"সঞ্জীবা রানাতুঙ্গা" পাতাটির দুইটি সংশোধিত সংস্করণের মধ্যে পার্থক্য

প্রথম-শ্রেণীর ক্রিকেট - অনুচ্ছেদ সৃষ্টি!
(তথ্যছক অন্তর্ভূক্তিকরণ!)
(প্রথম-শ্রেণীর ক্রিকেট - অনুচ্ছেদ সৃষ্টি!)
| fullname = সঞ্জীবা রানাতুঙ্গা
| nickname =
| birth_date = {{birthজন্ম dateতারিখ and ageবয়স|df=yes|1969|04|25}}
| birth_place = কলম্বো, [[শ্রীলঙ্কা]]
| death_date = <!-- {{death date and age|df=yes|YYYY|MM|DD|YYYY|MM|DD}} -->
}}
 
'''সঞ্জীবা রানাতুঙ্গা''' ({{lang-si|සංජීව රණතුංග}}; জন্ম: ২৫ এপ্রিল, ১৯৬৯) কলম্বো এলাকায় জন্মগ্রহণকারী সাবেক শ্রীলঙ্কান আন্তর্জাতিক ক্রিকেটার, রেফারি ও ধারাভাষ্যকার। [[শ্রীলঙ্কা জাতীয় ক্রিকেট দল|শ্রীলঙ্কা ক্রিকেট দলের]] অন্যতম সদস্য ছিলেন তিনি। ১৯৯৪ থেকে ১৯৯৭ সময়কালে সংক্ষিপ্ত সময়ের জন্যে শ্রীলঙ্কার পক্ষে আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে অংশগ্রহণ করেছেন।
 
ঘরোয়া প্রথম-শ্রেণীর শ্রীলঙ্কান ক্রিকেটে [[Colts Cricket Club|কোল্টস]], নন্দেস্ক্রিপ্টস ও সিংহলীজ দলের প্রতিনিধিত্ব করেন। দলে তিনি মূলতঃ বামহাতি ব্যাটসম্যান হিসেবে খেলতেন। এছাড়াও, ডানহাতে [[অফ ব্রেক]] বোলিংয়ে পারদর্শী ছিলেন তিনি।
 
== প্রথম-শ্রেণীর ক্রিকেট ==
১৯৮৮-৮৯ মৌসুম থেকে ২০০০-০১ মৌসুম পর্যন্ত সঞ্জীবা রানাতুঙ্গা’র [[প্রথম-শ্রেণীর ক্রিকেট|প্রথম-শ্রেণীর]] খেলোয়াড়ী জীবন চলমান ছিল।
আনন্দ কলেজে অধ্যয়ন করেন। বিদ্যালয় পর্যায়ে বেশ রান তুলেছেন। আনন্দ কলেজের অধিনায়কের দায়িত্ব পালনসহ শ্রীলঙ্কান এ দলের পক্ষে বেশ কয়েকবার অংশ নিয়েছেন।
 
১৯৮৮-৮৯ মৌসুম থেকে ২০০০-০১ মৌসুম পর্যন্ত সঞ্জীবা রানাতুঙ্গা’র [[প্রথম-শ্রেণীর ক্রিকেট|প্রথম-শ্রেণীর]] খেলোয়াড়ী জীবন চলমান ছিল। সুপরিচিত ও জনপ্রিয় জ্যেষ্ঠ ভ্রাতা [[অর্জুনা রানাতুঙ্গা|অর্জুনা রানাতুঙ্গা’র]] ন্যায় সঞ্জীবা রানাতুঙ্গা কখনো আন্তর্জাতিক ক্রিকেট অঙ্গনে নিজেকে মেলে ধরতে পারেননি। তবে, ঘরোয়া পর্যায়ের ক্রিকেটে প্রতিভাবান বামহাতি ব্যাটসম্যান হিসেবে সুনাম কুড়িয়েছেন।
 
সমগ্র খেলোয়াড়ী জীবনে নয়টিমাত্র [[টেস্ট ক্রিকেট|টেস্ট]] ও তেরোটি একদিনের আন্তর্জাতিকে অংশগ্রহণ করেছেন সঞ্জীবা রানাতুঙ্গা। ২৬ আগস্ট, ১৯৯৪ তারিখে ক্যান্ডিতে সফরকারী পাকিস্তান দলের বিপক্ষে টেস্ট ক্রিকেটে অভিষেক ঘটে তার। ২০ জুন, ১৯৯৭ তারিখে কিংস্টনে স্বাগতিক ওয়েস্ট ইন্ডিজ দলের বিপক্ষে সর্বশেষ টেস্টে অংশ নেন তিনি।
 
১৯৯৪ সালে নিজ দেশে পাকিস্তানের মুখোমুখি হন। একদিনের সিরিজে বেশ ভালোমানের খেলা উপহার দেন। নিজস্ব দ্বিতীয় খেলায় ৭০ রান তুলেন। এরপর থেকেই তার খেলার মানের ক্রমাবনতি হতে থাকে। ফলশ্রুতিতে, ১৩টি ওডিআইয়ে অংশ নেয়ার পর আন্তর্জাতিক ক্রিকেট থেকে তাকে বিদেয় নিতে হয়। জানুয়ারি, ১৯৯৬ সালে সর্বশেষ ওডিআইয়ে অংশ নেন তিনি।
 
তবে, তুলনামূলকভাবে টেস্ট ক্রিকেটে বেশ সফলতা পেয়েছিলেন। জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে নিজস্ব দ্বিতীয় ও তৃতীয় টেস্টে পরপর দুইটি সেঞ্চুরি করেন। সাত টেস্ট শেষে তার ব্যাটিং গড় দাঁড়ায় ৫৯.৭১। ফলশ্রুতিতে, নিউজিল্যান্ড, পাকিস্তান ও অস্ট্রেলিয়া গমন করার সুযোগ লাভ করেন। কিন্তু, আন্তর্জাতিক অঙ্গনে তিনি বেশ প্রতিকূল অবস্থার মুখোমুখি হন। ফলে, তাকে দলের বাইরে রাখতে বাধ্য করা হয়। জুন, ১৯৯৭ সালে বিতর্কিতভাবে তাকে জাতীয় দলে খেলার জন্যে আমন্ত্রণ জানানো হয়। ওয়েস্ট ইন্ডিজ গমন করেন। কিন্তু, একটি খেলায় দূর্বল ক্রীড়াশৈলী প্রদর্শন করায় তাকে আর দলে রাখা হয়নি।
 
== তথ্যসূত্র ==
৭৫,২৩৫টি

সম্পাদনা