খালেদ মোশাররফ: সংশোধিত সংস্করণের মধ্যে পার্থক্য

বট নিবন্ধ পরিষ্কার করেছে। কোন সমস্যায় এর পরিচালককে জানান।
(বট নিবন্ধ পরিষ্কার করেছে। কোন সমস্যায় এর পরিচালককে জানান।)
(বট নিবন্ধ পরিষ্কার করেছে। কোন সমস্যায় এর পরিচালককে জানান।)
}}
 
'''খালেদ মোশাররফ''' ([[১৯৩৭]]-[[১৯৭৫]]) একজন বাংলাদেশি মুক্তিযোদ্ধা ও সামরিক বাহিনীর কর্মকর্তা ছিলেন। ১৯৭১ সালের মুক্তিযুদ্ধে খালেদ মুক্তিবাহিনীর ২ নং সেক্টরের সেক্টর কমান্ডার এবং 'কে-ফোর্স'-এর সর্বাধিনায়ক ছিলেন। বীরত্বের জন্য তাকে [[বীর উত্তম]] পদক দেওয়া হয়। ১৯৭৫ সালের নভেম্বর ৩ তারিখে তিনি সামরিক অভ্যুত্থানের মাধ্যমে ক্ষমতা দখল করেন। এর মাত্র ৩ দিন পরে [[৭ নভেম্বর]] তারিখে তিনি এক পাল্টা অভ্যুত্থানে নিহত হন।<ref>[http://archive.prothom-alo.com/detail/date/2012-11-07/news/303385 দৈনিক প্রথম আলো, "তোমাদের এ ঋণ শোধ হবে না"| তারিখ: ০৭-১১-২০১২]</ref>
 
== জন্ম ==
'''খালেদ মোশাররফ''' [[জামালপুর জেলা|জামালপুর জেলার]] [[ইসলামপুর উপজেলা|ইসলামপুর থানার]] মোশাররফগঞ্জ গ্রামে [[১৯৩৭]] সালের ১ নভেম্বর জন্মগ্রহণ করেন<ref name="gunijan.org">{{ওয়েব উদ্ধৃতি |শিরোনাম=সংরক্ষণাগারভুক্ত অনুলিপি |ইউআরএল=http://www.gunijan.org/GjProfDetails_action.php?GjProfId=157 |সংগ্রহের-তারিখ=১২ মার্চ ২০১২ |আর্কাইভের-ইউআরএল=https://web.archive.org/web/20130826055317/http://www.gunijan.org/GjProfDetails_action.php?GjProfId=157 |আর্কাইভের-তারিখ=২৬ আগস্ট ২০১৩ |অকার্যকর-ইউআরএল=হ্যাঁ }}</ref>।
 
== পরিবার ==
 
== শিক্ষা ==
তিনি [[কক্সবাজার সরকারি উচ্চ বিদ্যালয়]] থেকে [[১৯৫৩]] সালে মেট্রিক পাশ করেন<ref>{{ওয়েব উদ্ধৃতি |ইউআরএল=http://gunijan.org.bd/GjProfDetails_action.php?GjProfId=157 |লিপির-শিরোনাম=খালেদ মোশাররফ |শেষাংশ=Dola |প্রথমাংশ=Shamima |ওয়েবসাইট=[[গুলজান|গুলজান ট্রাস্ট]] |সংগ্রহের-তারিখ=20 June 2015}}</ref> এবং [[১৯৫৫]] সালে [[ঢাকা কলেজ]] থেকে ইন্টারমেডিয়েট পাশ করেন। অতঃপর তিনি পাকিস্তানের [[কাকুল মিলিটারি একাডেমী]]তে যোগ দেন।
 
== সেনাবাহিনীতে মোশাররফ ==
 
[[১৯৫৭]] সালে সেনাবাহিনীতে কমিশন লাভের পর প্রায় আট বছর ([[১৯৫৭]]-[[১৯৬৫]]) তিনি বিভিন্ন সেনা প্রশিক্ষণ কেন্দ্রে প্রশিক্ষণ লাভ করেন। [[১৯৬৫]] সালের পাক-ভারত যুদ্ধের সময় খালেদ মোশাররফ চতুর্থ বেঙ্গল রেজিমেন্টের অ্যাডজুটেন্ট হিসেবে নিয়োগ লাভ করেন। যুদ্ধের পর তিনি কাকুল মিলিটারি একাডেমিতে প্রশিক্ষক হিসেবে যোগ দেন। সেখান থেকে গ্রাজুয়েশন সম্পন্ন করার পর তিনি মেজর হিসেবে পদোন্নতি লাভ করেন। [[১৯৬৮]] সালে তিনি [[কোয়েটা]] স্টাফ কলেজ থেকে পি.এস.সি. ডিগ্রি লাভ করেন এবং তাকে ব্রিগেড মেজর হিসেবে খারিয়াতে ৫৭- ব্রিগেডে নিয়োগ দেওয়া হয়। তার যখন জার্মানি ও যুক্তরাজ্যে সেনা-প্রশিক্ষণে যাওয়া কথা, তখন ১৯৭০ সালের মার্চে তাকে ঢাকা বদলি করা হয়।
 
== মুক্তিযুদ্ধ ==
== মুক্তিযুদ্ধ পরবর্তী সময় ==
 
যুদ্ধের পর খালেদ মোশাররফ [[ঢাকা]] সেনা সদর দপ্তরে স্টাফ অফিসার হিসেবে নিয়োগ লাভ করেন। পরে তিনি [[বাংলাদেশ]] সেনাবাহিনীর চীফ অব জেনারেল স্টাফ হিসেবে নিয়োগ লাভ করেন। মুক্তিযুদ্ধে বীরত্বপূর্ণ ভূমিকা পালনের জন্য বাংলাদেশ সরকার ১৯৭২ সালে খালেদ মোশাররফকে '''[[বীর উত্তম]]''' উপাধিতে ভূষিত করে। বঙ্গবন্ধু [[শেখ মুজিবুর রহমান|শেখ মুজিবুর রহমানের]] সপরিবারে নিহত হবার পর [[নভেম্বর ৩|৩ নভেম্বর]], [[১৯৭৫]] সালে একটি সামরিক অভ্যুত্থানের নেতৃত্ব দেন। ঐ সময় তিনি সেনাপ্রধান মেজর জেনারেল [[জিয়াউর রহমান|জিয়াউর রহমানকে]] গৃহবন্দি করেন এবং নিজেকে মেজর জেনারেল পদে উন্নীত করে সেনাপ্রধান হন । ঠিক তিন দিন পর [[নভেম্বর ৭|৭ নভেম্বর]] আরেকটি পাল্টা অভ্যুত্থানে তিনি নিহত হন।
 
== হত্যা ==
১,৯৬,০১৪টি

সম্পাদনা