"জনি ক্যাশ" পাতাটির দুইটি সংশোধিত সংস্করণের মধ্যে পার্থক্য

সংশোধন, পরিষ্কারকরণ
(সংশোধন, পরিষ্কারকরণ)
 
{{কাজ চলছে/২০১৯}}{{তথ্যছক ব্যক্তি
| name = জনি ক্যাশ
| image = JohnnyCash1969.jpg
| birth_name = জে. আর. ক্যাশ
| birth_date = {{জন্ম তারিখ|1932|2|26|mf=y}}
| birth_place = [[আর্কানসাস|কিংসল্যান্ড, আরকানসাসআর্কানসাস]], যুক্তরাষ্ট্র
| death_date = {{মৃত্যু তারিখ ও বয়স|2003|9|12|1932|2|26|mf=y}}
| death_place = [[ন্যাশভাইলন্যাশভিল | ন্যাশভিল, টেনিসি]], যুক্তরাষ্ট্র
| resting_place = [[হেন্ডারসনভাইল মেমরি গার্ডেনস]], টেনিসি, যুক্তরাষ্ট্র
| occupation = {{hlist|গায়ক ও সঙ্গীত রচয়িতা|গিটারিস্ট|অভিনেতা|গ্রন্থকার<!-- Discuss on talk page before changing. -->}}
ক্যাশের অধিকাংশ কাজে দুঃখ, নৈতিক দুর্দশা এবং মুক্তি বিশেষভাবে স্থান পেয়েছে, বিশেষত পরবর্তী জীবনে তিনি এই ঘরানায় বেশি কাজ করেছেন। <ref name="Mulligan">{{উদ্ধৃতি|শিরোনাম=Johnny Cash: American VI: Ain't No Grave}}</ref> তার অন্যান্য সিগনেচার সংয়ের মধ্যে উল্লেখযোগ্য " আই ওয়াক দ্য লাইন ", " রিং অফ ফায়ার ", " গেট রিদম " এবং " ম্যান ইন ব্ল্যাক "। তিনি " ওয়ান পিস অ্যাট আ টাইম " এবং " এ বয় নেমড স্যু " এর মতো রসাত্মক গানও রেকর্ড করেছেন; আরও আছে তার ভাবী-স্ত্রী জুন কার্টারের সাথে একটি ডুয়েট, " জ্যাকসন " (তাদের বিয়ের পরে আরও অনেক গান তারা একসাথে করেন); এবং " হেই, পোর্টার ", " কমলা ব্লসম স্পেশাল ", এবং " রক আইল্যান্ড লাইন " সহ রেলপথের গানগুলি । <ref name="Cusic_book">For discussion of, and lyrics to, Cash's songs, see {{উদ্ধৃতি|শিরোনাম=Johnny Cash: The songs}}</ref> তার ক্যারিয়ারের শেষ পর্যায়ে, ক্যাশ বিংশ শতাব্দীর বেশিরভাগ রক শিল্পীদের গানে কভার দিয়েছিলেন, নাইন ইঞ্চ নখের " হার্ট " এবং সাউন্ডগার্ডেনের " রাস্টি কেইজ " তাদের মধ্যে উল্লেখযোগ্য।
 
== প্রথমপ্রারম্ভিক জীবন ==
[[চিত্র:Johnny_Cash_boyhood_home_Dyess_AR_2013-10-05_003.jpg|ডান|থাম্ব| আরাকানসাসের ডাইস নগরের এই বাড়িতে তিনি ছেলেবেলা কাটিয়েছেন। ১৯৩৫ সালে তিন বছর বয়স থেকে ১৯৫০ সালে উচ্চ বিদ্যালয় শেষ না হওয়া পর্যন্ত এ বাড়িতে বসবাস করেন। ২০১৩ সালে চিত্রিত সম্পত্তিটি ঐতিহাসিক স্থানগুলির জাতীয় নিবন্ধে তালিকাভুক্ত হয়েছে ।]]
জনি ক্যাশ ০২ ফেব্রুয়ারি, ১৯৩২ সালে আরকানসাসের কিংসল্যান্ডে {{Sfn|Miller|2003}} <ref>Ellis, A. (2004, 01). "The man in black: Johnny cash, 1932–2003". ''Guitar Player,'' 38, 31–32, 34.</ref> জন্মগ্রহণ করেছিলেন। ক্যারি ক্লোভারি ( ''ন্যা'' রিভার্স) এবং রে ক্যাশের সাত সন্তানের মধ্যে তিনি ছিলেন চতুর্থ : রয়, মার্গারেট লুইস, জ্যাক, জে.আর., রেবা, জোয়ান এবং টমি (যিনি পরবর্তীতে সফল কান্ট্রি আর্টিস্ট হিসেবে আত্মপ্রকাশ করেন)। । জন মূলতঃ ইংরেজ এবং স্কটিশ বংশোদ্ভূত। <ref name="Memoir1">{{বই উদ্ধৃতি|শিরোনাম=A memoir|শেষাংশ=Cash|প্রথমাংশ=Roseanne|বছর=2010|প্রকাশক=Viking Press|আইএসবিএন=978-1-101-45769-6}}</ref> বড় হয়ে তিনি নিজের পারিবারিক নামের সঙ্গে একাদশ শতকের ফাইফ উপদ্বীপের সংযোগ আবিষ্কার করেন। এই তথ্য তাকে জানিয়েছিলেন তৎকালীন ফলল্যান্ডের লেয়ার্ড মেজর মাইকেল ক্রিকটন স্টুয়ার্ট। {{Sfn|Miller|2003}} <ref>{{বই উদ্ধৃতি|ইউআরএল=https://books.google.com/books|শিরোনাম=Cash: The Autobiography|শেষাংশ=Cash|প্রথমাংশ=Johnny|শেষাংশ২=Carr|প্রথমাংশ২=Patrick|তারিখ=2003|প্রকাশক=Harper Collins|পাতা=3|আইএসবিএন=0060727535|সংগ্রহের-তারিখ=February 26, 2019}}</ref> ক্যাশ লক এবং ফাইফের অন্যান্য কিছু জায়গার নামের সঙ্গে তার পূর্বপুরুষদের নাম মিশে আছে। {{Sfn|Miller|2003}}
=== প্রারম্ভিক কর্মজীবন ===
[[চিত্র:Johnny_Cash_Sun_Records_promotional_portrait.jpg|বাম|থাম্ব| সান রেকর্ডস, ১৯৫৫ সালের পাবলিসিটি ফটো]]
১৯৫৪ সালে ক্যাশ আর ভিভিয়ান [[মেম্ফিস|টেনেসির মেমফিসে]] বসবাস শুরু করেন। বেতারঘোষকের কাজে অধ্যয়নের যাবতীয় সরঞ্জাম তিনি এখানে এসে &nbsp; বিক্রি করে দেন। &nbsp; প্রতিরাতে গিটারিস্ট লুথার পার্কিনস ও বেজিস্ট মার্শাল গ্রান্টের সাথে সঙ্গীত চর্চা করা শুরু করেছিলেন তখন। পার্কিন্স এবং গ্র্যান্টকে মানুষ টেনেসি টু নামে চিনত। এক পর্যায়ে তিনি সান রেকর্ডস ষ্টুডিওতে যাওয়ার সাহস অর্জন করলেন। আশা করছিলেন রেকর্ডিংয়ের জন্য চুক্তিবদ্ধ হতে পারবেন। <ref>{{ওয়েব উদ্ধৃতি|ইউআরএল=https://www.achievement.org/achiever/johnny-cash/#interview|শিরোনাম=Johnny Cash Biography and Interview|ওয়েবসাইট=www.achievement.org|প্রকাশক=[[American Academy of Achievement]]}}</ref> স্যাম ফিলিপসের &nbsp; সঙ্গে তার প্রথম অডিশন হয়েছিল। সেখানে তিনি মূলতঃ গেয়েছিলেন গসপেল। ফিলিপস জানালেন এখন আর তারা গসপেল রেকর্ড করেন না। &nbsp; শোনা যায় ফিলিপসবাই ক্যাশকে এমনটাও বলেছিলেন, “বাড়ি গিয়ে কিছু পাপ করে এস, তারপর হয়ত এমন গান তোমার থেকে বের হবে যা আমি বাজারজাত করতে পারব।” অবশ্য ২০০২ সালের এক সাক্ষাতকারে ক্যাশ ফিলিপসের এমন কোনও বক্তব্য অস্বীকার করেন। <ref>{{উদ্ধৃতি|শিরোনাম=The Man in Black's Musical Journey Continues}}</ref> পৰৱর্তীতে ক্যাশ ঠিকই ভিন্ন গান গেয়ে প্রডিউসার সাহেবের মন জয় করে নেন। সান থেকেই তিনি তার প্রথম রেকর্ডিং বের করেন, জুন মাসে রিলিজ পাওয়া “হেই পোর্টার” এবং “ক্রাই! ক্রাই! ক্রাই!” কান্ট্রি হিট হিসেবে ব্যাপক সফলতা পায়।
 
১৯৫৬ সাল। ডিসেম্বরের ৪ তারিখে ফিলিপসের ষ্টুডিওতে সৌজন্য সাক্ষাতের জন্য এসেছিলেন এলভিস প্রিসলি। তখন কার্ল পার্কিন্স নতুন এক গান নিয়ে কাজ করছিলেন, জেরি লি ছিলেন পিয়ানোতে। ষ্টুডিওতে ক্যাশও ছিলেন, চারজন মিলে জ্যাম সেশন শুরু করেছিলেন তারা। ফিলিপস রেকর্ডিং শুরু করে দিয়েছেন ততক্ষণে, অর্ধেকই গসপেলধর্মী গান। তখন থেকেই তারা “মিলিয়ন দলের কার্লেট” নাম রিলিজ পেতে শুরু করেন। ক্যাশ: দ্য অটোবায়োগ্রাফি বইয়ে তিনি লিখেছেন, এলভিসের সাথে গলা মেলানোর জন্য তিনি মাইক্রোফোন থেকে যত সম্ভব দূরে অবস্থান নিয়েছিলেন, তারপর গেয়েছিলেন হাই পিচে।
 
ক্যাশের পরবর্তী রেকর্ড, “ফলসম প্রিজন ব্লুজ” কান্ট্রি টপ ফাইভে স্থান করে নেয়। তার “আই ওয়াক দ্য লাইন” কান্ট্রি সং তালিকায় প্রথম স্থান অধিকার করে, ঢুকে যায় পপ তালিকার শ্রেষ্ঠ বিশেও। এরপর রিলিজ পায় জুলাই ১৯৫৭ সালে রেকর্ড করা &nbsp; “হোম অফ দ্য বলুজ।” এ বছরই ক্যাশ প্রথম সান আর্টিস্ট হিসেবে দীর্ঘ সময়সীমার অ্যালবাম বের করেন। সান ষ্টুডিওর সর্বাধিক বিক্রিত গায়ক হওয়ার পরও লেবেলে তার পরিকায় করানো হচ্ছে এই বিষয়টি ক্যাশকে পীড়া দিচ্ছিলো। ফিলিপস গসপেল রেকর্ড করতে তেমন একটা উৎসাহী ছিলেন না। সাধারণতঃ গায়কদের যে ৫% দেওয়া হয় তার বদলে ক্যাশ পাচ্ছিলেন ৩%। প্রিসলি ততদিনে সান থেকে বিদায় নিয়েছেন। ফিলিপসের পূর্ণ মনযোগ তখন লুইসের প্রতি।
 
১৯৫৮ সালে কলম্বিয়া রেকর্ডসের দারুণ এক অফার লুফে নেন, সেই সঙ্গে শেষ হয় তার সান রেকর্ড ক্যারিয়ার। “টেক ইওর গানস টু টাউন” তার সর্বাধিক জনপ্রিয় একক অ্যালবামের &nbsp; একটিতে পরিণত হয়, কলাম্বিয়ার জন্য অ্যালবাম তিনি গসপেল গেয়েই রেকর্ড করেন। এদিকে সান ছেড়ে এলেও অনেক অপ্রকাশিত গান তখনও ওখানে রয়ে গেছিল। কাজেই ফিলিপস সেসব প্রকাশ করতে শুরু করলেন, একদম ১৯৬৪ সাল পর্যন্ত সেই রিলিজ চলতে &nbsp; থাকে। ক্যাশ এখানে দুটো লেবেল থেকে প্রকাশিত হওয়ার এক বিরল সুজোগ পেয়ে জান. সান থেকে প্রকাশিত ১৯৬০ সালের “ওহ লোনসাম মি”র কাভার সি&ডব্লিউ চার্টের ১৩ তম স্থান অধিকার করে।
 
(আরসিএ ভিক্টর প্রিসলিকে সাইন করানোর সময় তার সান রেকর্ড মাস্টারগুলোও কিনে নিয়েছিল, তবে ক্যাশ প্রসঙ্গে ফিলিপস সান মাস্টার বিক্রি করতে রাজি হননি। কাজেই কলাম্বিয়া কিছু রেকর্ডিংয়ের মরণোত্তর স্বত্ব &nbsp; কিনে রাখে।)
[[চিত্র:Johnny_Cash_and_The_Tennessee_Three_1963.JPG|ডান|থাম্ব|১৯৬৩ সালে দ্য টেনিসি থ্রির সাথে ক্যাশ]]
ক্যারিয়ারের প্রথমদিকে ক্যাশকে তার সহকর্মীর মজা করে “আজরাইল” বলে ডাকতেন। কারণ, তিনি সব সময় কালো জামা পরে গান করতে অভ্যস্ত ছিলেন। এর ব্যাখ্যায় তিনি জানান, দীর্ঘ টুরে কালো পড়লে সব সময় পরিচ্ছন্ন দেখায়। <ref>{{ম্যাগাজিন উদ্ধৃতি|ইউআরএল=https://www.rollingstone.com/music/news/10-things-you-didnt-know-about-johnny-cash-20131031|তারিখ=2013-10-31|সংগ্রহের-তারিখ=August 29, 2014}}</ref>
 
ষাটের দশকের শুরুতে ক্যাশ কার্টার পরিবারে সঙ্গে কিছু টুরে &nbsp; গিয়েছিলেন। মেবিলির মেয়েরাও সেখানে ছিল: অনিতা, জুন এবং হেলেন। পরবর্তীতে জুন মনে করতে পারেন এই টুরের পুরো সময়টিই দূর থেকে মুগ্ধতা নিয়ে ক্যাশকে দেখেছিলেন তিনি। ষাটের দশকে স্বল্প সময়ের জন্য পিট্ সিগারের টেলিভিশন সিরিজ রেইনবো কুয়েস্টে অংশও নেন ক্যাশ। <ref>{{ওয়েব উদ্ধৃতি|ইউআরএল=http://www.richardandmimi.com/rainbowquest.html|শিরোনাম=Rainbow Quest|তারিখ=February 26, 1966|প্রকাশক=Richardandmimi.com|সংগ্রহের-তারিখ=August 1, 2012}}</ref> ফাইভ মিনিটস টু লিভ নামক এক চলচ্চিত্রের প্রারম্ভ সঙ্গীত লিখেছিলেন, কণ্ঠও দিয়েছেন। পরবর্তীতে এই গানটি ডোর টু ডোর ম্যানিয়াক নাম আলাদা করেও বাজারে এসেছিল।
 
লন্ডন ও অন্টারিওর প্রমোটার সল হলিফ ক্যাশের ক্যারিয়ারের দেখভাল করছিলেন তখন। &nbsp; তাদের এই সম্পর্ক নিয়েই পরবর্তীতে সলের ছেলে একটি বায়োপিক নির্মাণ করেন, নাম “মাই ফাদার এন্ড দ্য ম্যান ইন ব্ল্যাক।” .<ref>{{ওয়েব উদ্ধৃতি|ইউআরএল=http://johnny-and-saul.com|শিরোনাম=My Father and The Man in Black|প্রকাশক=Johnny-and-saul.com|সংগ্রহের-তারিখ=April 25, 2014|আর্কাইভের-ইউআরএল=https://web.archive.org/web/20140517093414/http://johnny-and-saul.com/|আর্কাইভের-তারিখ=মে ১৭, ২০১৪|অকার্যকর-ইউআরএল=হ্যাঁ}}</ref>
 
=== আউটল ইমেজ ===
পঞ্চাশের দশকে যখন ক্যারিয়ারে নানা রকম সফলতার দেখা পাচ্ছিলেন, একই সঙ্গে অভ্যস্ত হয়ে গেলেন অত্যধিক &nbsp; মদ্যপানে। আসক্ত হয়ে পড়েন অ্যাম্ফিট্যামিন ও বারবিচুরেটে। সাময়িক সময়ের জন্যতিনি ন্যাশভিলের এক আপার্টমেন্টে বসবাস করেন, সেখানে ছিল ওয়েলন &nbsp; জেনিংস, একজন অ্যাম্ফিট্যামিন আসক্ত। বন্ধুরা তার অল্পে ঘাবড়ে যাওয়া আর অস্থিরতা নিয়ে মজা করত। তখন কেউ বুঝতে পারেননি তা ছিল মাদকাসক্তিতে আরও গভীরভাবে ডুবে যাওয়ার লক্ষণ।
 
এতো সমস্যায় জড়িয়েও তিনি তার কাজে সৃজনশীলতার অনবদ্য স্বাক্ষর রেখেই যাচ্ছিলেন। “রিং অফ ফায়ার” গানটির অনুবাদটি দারুণ হিট হয়েছিল। কান্ট্রি চার্টে আবারও প্রথম হল গানটি, ঢুকে গেল পপ গানের শ্রেষ্ঠ বিশে। গানটি মূলতঃ করেছিল জুনের বোন, তবে ক্যাশ তার নিজস্ব ধাঁচের ম্যারিয়াকি স্টাইলের স্বাক্ষর রাখার কারণেই তা অন্যে এক উচ্চতায় পৌঁছে যায়। পরবর্তীতে ক্যাশ বলেন, গানটি স্বপ্নে পেয়েছিলেন তিনি। ভিভিয়ান লিবার্তো অবশ্য আরেকটা গল্প বলেছেন তার “আই ওয়াকড দ্য লাইন: মাই লাইফ উইথ জনি” বইয়ে. সেখানে তিনি উল্লেখ করেন গীতিকারের কৃতিত্ব অর্ধেকটা কার্টারকে দেওয়ার পেছনে অর্থনৈতিক ভূমিকা ছিল। <ref>{{বই উদ্ধৃতি|ইউআরএল=https://books.google.com/books?id=TmkBUE0f3HAC&pg=PA294#v=onepage&q&f=false|শিরোনাম=I Walked the Line: My Life with Johnny|শেষাংশ=Cash|প্রথমাংশ=Vivian|শেষাংশ২=Sharpsteen|প্রথমাংশ২=Ann|তারিখ=2007|প্রকাশক=[[Simon & Schuster]]|পাতা=294|আইএসবিএন=978-1416532927|সংগ্রহের-তারিখ=February 28, 2019|সংস্করণ=Hardcover}}</ref>
 
১৯৬৫ সালের জুন মাসে লস পাদ্রেস ন্যাশনাল ফরেস্টে এক মাছধরার প্রমোদভ্রমণে গিয়েছিলেন তিনি, সঙ্গে ছিল ভাতিজা ডেমন ফিল্ডার। ক্যাশের ক্যাম্পারে সেবার আগুন ধরে যায়. সেখান থেকে ছড়িয়ে যায় গোটা বনেই। সে যাত্রায় আরেকটু হলেই প্রাণ হারিয়েছিলেন তিনি। ক্যাশ দাবী করেন, আগুনটা ধরেছিল তার ক্যাম্পারের ত্রূটিপূর্ণ এগজস্ট সিস্টেমের কারণে। তার বক্তব্য অবশ্য ফিল্ডার গ্রহণ করেননি। তিনি মনে করেন আগুনটা ক্যাশ নিজেই ধরিয়েছিলেন, মাতাল অবস্থায় উষ্ণতার খোঁজে। পরবর্তীতে নিয়ন্ত্রণের বাইরে চলে যাওয়ায় &nbsp; তা-ই ছড়িয়ে গেছে বনের মধ্যে। <ref>{{বই উদ্ধৃতি|শিরোনাম=Johnny Cash: The Life|শেষাংশ=Hilburn|প্রথমাংশ=Robert|তারিখ=October 29, 2013|প্রকাশক=Little, Brown and Company|আইএসবিএন=978-0-316-19475-4|সংস্করণ=ebook}}</ref> বিচারক যখন ক্যাশকে প্রশ্ন করলেন তিনি কেন এমনটা &nbsp; করেছেন,উত্তরে তিনি বলেছিলেন “আমি তো করিনি। করেছে আমার ট্রাক। সে এখন বেঁচে &nbsp; নেই, কাজেই তাকে আপনি কোনও প্রশ্ন করতে পারছেন না।”
 
এই দাবানলে ৫০৮ একর বনভূমি ধ্বংস হয়েছিল, তিনটি পাহাড়ের সব পর্ণরাজি পুড়ে চাই হয়ে যায়, সেই সাথে বিপন্নপ্রায় ৫৩ ক্যালিফোর্নিয়ার শকুনের ৪৯ টিই গৃহহীন হয়ে যায়। তথ্যটি জানার পর ক্যাশকে মোটেও অনুতপ্ত হতে দেখা যায়নি। বরং তিনি কেবল বলেছিলেন, “তোমাদের ওসব হলুদ পাখি নিয়ে আমার কোনও মাথাব্যথা নেই!”<ref name="LAT Hilburn">{{সংবাদ উদ্ধৃতি|ইউআরএল=http://articles.latimes.com/2013/oct/12/entertainment/la-et-ms-johnny-cash-calif|শিরোনাম=Johnny Cash's dark California days|শেষাংশ=Hilburn|প্রথমাংশ=Robert|তারিখ=October 12, 2013|কর্ম=[[LA Times]]|সংগ্রহের-তারিখ=20 February 2018}}</ref> ফেডারেল গভর্নমেন্ট তার থেকে ১২৫,১৭২ ডলার ক্ষতিপূরণ দাবী করে, শেষতক মামলাটা মিটমাট হয়েছিল ক্যাশ ৮২,০০১ ডলার দেওয়ার পর। ২০১৭ সালের হিসেবে অনুসারে গোটা বিশ্বেই বন্য এবং সংরক্ষিত সব মিলিয়ে মাত্র ৪৬৩টি ক্যালিফোর্নিয়া কনডোর রয়েছে।
 
এমন এক আইনবিরোধী ইতিহাস থাকার পরও ক্যাশকে কখনও জেলে যেতে হয়নি। সাত বার আদালতে হাজির হয়েছিলেন তিনি, অথচ প্রতিবার হাজতে মাত্র এক রাত কাটিয়েই বেরিয়ে গেছেন তিনি। ১৯৬৫ সালের মে মাসের ১১ তারিখ তাকে স্টার্কভাইলে গ্রেফতার করা হয়েছিল। অপরাধ: অন্যের জমিতে ঢুকে ফুল তুলছিলেন। এই ঘটনার কথা তিনি লিখেছিলেন স্টার্কভাইল সিটি জেইল গানে। একই বছর অক্টবরের ৪ তারিখ টেক্সাসে গ্রেফতার হয়েছিলেন নারকোটিক স্কোয়াডের হাতে। তাদের সন্দেহ ছিল মেক্সিকো থেকে তিনি হেরোইন পাচার করছিলেন। তার বদলে ওরা গায়কের গিটারের মধ্যে খুঁজে পেল ৬৮৮টি ডেক্সাড্রাইন ক্যাপসুল (মূলতঃ অ্যাম্ফিট্যামিন) আর ৪৭৫টি ইকুয়ারিল (সিডেটিভ)। অবৈধ মাদকদ্রব্যর বদলে প্রেসক্রিপশন ড্রাগস নিয়ে ধরা পড়েই বেঁচে গেলেন তিনি। স্বল্প সময়ের জন্য সাজা হল সে যাত্রা। ১৫০০ ডলারের &nbsp; একটি বন্ড স্বাক্ষর করে তবেই ছাড়া পেয়েছিলেন তিনি। <ref>{{সংবাদ উদ্ধৃতি|ইউআরএল=http://articles.latimes.com/2013/oct/12/entertainment/la-et-ms-johnny-cash-calif/3|শিরোনাম=Johnny Cash's dark California days|শেষাংশ=Hilburn|প্রথমাংশ=Robert|তারিখ=2013-10-12|কর্ম=Los Angeles Times|সংগ্রহের-তারিখ=2018-11-08|ভাষা=en-US|issn=0458-3035|আর্কাইভের-ইউআরএল=https://web.archive.org/web/20181110203523/http://articles.latimes.com/2013/oct/12/entertainment/la-et-ms-johnny-cash-calif/3|আর্কাইভের-তারিখ=২০১৮-১১-১০|অকার্যকর-ইউআরএল=হ্যাঁ}}</ref>
 
ষাটের দশকের মাঝামাঝি ক্যাশ বেশ কয়েকটি কনসেপ্ট অ্যালবাম প্রকাশ করেন। তার বিটার টিয়ার্স (১৯৬৪) অ্যালবাম তিনি নেটিভ আমেরিকানদের জন্য লিখেছিলেন, বলেছিলেন সরকারের করা তাদের প্রতি যত অনাচারের কথা। হিট চার্টে গানগুলি বেশ জনপ্রিয়তা পেলেও তীব্র সমালোচনা হয়েছিল রেডিও ও ভক্তদের মধ্যে। তাদের ধারণা ছিল এই গানগুলো থেকে সমাজে বিতর্ক জন্ম নিতে পারে। ২০১১ সালে এক বইয়ে এই অ্যালবামের কথা লেখা হওয়ার আগে ব্যাপারটি মানুষ ভুলেই গিয়েছিল। পরবর্তীতে পুরো অ্যালবামটিকেই সমসাময়িক &nbsp; গায়কদের সহায়তায় রি-রেকর্ড করা হয়। নির্মিত হয় এই অ্যালবামের জন্য ক্যাশের প্রচেষ্টা নিয়ে এক প্রামাণ্যচিত্রও। ২০১৬র ফেব্রূয়ারি ও নভেম্বরে সেই ফিল্ম সম্প্রচারিত হয় পিবিএসে। তার “হিজ সিংস &nbsp; দ্য ব্যালাডস অফ দ্য টু ওয়েস্ট (১৯৬৫)” ছিল এক পরীক্ষামূলক কাজ, ওখানে প্রান্তিক গায়কদের সঙ্গে কণ্ঠ মিলিয়েছিলেন ক্যাশ।
 
ধ্বংসাত্মক এই কাজগুলোর পাশাপাশি মাদকের আসক্তির কারণে প্রথম বিয়েটা টিকল না আর। শুধু বৈবাহিক জীবনই নয়, ক্যাশ বেশ কয়েকটি শো ক্যান্সেল করতে বাধ্য হন একই কারণে। অবশেষে ১৯৬৭ থেকে আবারও সফলতার দেখা পেতে শুরু করলেন তিনিম জুন কার্টারের সাথে জ্যাকসন গানে ডুয়েট করে একটি গ্র্যামি অ্যাওয়ার্ড পেয়ে যান তিনি। <ref>{{ওয়েব উদ্ধৃতি|ইউআরএল=http://www.grammy.com/nominees/search?artist=%22johnny+cash%22&field_nominee_work_value=&year=All&genre=All/|শিরোনাম=Past Winners Search|তারিখ=2017-04-30|ওয়েবসাইট=The GRAMMYs}}</ref>
 
শেষবার ক্যাশ গ্রেফতার হয়েছিলেন ১৯৬৭ সালে, জর্জিয়ার ওয়াকার কাউন্টিতে। সেবার গাড়ি দুর্ঘটনার পর যথারীতি এক ব্যাগ প্রেসক্রিপশন ড্রাগস পাওয়া গেল, পরিস্থিতি আরও খারাপ করতেই হয়ত তিনি সেই পুলিশ অফিসারকে ঘুষ সেধে বসলেন। নীতিপরায়ণ এই পুলিশ সেই ঘুষটি নেননি। বিখ্যাত গায়কের সেই রাতটা জর্জিয়ার লাফ্যায়াটের জেলে। শেরিফ রালফ জোনস তাকে ছাড়ার আগে দীর্ঘ এক ভাষণ দিয়ে তবেই &nbsp; ছাড়লেন,মনে করিয়ে দিলেন তিনি কিভাবে নিজের প্রতিভা নষ্ট করছেন। পরবর্তীতে এই ঘটনাটিকে তার পরিবর্তনের জন্য গুরুত্বপূর্ণ বলে স্বীকার করেছেন ক্যাশ। এমনকি লাফ্যায়াটেতে এক বেনিফিট কনসার্টের আয়োজন করেছিলেন তিনি। লোক এসেছিল ১২,০০০ অথচ শহরের অধিবাসীর সংখ্যাই তখন ৯০০০ এর কম। ৭৫,০০০ ডলার উঠেছিল সেই কনসার্ট থেকে। পুরোটাই চলে গেছিল হাই স্কুলের জন্য।<ref>{{উদ্ধৃতি|শিরোনাম=12 000 at LaFayette show}}</ref> ১৯৯৭ সালের এক ইন্টারভিউয়ে তিনি অতীতের কথা মনে করতে গিয়ে বলেছিলেন, “শুরুতে আমি পিল &nbsp; খেতাম,পরে পিলগুলোই আমাকে খেতে শুরু করল।”
 
১৯৬৭ সালের এক ঘটনার কথা জানা যায়, অবশ্য কেউ এই ঘটনার সত্যতা নিরূপণ করতে পারেননি, নিক্যাজ্যাক গুহায় তিনি অলৌকিক দর্শনের দেখা পেয়েছিলেন। গুজব অনুসারে, মাদকাসক্তির এক পর্যায়ে ক্যাশ আত্মহত্যার চেষ্টা করেছিলেন। গুহার গভীরে ঢুকে নিজেকে ছেড়ে দিয়েছিলেন তিনি, বাইরে আর ফেরার ইচ্ছে তার ছিল না। মরতে তিনি অবশ্য পারেননি, বরং জ্ঞান হারিয়ে পরে ছিলেন মেঝেতে। ক্রমভাবে হতাশ হয়ে তিনি হৃদয়ের মধ্যে যিশুর উপস্থিতি অনুভব করেন এবং এক সময় অনুভব করেন অদ্ভুত এক আলো তাকে গুহার বাইরে যাওয়ার পথ দেখাচ্ছে। <ref>{{সংবাদ উদ্ধৃতি|ইউআরএল=https://edition.cnn.com/2013/12/30/showbiz/music/johnny-cash-biography/index.html|শিরোনাম=The stories of Johnny Cash - CNN|শেষাংশ=CNN|প্রথমাংশ=By Todd Leopold,|কর্ম=CNN|সংগ্রহের-তারিখ=2018-11-08}}</ref> তার মনে হয়েছিল এই ঘটনার মাধ্যমে তিনি পূণর্জন্ম লাভ করেছেন। জুন, মেবেল আর এজরা কার্টার ক্যাশের প্রাসাদে চলেই এলেন তাকে আসক্তি থেকে দূরে থাকায় সাহায্য করতে। এরপর ১৯৬৮ সালের ২২শে ফেব্রুয়ারিতে লাইভ পারফরম্যান্সে স্টেজের ওপরই জুনকে প্রস্তাব দেন তিনি। কানাডার অন্টারিওর সেই প্রস্তাবনার এক সপ্তাহ পরুই এই প্রেমিকযুগল বিবাহবন্ধনে আবদ্ধ হন। ক্যাশ নেশার পথ থেকে সরে দাঁড়ানোর প্রতিশ্রুতি দেওয়ার পরই জুন সে প্রস্তাবে রাজি হয়েছিলেন বলে তিনি পরবর্তীতে জানান। <ref>{{বই উদ্ধৃতি|শিরোনাম=Will You Miss Me When I'm Gone: The Carter Family and Their Legacy in American Music|শেষাংশ=Zwonitzer|প্রথমাংশ=Mark|বছর=2002|প্রকাশক=Simon & Schuster|আইএসবিএন=978-0-684-85763-3}}</ref>
 
আত্মজীবনীতে ক্যাশ লিখেছিলেন ১৯৭৭ সালে নিউ ইয়র্কের এক ট্রিপে থাকা অবস্থায় তার দেহে শাই-ড্র্যাগার সিনড্রোম ধরা পড়েছিল। <ref>{{বই উদ্ধৃতি|শিরোনাম=Cash: The Autobiography|শেষাংশ=Cash|প্রথমাংশ=Johnny|শেষাংশ২=Carr|প্রথমাংশ২=Patrick|তারিখ=1998|প্রকাশক=HarperCollins Publishers|পাতাসমূহ=400–403|আইএসবিএন=0061013579}}</ref>
 
==তথ্যসূত্র==
{{সূত্র তালিকা}}
 
[[বিষয়শ্রেণী:২০শ শতাব্দীর মার্কিন অভিনেতা]]