"মেদিনীপুরের যুদ্ধ" পাতাটির দুইটি সংশোধিত সংস্করণের মধ্যে পার্থক্য

বট নিবন্ধ পরিষ্কার করেছে। কোন সমস্যায় এর পরিচালককে জানান।
(বট নিবন্ধ পরিষ্কার করেছে। কোন সমস্যায় এর পরিচালককে জানান।)
(বট নিবন্ধ পরিষ্কার করেছে। কোন সমস্যায় এর পরিচালককে জানান।)
 
== পটভূমি ==
 
১৭৪৫ সালের অক্টোবরে [[নাগপুর|নাগপুরের]] [[মারাঠা সাম্রাজ্য|মারাঠা]] মহারাজা [[রঘুজী ভোঁসলে]] [[বঙ্গ|বাংলা]] আক্রমণ করেন এবং [[ওড়িশা|উড়িষ্যা]] থেকে [[মেদিনীপুর]] পর্যন্ত বিস্তৃত অঞ্চল দখল করে সেখানে লুটপাট চালাতে থাকেন<ref name="মারাঠা আক্রমণ"/><ref name="১"/>। [[কাটোয়ার যুদ্ধ (১৭৪৫)|কাটোয়ার যুদ্ধে]] বাংলার নবাব [[আলীবর্দী খান]] মারাঠাদেরকে পরাজিত করেন<ref name="মারাঠা আক্রমণ"/><ref name="১"/>, কিন্তু সেনাপতিদের বিশ্বাসঘাতকতার কারণে সৃষ্ট গোলযোগের কারণে তাঁকেতাকে মারাঠাদের বিরুদ্ধে অভিযান স্থগিত রাখতে হয়<ref name="মারাঠা আক্রমণ"/>। অভ্যন্তরীণ বিশৃঙ্খলা দূর করার পর ১৭৪৬ সালের নভেম্বরে নবাব তাঁরতার সেনাপতি [[মীর জাফর]]কে মারাঠাদের দখলকৃত অঞ্চল পুনরুদ্ধার করার জন্য প্রেরণ করেন<ref name="মারাঠা আক্রমণ"/><ref name="১"/>।
 
== যুদ্ধের ঘটনাবলি ==
 
[[মীর জাফর]] তাঁরতার সৈন্যবাহিনী নিয়ে মারাঠা-অধিকৃত [[মেদিনীপুর|মেদিনীপুরের]] দিকে অগ্রসর হন। ১৭৪৬ সালের ডিসেম্বরে তিনি মেদিনীপুরের নিকটে মারাঠা সৈন্যবাহিনীর মুখোমুখি হন। মারাঠা বাহিনীর নেতৃত্বে ছিলেন [[মীর হাবিব|মীর হাবিবের]] সেনাপতি সাঈদ নূর<ref name="১"/>। উভয়পক্ষে তীব্র যুদ্ধ হয় এবং মারাঠারা শোচনীয়ভাবে পরাজিত হয়<ref name="মারাঠা আক্রমণ"/><ref name="১"/>। পরাজিত মারাঠারা পশ্চাৎপসরণ করে এবং মীর জাফর মেদিনীপুর পুনরুদ্ধার করে নেন<ref name="মারাঠা আক্রমণ"/>।
 
== ফলাফল ==
 
মীর জাফরের সাফল্যে খুশি হয়ে নবাব আলীবর্দী তাঁকেতাকে [[ওড়িশা|উড়িষ্যার]] প্রাদেশিক শাসনকর্তা নিযুক্ত করেন<ref name="১"/> (যদিও উড়িষ্যা এসময় মারাঠাদের দখলে ছিল)। কিন্তু মীর জাফরের সাফল্য ছিল ক্ষণস্থায়ী, কারণ কিছুদিন পরেই [[ওড়িশা|উড়িষ্যা]] থেকে [[মীর হাবিব]] এবং [[জানুজী ভোঁসলে]]র নেতৃত্বে মারাঠা সৈন্যরা আবার মেদিনীপুর আক্রমণ করে এবং মীর জাফর বিনা যুদ্ধে পলায়ন করেন<ref name="মারাঠা আক্রমণ"/><ref name="১"/>।
 
== আরো দেখুন ==
১,৭৬,৪২২টি

সম্পাদনা