"আহমেদাবাদ" পাতাটির দুইটি সংশোধিত সংস্করণের মধ্যে পার্থক্য

(→‎সংস্কৃতি: সংশোধন)
[[File:Navratri Garba.jpg|thumb|আহমেদাবাদে নবরাত্রি উদযাপন|200x200px]]
আহমেদাবাদ শহরে বিভিন্ন উৎসব পালন করা হয়। জনপ্রিয় উদযাপন এবং পালনীয় উৎসবের মধ্যে রয়েছে উত্তরায়ণ, যা ১৪ এবং ১৫ জানুয়ারী বার্ষিক ঘুড়ি উড়নোর দিন হিসাবে পরিচিত। [[নবরাত্রি]]র নয়টি রাত্রি নগরীর বিভিন্ন জায়গাগুলিতে গুজরাটের সর্বাধিক জনপ্রিয় লোক নৃত্য গারবা পরিবেশনের সাথে পালিত হয়। দীপাবলির আলোর উৎসবে প্রতিটি ঘরে প্রদীপ জ্বালিয়ে আলোকিত করা হয়, মেঝেতে রঙ্গুলি দিয়ে সজ্জিত করা হয় এবং বাজি-পটকা ফাটানো হয়। জগন্নাথ মন্দিরে হিন্দু পঞ্জিকা অনুযায়ী বাৎসরিক রথযাত্রা এবং মুসলিমদের পবিত্র মহররম মাসে তাজিয়ার মিছিল এই শহরের গুরুত্বপূর্ণ ঘটনা।<ref>{{cite news|title=Ahmedabad all set for Tazias|url=http://www.dnaindia.com/india/report_ahmedabad-all-set-for-tazias_1622170|accessdate=24 February 2012|newspaper=[[Daily News and Analysis]]|date=6 December 2011}}</ref><ref>{{cite news|title=Ahmedabad gets ready for colourful tazias|url=http://www.dnaindia.com/india/report_ahmedabad-gets-ready-for-colourful-tazias_1328248|accessdate=24 February 2012|newspaper=[[Daily News and Analysis]]|date=28 December 2009|url-status=live|archiveurl=https://web.archive.org/web/20120630163749/http://www.dnaindia.com/india/report_ahmedabad-gets-ready-for-colourful-tazias_1328248|archivedate=30 June 2012}}</ref>
==শিক্ষা==
[[File:Gujrat university.JPG|thumb|200x200px|[[গুজরাট বিশ্ববিদ্যালয়]], আহমেদাবাদ]]
{{মূল নিবন্ধ |আহমেদাবাদের শিক্ষা ব্যবস্থা}}
২০০১ সালে আহমেদাবাদের সাক্ষরতার হার ৭৯.৮৯% ছিল, যা ২০১১ সালে বেড়ে দাঁড়িয়েছে ৮৯.৬২ শতাংশে। ২০১১ পর্যন্ত পুরুষ ও মহিলাদের মধ্যে সাক্ষরতার হার ছিল যথাক্রমে ৯৩.৯৬ এবং ৮৮.৮১ শতাংশ। [১৩৪]
 
আহমেদাবাদের বেশ কয়েকটি বিশ্ববিদ্যালয়গুলির মধ্যে [[গুজরাট বিশ্ববিদ্যালয়]]টি সবচেয়ে বড় এবং প্রাচীনতম বলে দাবি করা হয়; [১৩৫] যদিও গুজরাট বিদ্যাপীঠটি মহাত্মা গান্ধী দ্বারা ১৯২০ সালে প্রতিষ্ঠিত হয়েছিল - এটি ব্রিটিশ রাজের কাছ থেকে কোন সনদ লাভ করেনি, এটি কেবল ১৯৬৩ সালে একটি ডিমেড বিশ্ববিদ্যালয় হয়ে ওঠে। [136] নগরীর একটি বিশাল সংখ্যক কলেজ গুজরাট বিশ্ববিদ্যালয়ের দ্বারা অনুমোদিত। গুজরাট টেকনোলজিকাল বিশ্ববিদ্যালয়, সিইপিটি বিশ্ববিদ্যালয়, নির্মা বিশ্ববিদ্যালয় এবং [[আহমেদাবাদ বিশ্ববিদ্যালয়]] বর্তমান শতাব্দীতে প্রতিষ্ঠিত হয়েছে। [[ডাঃ বাবাসাহেব আম্বেদকর মুক্ত বিশ্ববিদ্যালয়|ডাঃ বাবাসাহেব আম্বেদকর মুক্ত বিশ্ববিদ্যালয়ের]] দূর শিক্ষার কোর্সে ১,০০,০০০ এরও বেশি শিক্ষার্থী ভর্তি হয়েছেন। [১৩ 13] [১৩ 13]
 
==আন্তর্জাতিক সম্মান==