"হামুদুর রহমান কমিশন" পাতাটির দুইটি সংশোধিত সংস্করণের মধ্যে পার্থক্য

বট নিবন্ধ পরিষ্কার করেছে। কোন সমস্যায় এর পরিচালককে জানান।
ট্যাগ: মোবাইল সম্পাদনা মোবাইল ওয়েব সম্পাদনা
(বট নিবন্ধ পরিষ্কার করেছে। কোন সমস্যায় এর পরিচালককে জানান।)
== সম্পূরক প্রতিবেদন ==
তদন্ত ১৯৭৪ সালে পুনরায় শুরু করা হয়, যখন [[পূর্ব পাকিস্তান|পূর্ব পাকিস্তানে]] আটক বন্দিদের ভারত মুক্তি দেয় এবং তাদের সাথে কথা বলার সুযোগ তৈরি হয়। কমিশন ৩ জুন, ১৯৭৪ সালে [[লাহোর|লাহোরে]] এক অনানুষ্ঠানিক বৈঠকে বসে এবং বিভিন্ন প্রাসঙ্গিক বিষয় নিয়ে আলোচনা করে এবং ১৬ জুলাই, ১৯৭৪ [[অ্যাবোটাবাদ|অ্যাবোটাবাদে]] তদন্ত পুনরায় শুরুর সিদ্ধান্ত নেয়। ১৯৭৪ সালে তদন্ত পুনরায় শুরুর পরে কমিশন ৭৩ জন আমলা এবং উচ্চ পদস্ত সামরিক কর্মকর্তার সাথে কথা বলে। কমিশন ৩০০ জনের মত সাক্ষ্য এবং শত শত গোপন দলিল এবং পূর্ব এবং পশ্চিম পাকিস্তানের সামরিক সংকেত পরীক্ষা করে দেখে। চূড়ান্ত প্রতিবেদন, যেটিকে সম্পূরক প্রতিবেদনও বলা হয়, ১৯৭৪ সালের ২৩ অক্টোবর জমা দেয়া হয়, যেখানে দেখান হয়েছে রাজনৈতিক, প্রশাসনিক, সামরিক ও নৈতিক ব্যর্থতা পূর্ব পাকিস্তানে কিভাবে পাকিস্তানি সেনাদের আত্মসমর্পণের জন্য দায়ী। <ref name="IndiaToday1"/> এই প্রতিবেদন গোপনীয় এবং বিভিন্ন সামরিক অফিসারের বক্তব্যে এর সম্পর্কে শুধুই অনুমিত।<ref name="PakStory"/>
এই প্রতিবেদনে পাঁচ অধ্যায় এবং একটি সংযোজনী আছে -
 
# অধ্যায় এক – নৈতিক দৃষ্টিভঙ্গি
১,৭৯,৯৩৩টি

সম্পাদনা