মোশাররফ হোসেন (রাজনীতিবিদ): সংশোধিত সংস্করণের মধ্যে পার্থক্য

বট নিবন্ধ পরিষ্কার করেছে। কোন সমস্যায় এর পরিচালককে জানান।
(বট নিবন্ধ পরিষ্কার করেছে। কোন সমস্যায় এর পরিচালককে জানান।)
(বট নিবন্ধ পরিষ্কার করেছে। কোন সমস্যায় এর পরিচালককে জানান।)
মহান মুক্তিযুদ্ধে তিনি সেক্টর - ১ এর সাব - সেক্টর কমান্ডার ছিলেন। পাক-হানাদারদের বাঙালি নিধন এর নীলছক এর কালোরাত্রির তান্ডবটি শুধুমাত্র ঢাকা ও অন্য জেলাগুলোতে নয়, দেশের দ্বিতীয় গুরুত্বপূর্ণ শহর ও বাণিজ্যিক রাজধানী চট্টগ্রামেও হওয়ার কথা ছিল। তারই প্রক্রিয়ায় বাঙালী জাতীয়তাবাদে উদ্ধুদ্ব ব্রিগেডিয়ার মজুমদারকে চট্টগ্রাম থেকে সরিয়ে নেয়া হয়েছিল। চট্টগ্রামে বাঙালি ও পশ্চিম পাকিস্তানী সৈন্য ছিল যথাক্রমে প্রায় ৫ হাজার ও ৬শত। বাঙালী সৈন্যদের মধ্যে ছিল ইস্ট বেঙ্গল সেন্টারে নব-গঠিত অষ্টম ইস্ট বেঙ্গল এর নতুন প্রায় ২৫০০ জন প্রশিক্ষণপ্রাপ্তরা। ছিল ইস্ট পাকিস্তান রাইফেলস এর উইং ও সেক্টর হেড কোয়ার্টার এর রাইফেলসরা এবং পুলিশ বাহিনী। পশ্চিম পাকিস্তানী সৈন্যরা ছিল মূলত ২০-বালুচ এর। ২৫ শে মার্চ এর বিধ্বংসী কালোরাত চট্টগ্রামে পুনরাবৃত্তি করার জন্য চট্টগ্রামের সিনিয়র অবাঙালী অফিসার লেফটেন্যান্ট কর্নেল ফতেমিকে আদেশ দেয়া হয়, কুমিল্লা থেকে অতিরিক্ত সৈন্য পৌছানোর মধ্যে যেন সমন্ত পরিস্থিতি নিজের অনুকূলে ধরে রাখেন।
 
চট্টগ্রামে কালোরাত্রির নৃশংসতা ঠেকাতে ইঞ্জিনিয়ার মোশাররফ হোসেনের নেতৃত্বে সাহসী বীর বাঙালী যোদ্ধারা শুভপুর ব্রীজ উড়িয়ে দিয়ে কুমিল্লা থেকে আগমনকারী সেনাদলের পথ বন্ধ করে দেন এবং চট্টগ্রাম শহর ও ক্যান্টনমেন্টের প্রধান প্রধান এলাকা নিজেদের নিয়ন্ত্রনেনিয়ন্ত্রণে এনে ফেলেন।পরবর্তীতে তিনি সি.ইন.সি স্পেশাল ট্রেনিং নিয়ে দেশের অভ্যন্তরে প্রবেশ করে বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ অপারেশন পরিচালনা করেন।
 
==আরও দেখুন==
১,৯৬,০১৪টি

সম্পাদনা