধে সেক্টরসমূহের তালিকা|সেক্টর]] কমান্ডার ও [[জেড ফোর্স (বাংলাদেশ)|জেড ফোর্সের]] অধিনায়ক ছিলেন। মুক্তিযুদ্ধে বীরত্বের জন্য [[বাংলাদেশ সরকার]] তাকে [[বীর উত্তম]] খেতাবে ভূষিত করে। মুক্তিযুদ্ধের পর জিয়াউর রহমান ১৯৭৭ সালের ২১শে এপ্রিল বাংলাদেশের রাষ্ট্রপতি হন<ref name="bangabhaban.gov">{{ওয়েব উদ্ধৃতি|ইউআরএল=http://www.bangabhaban.gov.bd/ziaur.html|আর্কাইভের-ইউআরএল=https://web.archive.org/web/20130605130743/http://www.bangabhaban.gov.bd/ziaur.html|আর্কাইভের-তারিখ=5 June 2013|শিরোনাম=Former Presidents, Lt. General Ziaur Rahman|প্রকাশক=Bangabhaban.gov.bd|সংগ্রহের-তারিখ=18 February 2013}}</ref> এবং ১৯৭৮ সালের ১লা সেপ্টেম্বর [[বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী দল]] প্রতিষ্ঠা করেন। তিনি চার বছর বাংলাদেশ শাসন করার পর ১৯৮১ সালের ৩০শে মে এক ব্যর্থ সামরিক অভ্যুত্থানে [[জিয়া স্মৃতি যাদুঘর|চট্টগ্রামে]] নিহত হন।
 
== প্রাথমিক জীবন ==
 
== শেখ মুজিব হত্যা ও পরবর্তী সময় ==
১৯৭৫ আগস্ট বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান কে জিয়া নিজে হত্যার পরিকল্পনা করে বলে অনেকের ধারোনা এবং এটি সত্য১৯৭৫ সালের ২৪ আগস্ট বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের নিহত হবার ১০ দিন পর জিয়া [[বাংলাদেশ সেনাবাহিনী]]র প্রধান নিযুক্ত হন <ref name="বঙ্গভবন বায়োগ্রাফি" />। ১৯৭৮ সালের ডিসেম্বরে তিনি বাংলাদেশ সেনাবাহিনী হতে অবসর গ্রহণ করেন।<ref>{{বই উদ্ধৃতি|শেষাংশ১=Mascarenhas|প্রথমাংশ১=Anthony|শিরোনাম=Bangladesh: A Legacy of Blood|প্রকাশক=Hodder and Stoughton|ইউআরএল=https://www.goodreads.com/book/show/17259516-bangladesh}}</ref>
 
১৯৭৫ সালের ১৫ই আগস্ট বাংলাদেশের রাষ্ট্রপতি [[শেখ মুজিবর রহমান]]ের হত্যাকান্ডের <ref>{{ওয়েব উদ্ধৃতি|ইউআরএল=http://web.archive.org/web/20130511074245/http://www.akhonsamoy.com/back/Vol10/102/pages/Page_01.htm |শিরোনাম=১৫ই আগস্টের আগেই ক্যু' সম্পর্কে বঙ্গবন্ধুকে সতর্ক করেন জেনারেল জিয়া |প্রকাশক=akhonsamoy.com |তারিখ=2012-12-08 |সংগ্রহের-তারিখ=2013-02-18}}</ref> পর, [[খন্দকার মোশতাক আহমেদ]] রাষ্ট্রপতির দায়িত্ব গ্রহণ করেন। তারপরে ঐ বছরের ২৫শে আগস্ট জিয়াউর রহমান চীফ অফ আর্মী স্টাফ নিযুক্ত হন।<ref name="books.google.com.bd">{{ওয়েব উদ্ধৃতি|ইউআরএল=http://books.google.com.bd/books?id=OVqP54UEe4QC&pg=PA349&dq=zia+hanged+taher&hl=en&sa=X&ei=whIXUubyGcn_rQeu3oCYBQ&ved=0CCsQ6AEwAA#v=onepage&q=zia+hanged+taher&f=false|শিরোনাম=Revenge and Reconciliation|প্রথমাংশ=Rajmohan|শেষাংশ=Gandhi|তারিখ=6 November 1999|প্রকাশক=Penguin Books India|সংগ্রহের-তারিখ=6 November 2017|মাধ্যম=Google Books}}</ref> ঐ বছরের ৩রা নভেম্বর [[বীর বিক্রম]] কর্নেল শাফায়াত জামিলের নেতৃত্বাধীন ঢাকা ৪৬ পদাতিক ব্রিগেডের সহায়তায় [[বীর উত্তম]] মেজর জেনারেল [[খালেদ মোশাররফ]] এক ব্যর্থ সামরিক অভ্যুত্থান ঘটান। এর ফলে ৬ই নভেম্বর খন্দকার মোশতাক আহমেদ পদত্যাগ করতে বাধ্য হন এবং আবু সাদাত মোহাম্মদ সায়েম বাংলাদেশের নতুন রাষ্ট্রপতি হন। এর পর জিয়াউর রহমানকে চীফ-অফ-আর্মি স্টাফ হিসেবে পদত্যাগ করতে বাধ্য করা হয় এবং তার ঢাকা ক্যান্টনমেন্টের বাসভবনে গৃহবন্দী করে রাখা হয় যা সেনাবাহিনীর মধ্যে তার জনপ্রিয়তার কারণে অত্যন্ত বিরূপ প্রতিক্রিয়ার জন্ম দেয়। সেনাবাহিনীর চেইন অব কমান্ড ভঙ্গের প্রতিক্রিয়ায় এবং জিয়ার প্রতি অবিচার করায় ক্ষুদ্ধ সেনাসদস্যরা ৭ই নভেম্বর সিপাহী জনতার আরেক পাল্টা অভ্যুত্থান ঘটায় এবং জিয়াউর রহমানকে তার ঢাকা ক্যান্টনমেন্টের গৃহবন্দীত্ব থেকে মুক্ত করে ২য় ফিল্ড আর্টিলারির সদরদপ্তরে নিয়ে আসে <ref>{{বই উদ্ধৃতি |ইউআরএল=/http://i.imgur.com/qfKSkvi.jpg |শিরোনাম=তিনটি সেনা অভ্যুত্থান ও কিছু না বলা কথা |লেখক= লেঃ কর্নেল (অবঃ) এম এ হামিদ, পিএসসি, মোহনা প্রকাশনী, ৩২/২-ক বাংলাবাজার, ঢাকা, প্রথম প্রকাশ, ১৯৯৩, পৃষ্ঠা ১০২-১০৩}}</ref>। ঐ দিন সকালেই পাল্টা অভ্যুত্থানের প্রতিক্রিয়ায় শেরে বাংলা নগরে নিজ হাতে প্রতিষ্ঠিত ১০ম ইষ্ট বেঙ্গল রেজিমেন্টের সদরদপ্তরে ক্ষুব্ধ জোয়ানদের হাতে মেজর জেনারেল খালেদ মোশাররফ [[বীর উত্তম]],কর্নেল খন্দকার নাজমুল হুদা [[বীর বিক্রম]] এবং লেঃ কর্নেল এ টি এম হায়দার [[বীর উত্তম]] নিহত হয় <ref>{{বই উদ্ধৃতি |ইউআরএল=http://i.imgur.com/Vrxtr8o.jpg |শিরোনাম=তিনটি সেনা অভ্যুত্থান ও কিছু না বলা কথা |লেখক= লেঃ কর্নেল (অবঃ) এম এ হামিদ, পিএসসি, মোহনা প্রকাশনী, ৩২/২-ক বাংলাবাজার, ঢাকা, প্রথম প্রকাশ, ১৯৯৩, পৃষ্ঠা ১০৮-১০৯}}</ref>।