"ফজলে হাসান আবেদ" পাতাটির দুইটি সংশোধিত সংস্করণের মধ্যে পার্থক্য

ভূমিকা সম্প্রসারণ
(প্রারম্ভিক কর্মজীবন সম্প্রসারণ)
(ভূমিকা সম্প্রসারণ)
}}
 
স্যার '''স্যার ফজলে হাসান আবেদ''', কেসিএমজি (২৭ এপ্রিল ১৯৩৬ - ২০ ডিসেম্বর ২০১৯) ছিলেন একজন [[বাংলাদেশ|বাংলাদেশী]] সমাজকর্মী এবং বিশ্বের বৃহত্তম{{তথ্যসূত্র প্রয়োজন}} বেসরকারি সংগঠন [[ব্র্যাক|ব্র্যাকের]] প্রতিষ্ঠাতা ও চেয়ারম্যান।<ref>{{সংবাদ উদ্ধৃতি |শিরোনাম=স্যার ফজলে হাসান আবেদ আর নেই |ইউআরএল=https://www.kalerkantho.com/online/national/2019/12/20/853182?fbclid=IwAR2Gop0MrTBRXOjIavTsZfrlbmY0SlhbQx3r9dYVtDcW0FCf_N_nqST7q64 |সংগ্রহের-তারিখ=২০ ডিসেম্বর ২০১৯ |কর্ম=[[দৈনিক কালের কণ্ঠ]] |তারিখ=২০ ডিসেম্বর ২০১৯ |ভাষা=bn}}</ref> সামাজিক উন্নয়নে তার অসামান্য ভূমিকার জন্য তিনি [[র‌্যামন ম্যাগসেসে পুরস্কার]], স্প্যানিশ অর্ডার অব সিভিল মেরিট, লিও তলস্তয় আন্তর্জাতিক স্বর্ণ পদক, [[জাতিসংঘ উন্নয়ন সংস্থা|জাতিসংঘ উন্নয়ন সংস্থার]] মাহবুবুল হক পুরস্কার এবং [[গেটস ফাউন্ডেশন|গেটস ফাউন্ডেশনের]] বিশ্ব স্বাস্থ্য পুরস্কার এবং শিক্ষাক্ষেত্রের নোবেল বলে খ্যাত [[ইয়াইদান পুরস্কার]] লাভ করেছেন। <ref>{{ওয়েব উদ্ধৃতি|ইউআরএল=https://www.prothomalo.com/opinion/article/1617393|শিরোনাম=ফজলে হাসান আবেদ এক আলোকবর্তিকা|ওয়েবসাইট=প্রথম আলো|ভাষা=bn|সংগ্রহের-তারিখ=2019-12-20}}</ref> দারিদ্র বিমোচন এবং দরিদ্রের ক্ষমতায়নে বিশেষ ভূমিকার স্বীকৃতিস্বরূপ ব্রিটিশ সরকার তাকে নাইটহুডে<ref>"Knight Commander of the Most Distinguished Order of St Michael and St George" (KCMG)</ref> ভূষিত করে।
 
২০১৪ ও ২০১৭ সালে ফরচুন ম্যাগাজিনের "বিশ্বের ৫০ সেরা নেতার তালিকা"য় তার নাম অন্তর্ভুক্ত হয়। তিনি স্বনামধন্য গ্লোবাল একাডেমি ফর সোশ্যাল অন্ট্রপ্রনোরশিপের প্রতিষ্ঠাতা সদস্য। বাংলাদেশে ও আন্তর্জাতিক অঙ্গনে দারিদ্র বিমোচন এবং দরিদ্রের ক্ষমতায়নে বিশেষ ভূমিকার স্বীকৃতিস্বরূপ ২০০৯ সালে ব্রিটিশ সরকার তাকে সবচেয়ে সম্মানিত অর্ডার অব সেন্ট মাইকেল অ্যান্ড সেন্ট জর্জের নাইট কমান্ডার উপাধিতে ভূষিত করে।<ref>"Knight Commander of the Most Distinguished Order of St Michael and St George" (KCMG)</ref> তিনি অসংখ্য সম্মানসূচক ডিগ্রিতে ভূষিত হয়েছেন, তন্মধ্যে রয়েছে [[ইয়েল বিশ্ববিদ্যালয়]] (২০০৭), [[কলাম্বিয়া বিশ্ববিদ্যালয়]] (২০০৮), [[অক্সফোর্ড বিশ্ববিদ্যালয়]] (২০০৯) ও [[প্রিন্সটন বিশ্ববিদ্যালয়]] (২০১৪) থেকে সম্মানসূচক ডিগ্রি।
 
== প্রারম্ভিক জীবন ==