"কাস্তিও দে গিরিবাইলে" পাতাটির দুইটি সংশোধিত সংস্করণের মধ্যে পার্থক্য

সম্প্রসারণ
(স্থানাঙ্কযোগ)
(সম্প্রসারণ)
==ইতিহাস==
===পূর্ববর্তী ইতিহাস===
'''গিরিবাইলে''' বা '''খিরিবাইলে''' অঞ্চলে মানুষের বসতিস্থাপনের ইতিহাস যথেষ্ট প্রাচীন। খ্রিস্টপূর্ব দ্বিতীয় সহস্রাব্দের প্রথামার্ধেই এখানে মানুষের বসতি স্থাপিত হয়। এইসময়ের বেশ কিছু খনি এই এলাকায় খুঁজে পাওয়া গেছে। অন্তত ইবেরীয় যুগ পর্যন্ত এই খনিগুলো চালু ছিল এবং তাদের ভিত্তি করে সেইসময় এখানে একটি বেশ বড় ধরনের জনবসতিই গড়ে উঠেছিল। যতদূর সম্ভব এখানে [[ওরেতানো]] উপজাতি বসবাস করত। সেইসময়েই ''কাস্তিলোকাস্তুলো'' ও ''লেভান্তের'' মধ্যবর্তী পথে এর অবস্থানের কারণে রণকৌশলগত দিক থেকে এই এলাকা যথেষ্ট গুরুত্বপূর্ণ হয়ে ওঠে। খ্রিস্টপূর্ব চতুর্থ ও তৃতীয় শতাব্দীর মধ্যবর্তী সময়ে এই কারণে এখানে ওরেতানোদের বসতি যথেষ্ট শক্তিশালী একটি দুর্গের আকার ধারন করে। এর বিস্তৃতি ছিল প্রায় ১৮ হেক্টরেরও বেশি।<ref name="Dema" /><ref>Olivares Barragán, Francisco. ''CASTILLOS DE LA PROVINCIA DE JAÉN''. C.S.I.C. Jaén, 1992. ISBN 84-87115-10-1</ref> বর্তমানে এই সুরক্ষিত বসতির একটি প্রাকারের ধ্বংসাবশেষই মাত্র অবশিষ্ট আছে। বর্তমান দুর্গের ধ্বংসাবশেষের দক্ষিণে এই প্রায় ২০০ মিটার দীর্ঘ ও ১০ মিটার উঁচু প্রাকারটি অবস্থিত ছিল। সম্ভবত অন্যদিকগুলিতে কোনও প্রাকারের অস্তিত্ব সে'সময় প্রয়োজন হয়নি। কারণ, যে উঁচু মালভূমিতে এই বসতি স্থাপিত হয়েছিল, প্রাকৃতিক দিক থেকেই তা ছিল যথেষ্ট সুরক্ষিত।
 
যাইহোক, প্রথম খ্রিস্টপূর্বাব্দের প্রথমার্ধে এই বসতি পরিত্যক্ত হয়। রোমানদের সাথে যুদ্ধে ([[সেরটোরীয় যুদ্ধ]] - খ্রিস্টপূর্ব ৮০ - ৭২ অব্দ) এই স্থান সম্পূর্ণ ধ্বংসাবশেষে পরিণত হয় এবং অবশিষ্টরা নিকটবর্তী [[কাস্তুলো]] শহরের দিকে সরে যায়। গিরিবাইলেতে প্রত্নতাত্ত্বিক খননকার্যে যে ছাই'এর স্তর আবিষ্কৃত হয়েছে তা এই শহরের পুড়ে যাওয়ারই সাক্ষ্য বহন করে।
 
প্রত্নতাত্ত্বিক অনুসন্ধানে আরও বোঝা যায় যে এই অঞ্চলে (বর্তমান দুর্গ সংলগ্ন বিভিন্ন স্থানে) [[ভিসিগথ|ভিসিগথদেরও]] বসতি গড়ে উঠেছিল।
 
==তথ্যসূত্র==