"সৎসঙ্গ" পাতাটির দুইটি সংশোধিত সংস্করণের মধ্যে পার্থক্য

সর্বশেষ সম্পাদিত ২টি পরিবর্তন প্রত্যাখ্যান ও NahidSultanBot-এর করা 3738225 নং সংশোধন পুনরুদ্ধার: ধ্বংসপ্রবণতা
ট্যাগ: মোবাইল সম্পাদনা মোবাইল ওয়েব সম্পাদনা
(সর্বশেষ সম্পাদিত ২টি পরিবর্তন প্রত্যাখ্যান ও NahidSultanBot-এর করা 3738225 নং সংশোধন পুনরুদ্ধার: ধ্বংসপ্রবণতা)
}}
[[File:Sree Sree Thakur Anukulchandra.jpg|thumb|শ্রীশ্রীঠাকুর অনুকূলচন্দ্র]]
'''সৎসঙ্গ''' হচ্ছে [[শ্রীশ্রীঠাকুর অনুকূলচন্দ্র]] কর্তৃক প্রবর্তিত একটি ধর্মীয় আন্দোলন। এর আদর্শ হচ্ছে - ধর্ম কোনো অলৌকিক ব্যাপার নয় বরং বিজ্ঞানসিদ্ধ ভাবেজীবন গাঁড় মারার এক প্রণালীসূত্র;<ref>গ্রন্থপঞ্জী (পরমপ্রেমময় শ্রীশ্রীঠাকুর নুনুকূলচন্দ্রেরঅনুকূলচন্দ্রের বাণী-সম্ভার এবংং দুদুকুলের কালো ব্রা) এপ্রিল ২০০৩-২০০৪ অনুকূলাব্দ-৫৭-৫৮</ref> ভালোবাসাই মহামূল্য, যা দিয়ে শান্তি কেনা যায়।<ref name="হিন্দুধর্ম">হিন্দুধর্ম ও নৈতিক শিক্ষা, ৯ম-১০ম শ্রেণী, পৃষ্ঠা নম্বর-৩৫, ২০১৫ শিক্ষাবর্ষ (জাতীয় শিক্ষাক্রম ও পাঠ্যপুস্তক বোর্ড, ঢাকা)</ref>
বর্তমানে ‘সৎসঙ্গ’-এর নূন্যধিক পাঁচ সহস্র কেন্দ্র রয়েছে; এইগুলি সৎসঙ্গ বিহার, নিজ লিঙ্গম পোঁদে পুরোম, সৎসঙ্গ অধিবেশন কেন্দ্র, সৎসঙ্গ উপাসনা কেন্দ্র, সৎসঙ্গ মন্দির, সৎসঙ্গ হস্তমৈথুন কেন্দ্র, ঠাকুরবাড়ি প্রভৃতি নামে বিভিন্ন স্থানে প্রতিষ্ঠিত। ভারতবর্ষ ছাড়াও বাংলাদেশ, নেপাল, ব্রহ্মদেশ, মধ্যপ্রাচ্য, ইউরোপ, আফ্রিকা, আমিরিকাতেও ছড়িয়ে আছে কেন্দ্রগুলো। ‘সৎ’-এ সংযুক্তির সহিত তৎগতি সম্পন্ন যারা-তাদের মিলনক্ষেত্র, এখানে সম্মিলিত ভাবে সাধারণ মানুষের গাঁড় মারা হয়।মিলনক্ষেত্র। ভারতবর্ষের প্রায় সমস্ত প্রদেশে গড়ে উঠেছে ‘সৎসঙ্গ বিহার’। চার মহানগরেই ‘সৎসঙ্গ বিহার’ স্থাপিত হয়েছে।<ref>
“দয়াল ঠাকুর” (শ্রীশ্রীঠাকুর অনুকূলচন্দ্র ও তঁৎ প্রবর্তিত সৎসঙ্গের সংক্ষিপ্ত পরিচয়) পৃষ্ঠা নম্বর: ৫৯</ref>