"আসাম" পাতাটির দুইটি সংশোধিত সংস্করণের মধ্যে পার্থক্য

বট নিবন্ধ পরিষ্কার করেছে। কোন সমস্যায় এর পরিচালককে জানান।
ট্যাগ: মোবাইল সম্পাদনা মোবাইল ওয়েব সম্পাদনা উচ্চতর মোবাইল সম্পাদনা
(বট নিবন্ধ পরিষ্কার করেছে। কোন সমস্যায় এর পরিচালককে জানান।)
পর্বতবাহুল্যবশতঃ ভূমি অসমতল (অসমভুমি) হওয়ায় রাজ্যটি ‘অসম’ ([[অপভ্রংশ|অপভ্রংশে]] ‘আসাম’) নামে অভিহিত - এ মত কেউ কেউ প্রকাশ করে থাকেন। অপর মতে, ‘অসম’ প্রতাপবিশিষ্ট আহম জাতি কর্তৃক একসময়ে অধিকৃত হওয়ায় রাজ্যটির নাম আসাম হয়েছে।
 
আসামের অন্যতম নগর [[কামরূপ রাজ্য|কামরূপের]] প্রাচীন নাম প্রাগ্‌জ্যোতিষপুর। এখানে [[পৌরাণিক কাহিনী|পৌরাণিক যুগে]] নরক নামধেয় জনৈক রাজা ছিলেন। তাঁরইতারই পুত্র মহাভারতবর্ণিত ভগদত্ত। তাঁরতার পরবর্তী রাজগণের নাম যোগিনীতন্ত্রে বর্ণিত হয়েছে। তাঁদেরতাদের কীর্তি [[গুয়াহাটি|গৌহাটি]] প্রভৃতি স্থানে এখনও কিংদংশে দৃষ্ট হয়। এছাড়াও খ্রিস্টীয় প্রথম সহস্রাব্দে কামরূপ নামে এই অঞ্চলের পরিচিতি ছিল। এই অঞ্চলে [[আহোম সাম্রাজ্য]] (১২২৮-১৮৩৮) প্রতিষ্ঠিত হওয়ার পরে এই রাজ্য "আসাম" নামে পরিচিত হয়।{{cn|date+April 2015}}
 
== ভৌগোলিক অবস্থান ==
 
=== আদিযুগ এবং মধ্যযুগ ===
৬৪০ সালে [[হিউয়েন সাঙ|হুয়েনথসাং]] যখন এই প্রদেশে পর্যটন করেন, তখন [[ভাস্করবর্মণ|কুমার ভাস্কর বর্ম]] এখানে রাজত্ব করতেন। পরে [[পাল সাম্রাজ্য|পালবংশীয়]] [[বৌদ্ধ ধর্ম|বৌদ্ধরাজগণ]] এখানে কিছুকাল রাজত্ব করেন। ১৩শ শতাব্দীর প্রথম ভাগে [[আহোম সাম্রাজ্য|আহম জাতি]] এ স্থান অধিকার করে। এ জাতি উত্তর ব্রহ্ম এবং চীনসীমান্তবাসী [[সান বংশ|সান বংশসম্ভূত]]। এ জাতির রাজা [[চুহুংমুং|চুহুম ফা]] সর্বপ্রথম [[হিন্দুধর্ম]] গ্রহণ করেন। তিনি ১৪৯৭ সালে সিংহাসনে আরোহণ করেছিলেন। তাঁরতার পরবর্তী রাজার অব্যবহিত পরবর্তী আহমজাতীয় রাজা [[চুচেং ফা]] ১৬১১ থেকে ১৬৪৯ সাল পর্যন্ত রাজত্ব করেন। তাঁরতার সময়েই [[শিবসাগর|শিবসাগরে]] শিবমন্দির প্রতিষ্ঠিত হয় এবং হিন্দুধর্মই রাজধর্মরূপে গৃহীত হয়। তাঁরতার পরবর্তী রাজা [[চুটুম্‌লা]] ১৬৫০ সালে [[ব্রাহ্মণ (বর্ণ)|ব্রাহ্মণগণ]] কর্তৃক ‘জয়ধ্বজ’ নামে অভিহিত হন। তাঁরতার রাজত্বকালে মোগল সম্রাট [[আওরঙ্গজেব|আওরঙ্গজেবের]] সুবিখ্যাত সেনাপতি [[মীর জুমলা|মীরজুমলা]] রাজ্য আক্রমণ করে বসেন। কিন্তু, তিনি বিশেষভাবে সফলকাম হতে পারেননি। এরপর আহমরাজগণ [[গোয়ালপাড়া জেলা|গোয়ালপাড়া]] পর্যন্ত অধিকার বিস্তার করেন।
 
=== ব্রিটিশ আসাম ===
আহমরাজগণের মধ্যে [[চুখ্রুংফা|রুদ্রসিংহ]] সর্বাপেক্ষা অধিক প্রসিদ্ধি লাভ করেছিলেন। অষ্টাদশ শতাব্দীতে আহমরাজগণ অন্তর্বিদ্রোহ ও বহিরাক্রমণবশতঃ হীনবল হয়ে পড়েন। ১৭৯২ সালে রাজা [[গৌরীনাথ সিংহ]], দারাংয়ের [[কোচ রাজবংশ|কোচ রাজা]] এবং [[মোয়ামারিয়া]] নামক ধর্মসম্প্রদায়ের নেতৃগণ কর্তৃক সিংহাসনচ্যূত হন। ভারতের ইংরেজ সরকার দেশীয় রাজ্য সম্বন্ধে হস্তক্ষেপ করা হবে না, এ নীতি অবলম্বন করে উদাসীন থাকাতে, আহম রাজা [[ব্রহ্মরাজ|ব্রহ্মরাজকে]] মধ্যস্থতা করতে আহ্বান করেন। এরফলে ব্রহ্মবাসীরা রাজ্য অধিকার করে এবং কঠোরভাবে শাসনদণ্ডের পরিচালনা করতে থাকে। ১৮২৪ সালে ব্রহ্মরাজের সাথে ইংরেজদের প্রথম যুদ্ধ সংঘটিত হয়। [[ইয়াণ্ডাবু সন্ধি|১৮২৬ সালের ২৪শে ফেব্রুয়ারি]] ব্রহ্মরাজের সাথে ইংরেজের যে সন্ধিস্থাপনা হয়, এরফলে ইংরেজ এই প্রদেশটি প্রাপ্ত হয়। [[নিম্ন আসাম]] তখনই সাক্ষাৎভাবে ইংরেজের শাসনাধীন হয়। ১৮৩২ সালে [[বার সেনাপতি]] বা [[মাটক রাজা]] ছাড়া উত্তর আসাম রাজ্য আহম সিংহাসনাধিকার-প্রার্থী [[পুরন্দর সিংহ|পুরন্দর সিংহকে]] দেয়া হয়। কিন্তু তাঁরতার সময়ে উক্ত প্রদেশে শাসন সম্বন্ধে নানা বিশৃঙ্খলা উপস্থিত হওয়ায় এটিও ইংরেজদের অধিকারে চলে আসে।
 
[[বঙ্গ]], [[বিহার]] ও [[উড়িষ্যা|উড়িষ্যার]] দেওয়ানী লাভের সঙ্গেই [[সিলেট জেলা|শ্রীহট্ট]] ও গোয়ালপাড়া ১৭৬৫ সালে ইংরেজদের অধিকারভূক্ত হয়। অপুত্রক রাজা [[গোবিন্দচন্দ্র|গোবিন্দচন্দ্রের]] মৃত্যুর পর ১৮৩০ সালে [[কাছাড় জেলা|কাছাড়]] ইংরেজের হস্তগত হয়। পরে [[তুলারাম]] সেনাপতির দেশ, গারো পর্বত, খাসী পর্বত, জয়ন্তী পর্বত, নাগা পর্বত প্রভৃতি ক্ষুদ্র ক্ষুদ্র দেশগুলো ইংরেজের অধীনতা স্বীকার করে।
== উৎসব ==
 
আসাম বিভিন্ন উৎসব আর মেলার ভূমি। এই রাজ্যের প্রধান উৎসবগুলো হলো বিহু,দূর্গাদুর্গা পূজা ,কালি পূজা, দীপান্বিতা, কামাখ্যা মেলা ,[[মে-ডাম-মে-ফী]], ঈদ, মহরম, শঙ্করদেবের জন্মোৎসব, বৈচাগু, [[আলি আঃয়ে লৃগাং]], বাইখু, রংকের, [[অম্বুবাচী মেলা]], [[জোনবিল মেলা]] ইত্যাদি। পালন করেন।
[[চিত্র:অসমিয়া মহিলা.jpg|alt=|থাম্ব|অসমীয়া মহিলা]]
 
১,৭৮,৫৭৪টি

সম্পাদনা