"সৎসঙ্গ" পাতাটির দুইটি সংশোধিত সংস্করণের মধ্যে পার্থক্য

→‎সৎসঙ্গ ফিলানথ্রপি: এখানে তার উদ্দেশ্যে নিবেদিত ভক্ত-অনুরাগীদের স্বতঃস্বেচ্ছ ইষ্টার্ঘ্য(ইষ্টভৃতি সহ অনান্য) গৃহিত হয় >এখানে তার উদ্দেশ্যে নিবেদিত ভক্ত-অনুরাগীদের স্বতঃস্বেচ্ছ ইষ্টার্ঘ্য(ইষ্টভৃতি সহ অনান্য) গৃহীত হয়
(→‎আশ্রমের জায়গার পূর্ব ইতিহাস: এক সময় সারা সাঁওতাল পরগণাটি ছিল বাংলাদেশের অন্তর্ভূক্ত। ১৯১১ সালে চলে যায় বিহার প্রদেশে। কিন্তু বহু বাঙালি রয়ে গেল দেওঘরে।)
(→‎সৎসঙ্গ ফিলানথ্রপি: এখানে তার উদ্দেশ্যে নিবেদিত ভক্ত-অনুরাগীদের স্বতঃস্বেচ্ছ ইষ্টার্ঘ্য(ইষ্টভৃতি সহ অনান্য) গৃহিত হয় >এখানে তার উদ্দেশ্যে নিবেদিত ভক্ত-অনুরাগীদের স্বতঃস্বেচ্ছ ইষ্টার্ঘ্য(ইষ্টভৃতি সহ অনান্য) গৃহীত হয়)
১৯৪৬ সালে শ্রীশ্রীঠাকুর পাবনা থেকে দেওঘর চলে আসার পর থেকেই এখানেও ধীরে ধীরে গড়ে ওঠে পাবনার মতো কর্ম-প্রতিষ্ঠান। মানুষের প্রয়োজনেই সেগুলো ক্রমশঃ গড়ে উঠেছে এবং নিরন্তর নিত্য নব কর্ম প্রবাহ সৃষ্টি হয়েই চলেছে এখানে। বর্তমানে দেওঘর সৎসঙ্গ আশ্রমে নিম্নলিখিত কর্ম-প্রতিষ্ঠানগুলি রয়েছে:
=====সৎসঙ্গ ফিলানথ্রপি=====
সৎসঙ্গের মূল কার্য্যালয়। লোককল্যাণের উদ্দেশ্যে শ্রীশ্রীঠাকুর ফিলানথ্রপি নির্মাণ করেছিলেন। এখানে তার উদ্দেশ্যে নিবেদিত ভক্ত-অনুরাগীদের স্বতঃস্বেচ্ছ ইষ্টার্ঘ্য(ইষ্টভৃতি সহ অনান্য) গৃহিতগৃহীত হয় এবং উপযুক্ত হিসাব-নিকাশ রক্ষা করা হয়। শ্রীশ্রীঠাকুরের শত-সহস্র কর্মকান্ডের উদ্দেশ্যে যাবতীয় অর্ঘ্য একমাত্র ফিলানথ্রপিতেই নিবেদিত হয়। ক্রমবর্ধমান কাজের ভার লাঘব তথা তড়িৎগতিতে কার্যক্রম সম্পাদনের জন্য বর্তমানে ফিলানথ্রপিতে অত্যাধুনিক কম্পিউটিং ব্যবস্থা করা হয়েছে। ঋত্বিক সংঘের কার্যালয়ও ফিলানথ্রপিতেই রয়েছে। নির্দেশ এবং আশীর্বাদ সম্বলিত পত্রোত্তরের উদ্দেশ্যেও এখানে একটি বিরাট বিভাগ রয়েছে। এছাড়াও অনান্য অগণিত কর্মের সুষ্ঠুতার জন্য আরও বহু বিভাগ রয়েছে। <ref>দয়াল ঠাকুর, পৃষ্ঠা:৬২</ref>
 
=====আনন্দবাজার=====
শ্রীশ্রীঠাকুরের কাছে আগত ভক্তবৃন্দ যাতে অভুক্ত হয়ে ফিরে না যান, তার জন্য মাতা মনোমোহিনী দেবী সর্বদা সচেষ্ট থাকতেন এবং তাদের খাওয়া-দাওয়ার ব্যবস্থা করতেন। কালে কালে তা ‘আনন্দবাজার’ হিসাবে পরিচিত হয়। পরিস্থিতির পরিবর্তনে এখন এটি ব্যাপক রূপ ধারণ করেছে। এখন নিত্য হাজার হাজার ভক্তগণ দুইবেলা নিঃশুল্ক প্রসাদ গ্রহণ করেন। এছাড়াও উৎসব উপলক্ষে আগত লক্ষাধিক ভক্তজন ও নিকটবর্তী অঞ্চলের অধিবাসীগণ প্রসাদ গ্রহণ করে ধন্য হন। বর্তমানে ডিজেলজালিত চুল্লির সাহায্যে রন্ধন করা হয়। দেওঘরে নির্মিত বিশাল অট্টালিকায় এখন আনন্দবাজারের কার্যাবলি সম্পাদিত হয় যা ‘আনন্দবাজার ভবন’ নামে পরিচিত। । <ref>দয়াল ঠাকুর, পৃষ্ঠা:৬২-৬৩</ref>
৩১৯টি

সম্পাদনা