"বাংলা ভাষা আন্দোলন" পাতাটির দুইটি সংশোধিত সংস্করণের মধ্যে পার্থক্য

ট্যাগ: মোবাইল সম্পাদনা মোবাইল ওয়েব সম্পাদনা
ট্যাগ: মোবাইল সম্পাদনা মোবাইল ওয়েব সম্পাদনা
| সূত্র = Harvnb | jstor=2056443}}</ref>
পূর্ব বাংলার মানুষের মাতৃভাষা ছিল বাংলা অপর দিকে পশ্চিম পাকিস্তানের সংখ্যাগুরু মানুষের মুখের ভাষা ছিল পাঞ্জাবি৷ পাকিস্তানে পাঁচটি প্রদেশের মানুষের পাঁচটি ভিন্ন ভিন্ন মাতৃভাষা ছিল। পাঞ্জাবের মানুষের মাতৃভাষা ছিল পাঞ্জাবী, সিন্ধু প্রদেশের মানুষের মাতৃভাষা ছিল সিন্ধি, উত্তর পশ্চিম সীমান্ত প্রদেশের মানুষের মাতৃভাষা ছিল পশতু, বেলুচিস্তানের মানুষের মানুষের মাতৃভাষা ছিল বেলুচি, পূর্ব বাংলার মানুষের মাতৃভাষা ছিল বাংলা। মোট জনসংখ্যার হিসাবে বাংলা ছিল ৫৬% মানুষের মুখের ভাষা। উর্দু পাকিস্তানের পাঁচ প্রদেশের কোন প্রদেশের মানুষের মাতৃভাষা ছিল না৷ এমন কি পাকিস্তানের প্রতিষ্ঠাতা জিন্নাহর মাতৃভাষাও ছিল গুজরাটি, উর্দু নয়। ১৯৪৭ সালে পাকিস্তানের মোট জনসংখ্যার মাত্র ২% উর্দুতে কথা বলত৷ উর্দুকে রাষ্ট্র ভাষা করার সিধান্ত নিয়ে শুধুমাত্র পূর্ব বাংলার প্রতি অন্যায় নয় বরং পশ্চিম পাকিস্তানের বাকী চারটি টি প্রদেশের প্রতিও অন্যায় করা হয়৷ কারন পশ্চিম পাকিস্তানের বাকী চারটি টি প্রদেশের মাতৃভাষাও উর্দু ছিল না৷
 
১৯৪৭ সালে [[করাচী|করাচীতে]] অনুষ্ঠিত জাতীয় শিক্ষা সম্মেলনের একটি গুরুত্বপূর্ণ ঘোষণাপত্রে উর্দুকে পাকিস্তানের একমাত্র রাষ্ট্রভাষা হিসেবে ব্যবহারের সুপারিশসহ প্রচারমাধ্যম ও বিদ্যালয়ে কেবলমাত্র উর্দু ব্যবহারের প্রস্তাব করা হয়।<ref>{{সংবাদ উদ্ধৃতি
| সংবাদপত্র =Morning News | তারিখ =7 December 1947
৫৩টি

সম্পাদনা