"বিল কপসন" পাতাটির দুইটি সংশোধিত সংস্করণের মধ্যে পার্থক্য

বট নিবন্ধ পরিষ্কার করেছে। কোন সমস্যায় এর পরিচালককে জানান।
(বট নিবন্ধ পরিষ্কার করেছে। কোন সমস্যায় এর পরিচালককে জানান।)
(বট নিবন্ধ পরিষ্কার করেছে। কোন সমস্যায় এর পরিচালককে জানান।)
প্রথম-শ্রেণীর খেলায় ডার্বিশায়ারের পক্ষে খেলেছেন। এ সময়ে তিনি সহস্রাধিক উইকেটের সন্ধান পেয়েছেন। তন্মধ্যে, ১৯৩৬ সালের কাউন্টি চ্যাম্পিয়নশীপে দূর্দান্ত ক্রীড়াশৈলী প্রদর্শন করেছেন। [[সারে কাউন্টি ক্রিকেট ক্লাব|সারে দলের]] বিপক্ষে অভিষেক ঘটা ঐ খেলায় সারের ব্যাটসম্যান [[অ্যান্ডি স্যান্ডহাম|অ্যান্ডি স্যান্ডহামকে]] নিজের প্রথম বলেই বিস্ময়করভাবে আউট করেন। তবে মৌসুমের বাদ-বাকী সময় তার ক্রীড়াশৈলী মাঝারিমানের ছিল।
 
১৯৩৩ সালে কপসনকে ডার্বিশায়ার দলের নিয়মিত সদস্যের মর্যাদা লাভ করেন। স্বল্প দূরত্ব থেকে দৌঁড়ে বোলিং করলেও ফাস্ট বোলারদের ন্যায় ক্রীড়াশৈলী উপস্থাপন করতেন। গ্রীষ্মের অনুপযোগী পিচেও তিনি সফলতা পেয়েছেন। পরবর্তী দুই মৌসুমে কপসন আঘাতে জর্জরিত ছিলেন। ফলে তার শারীরিক সক্ষমতা নিয়ে দুঃশ্চিন্তার ঘনঘটা দেখা দেয়। সুস্থ হয়ে আসার পর তার খেলায় প্রভূতঃ উন্নতি সাধিত হয়। ১৯৩৫ সালে বোলিং গড়ে ডার্বিশায়ারের বোলারদের শীর্ষে ছিলেন। যে-কোন সময়ের পূর্বে কিংবা পরবর্তী সময়ে সর্বাপেক্ষা বেশীবেশি জয়ের দেখা পায় ডার্বিশায়ার দল।
 
স্কেগনেসে শারীরিক সুস্থতার জন্য চলে যান। ফিরে আসার পর ১৯৩৬ সালে দারুণভাবে ফিরে আসেন। বাজে পিচে শক্তিশালী সারে দলের ব্যাটিংয়ের উপর খড়গ হস্ত চালিয়ে ১২/৫২ লাভ করেন যা তার সেরা বোলিং পরিসংখ্যান হিসেবে রয়ে যায়। [[কাউন্টি চ্যাম্পিয়নশীপ|কাউন্টি চ্যাম্পিয়নশীপে]] ১৩-এর কম গড়ে ১৪০ উইকেট পান। ফলশ্রুতিতে মৌসুম শেষে [[দি অ্যাশেজ|অ্যাশেজ সফরের]] জন্য মনোনীত হন। সকল খেলায় শীর্ষস্থানে থাকলেও বেশ শক্ত অস্ট্রেলীয় পিচে অসীম সময়ের খেলার জন্য তার বোলিং উপযুক্ত হিসেবে বিবেচিত হয়নি। ফলে কোন টেস্টে অংশগ্রহণ করেননি তিনি।
১,৬৪,৩৯৫টি

সম্পাদনা