"ইখতিয়ার উদ্দিন মুহাম্মাদ বিন বখতিয়ার খলজী" পাতাটির দুইটি সংশোধিত সংস্করণের মধ্যে পার্থক্য

দাড়ি সংশোধন
(চিত্র)
(দাড়ি সংশোধন)
ট্যাগ: মোবাইল সম্পাদনা মোবাইল ওয়েব সম্পাদনা দৃশ্যমান সম্পাদনা
}}
{{বাংলার ইতিহাস}}
'''ইখতিয়ার উদ্দিন মুহাম্মাদ বখতিয়ার খলজি''' ({{lang-fa|اختيار الدين محمد بن بختيار الخلجي}}) একজন আফগান সেনাপতি ও প্রাথমিক [[দিল্লি সুলতান|দিল্লি সুলতানাত]] সৈনিক জেনারেল ছিলেন এবং প্রথম [[মুসলিম]] যে [[বাংলা]] জয় করেছিল|করেছিল। পূর্ব ভারতে তার প্রতিষ্ঠার সময় আলিমদের ইসলামী দাওয়াতের কাজ সর্বাধিক সাফল্য অর্জন হয়েছিলো এবং ভারতীয় উপমহাদেশের ইতিহাসে বাংলায় সবচেয়ে বেশি মানুষ [[ইসলাম]] ধর্ম গ্রহণ করেছিল।<ref>{{বই উদ্ধৃতি|ইউআরএল=https://www.worldcat.org/oclc/53830951|শিরোনাম=The Bengal Sultanate : politics, economy and coins, A.D. 1205-1576|শেষাংশ=Hussain, Syed Ejaz.|তারিখ=2003|প্রকাশক=Manohar|অবস্থান=New Delhi|আইএসবিএন=8173044821|oclc=53830951}}</ref><ref>{{সাময়িকী উদ্ধৃতি|ইউআরএল=|শিরোনাম=Review of The Bengal Sultanate: Politics, Economy and Coins (AD 1205-1576)|শেষাংশ=|প্রথমাংশ=|তারিখ=|সাময়িকী=The Sixteenth Century Journal|খণ্ড=৩৬|পাতা=২৪৬-২৪৮|jstor=20477310|সংগ্রহের-তারিখ=|ডিওআই=10.2307/20477310}}</ref><ref>The preaching of Islam: a history of the propagation of the Muslim faith By Sir Thomas Walker Arnold, pp. 227-228</ref><ref>{{বই উদ্ধৃতি|ইউআরএল=https://www.worldcat.org/oclc/942846162|শিরোনাম=History of mediaeval Bengal|শেষাংশ=Majumdar, R. C. (Ramesh Chandra), 1888-1980,|অবস্থান=Kolkata|আইএসবিএন=8189118064|oclc=942846162}}</ref>
 
তিনি ভারত থেকে [[বৌদ্ধ ধর্ম]] প্রবলভাবে দুর্বল করে তুলেছিলেন।<ref name="Hartmut_2002">{{বই উদ্ধৃতি |লেখক=Hartmut Scharfe |শিরোনাম=Handbook of Oriental Studies |ইউআরএল=https://books.google.com/books?id=7s19sZFRxCUC&pg=PA150 |বছর=2002 |প্রকাশক=BRILL |আইএসবিএন=90-04-12556-6 |পাতা=150 |উক্তি=Nalanda, together with the colleges at Vikramasila and Odantapuri, suffered gravely during the conquest of Bihar by the Muslim general Muhammad Bhakhtiyar Khalji between A.D. 1197 and 1206, and many monks were killed or forced to flee.}}</ref> বখতিয়ার [[নদিয়া জেলা|নদিয়া]] শহর অধিকার করেন, তবে এই শহরে রাজধানী না করে গৌড়-লক্ষণাবতীতে গিয়ে রাজধানী স্থাপন করেন। তিনি প্রথম দিকে [[কুতুবুদ্দিন আইবেক|সুলতান কুতুবুদ্দিন আইবেকের]] মন্ত্রী ছিলেন|ছিলেন।
 
== পূর্ব জীবন ==
বখতিয়ার খলজি যাকে 'মালিক গাজি ইখতিয়ার উদ্দিন মুহাম্মদ বখতিয়ার খলজি হিসেবেও উল্লেখ করা হয়, ছিলেন মুসলিম খলজি উপজাতির একজন সদস্য।<ref>{{বই উদ্ধৃতি|ইউআরএল=https://www.worldcat.org/oclc/469652456|শিরোনাম=Medieval India : from Sultanat to the Mughals|শেষাংশ=Chandra, Satish, 1922- ...|প্রথমাংশ=|তারিখ=2005|বছর=|প্রকাশক=Har-Anand Publications|অবস্থান=New Delhi|পাতাসমূহ=৪১|আইএসবিএন=8124110646|oclc=469652456|সংস্করণ=সংশোধিত}}</ref> মুসলিম খলজি উপজাতি উত্তর-পূর্বের প্রায় সকল দখল-যুদ্ধে যোগদানকারী সেনাবাহিনীর অধিপতিদের কাজে নিযুক্ত ছিল।
 
ইখতিয়ার উদ্দিন বখতিয়ার খলজি ছিলেন জাতিতে তুর্কি আর পেশায় ভাগ্যান্বেষী সৈনিক। জীবনের প্রথম ভাগে তিনি ছিলেন [[আফগানিস্তান|আফগানিস্তানের]] গরমশির বা আধুনিক দশত-ই-মার্গের অধিবাসী<ref>Social History of the Muslim of Bengal, Abul Karim পৃষ্ঠাঃ ৮৬</ref>। তার বাল্যজীবন সম্বন্ধে বিশেষ কিছু জানা যায় না। তবে মনে করা হয় দারিদ্রের পীড়নে তিনি স্বদেশ ত্যাগ করেন এবং নিজের কর্মশক্তির উপর ভর করে অন্যান্য দেশবাসীর ন্যায় ভাগ্যান্বেষণে বের হন। প্রথমেই তিনি গজনির সুলতান মুহাম্মাদ ঘুরির সৈন্যবাহিনীতে চাকুরিপ্রার্থী হয়ে ব্যর্থ হন। আকারে খাটো, লম্বা হাত এবং কুৎসিত চেহারার অধিকারী হওয়ায় সেনাধ্যক্ষের দৃষ্টি আকর্ষণ করতে ব্যর্থ হন। গজনীতে ব্যর্থ হয়ে তিনি দিল্লিতে [[কুতুবুদ্দিন আইবেক|কুতুবউদ্দীন আইবেকের]] দরবারে হাজির হন। এখানেও তিনি চাকরি পেতে ব্যর্থ হন। অতঃপর তিনি বদাউনে যান। সেখানকার শাসনকর্তা মালিক হিজবর-উদ্দিন বখতিয়ার খলজিকে নগদ বেতনে সেনাবাহিনীতে চাকরি প্রদান করেন। কিন্তু উচ্চভিলাসি বখতিয়ার সামান্য বেতনভোগী সিপাহি হয়ে পরিতৃপ্ত হতে পারেন নি। অল্পকাল পর তিনি বদাউন ত্যাগ করে অযোদ্ধায় যান। অযোদ্ধার শাসনকর্তা হুসামউদ্দিন তাকে বর্তমান মির্জাপুর জেলার পূর্ব দক্ষিণ কোণে ভগবৎ ও ভিউলি নামক দুইটি পরগনার জায়গির প্রদান করেন। এখানেই বখতিয়ার তার ভবিষ্যৎ উন্নতির উৎস খুঁজে পান এবং এই দুটি পরগনাই পরবর্তীকালে তার শক্তির উৎস হয়ে ওঠেওঠে।<ref>বাংলাদেশের ইতিহাস- ড. মুহাম্মদ আব্দুর রহিম। পৃষ্ঠাঃ ১৪৯</ref>
 
== বিহার বিজয় ==