"এনসাইক্লোপিডিয়া ব্রিটানিকা" পাতাটির দুইটি সংশোধিত সংস্করণের মধ্যে পার্থক্য

বট নিবন্ধ পরিষ্কার করেছে। কোন সমস্যায় এর পরিচালককে জানান।
(→‎তথ্যসূত্র: references > সূত্র তালিকা)
ট্যাগ: মোবাইল সম্পাদনা মোবাইল অ্যাপ সম্পাদনা অ্যান্ড্রয়েড অ্যাপ সম্পাদনা
(বট নিবন্ধ পরিষ্কার করেছে। কোন সমস্যায় এর পরিচালককে জানান।)
 
'''এনসাইক্লোপিডিয়া ব্রিটানিকা''' ({{lang|la|Encyclopædia Britannica}}, লাতিন ভাষায় ''ব্রিটিশ বিশ্বকোষ'') "এনসাইক্লোপিডিয়া ব্রিটানিকা, ইনকর্পোরেটেড" কর্তৃক প্রকাশিত একটি সাধারণ জ্ঞানের ইংরেজি বিশ্বকোষ। প্রায় নিয়মিত ১০০ জন সম্পাদক ও প্রায় ৪০০০ অবদানকারীর মাধ্যমে এটি লিখিত ও সংশোধিত হয়। অনুবাদকারীদের মধ্যে এখন পর্যন্ত ১১০ জন নোবেল বিজয়ী এবং ৫ জন মার্কিন প্রেসিডেন্ট ছিলেন।<ref>[[Herbert Hoover]], [[John Kennedy]], [[Lyndon Johnson]], [[Jimmy Carter]], ও [[Bill Clinton]]. [http://www.prnewswire.com/news-releases/bill-clinton-pens-new-britannica-article-on-dayton-accords-79257462.html] {{ওয়েব আর্কাইভ|ইউআরএল=https://web.archive.org/web/20130606021540/http://www.prnewswire.com/news-releases/bill-clinton-pens-new-britannica-article-on-dayton-accords-79257462.html |তারিখ=৬ জুন ২০১৩ }}</ref> একে ইংরেজি ভাষার সবচেয়ে পাণ্ডিত্যপূর্ণ বিশ্বকোষগুলোর একটি মনে করা হয়।<ref>[http://www.thenews.com.pk/article-39870-Encyclopedia-Britannica-goes-digital-after-244-years- ''Encyclopedia Britannica'' goes digital after 244 years]. ''The News'' (2012-03-15). Retrieved 17 March 2012.</ref>
 
''ব্রিটানিকা'' ইংরেজি ভাষায় এখনও নিয়মিত প্রকাশিত বিশ্বকোষগুলোর মধ্যে সবচেয়ে প্রাচীন। ১৭৬৮ থেকে ১৭৭১ সালের মধ্যে স্কটল্যান্ডের [[এডিনবরা]] থেকে তিনটি আলাদা খণ্ডে এটি প্রথম প্রকাশিত হয়েছিল। এরপর দিনদিন আকার বাড়তে থাকে। দ্বিতীয় সংস্কণ প্রকাশিত হয় ১০ খণ্ডে, এবং ১৮০১ থেকে ১৮১০ সালের মধ্যে প্রকাশিত চতুর্থ সংস্করণে ছিল ২০টি খণ্ড। পাণ্ডিত্যপূর্ণ নিবন্ধের কারণে অনেক গুরুত্বপূর্ণ ব্যক্তি লেখক সমাজের অন্তর্ভুক্ত হন, এবং ৯ম (১৮৭৫-৮৯) ও ১১তম (১৯১১) সংস্করণ বিশ্বকোষের পাণ্ডিত্য ও রচনাশৈলীর ইতিহাসে যুগান্তকারী অর্জন বলে স্বীকৃত। একাদশ সংস্করণ প্রকাশ এবং একটি মার্কিন কোম্পানি কর্তৃক ব্রিটানিকা ইনকর্পোরেটেড-এর অধিগ্রহনেরঅধিগ্রহণের পর আমেরিকান পাঠকদের জনপ্রিয়তা অর্জনের জন্য বিশ্বকোষটির নিবন্ধের আকার ছোট করে বিষয় সংখ্যা আরও বাড়ানো হয়। ১৯৩৩ সালে ব্রিটানিকা বিশ্বকোষ রচনার ইতিহাসে প্রথমবারের মত তাদের ভুক্তিগুলো নিয়মিত পুনর্ম্যল্যায়ন ও সংশোধন করা শুরু করে। ২০১২ সালের মার্চে ব্রিটানিকা ইনকর্পোরেটেড ঘোষণা করে, তারা আর কাগজে মুদ্রিত সংস্করণ প্রকাশ করবে না, বরং কেবল অনলাইন সংস্করণের (''এনসাইক্লোপিডিয়া ব্রিটানিকা অনলাইন'') দিকে নজর দেবে। এর সর্বশেষ কাগজে মুদ্রিত সংস্করণ প্রকাশিত হয়েছিল ২০১০ সালে, ৩২ খণ্ডে।<ref name=NYT-stop>{{সংবাদ উদ্ধৃতি |শেষাংশ=Bosman |প্রথমাংশ=Julie |তারিখ=13 March 2012 |শিরোনাম=After 244 Years, Encyclopædia Britannica Stops the Presses |ইউআরএল=http://mediadecoder.blogs.nytimes.com/2012/03/13/after-244-years-encyclopaedia-britannica-stops-the-presses |কর্ম=The New York Times|সংগ্রহের-তারিখ=13 March 2012}}</ref>
 
১৫তম অর্থাৎ সর্বশেষ মুদ্রিত সংস্করণ প্রকাশিত হয়েছিল তিন ভাগে: একটি ১২ খণ্ডের ''মাইক্রোপিডিয়া'' যেখানে সাধারণত ছোট ছোট ৭৫০ শব্দের নিবন্ধ স্থান পায়, একটি ১৯ খণ্ডের ''ম্যাক্রোপিডিয়া'' যাতে বড় (২ থেকে ৩১০ পৃষ্ঠা) নিবন্ধ প্রকাশিত হয়, এবং একটি এক খণ্ডের ''প্রোপিডিয়া'' যাতে ব্রিটানিকার সমগ্র জ্ঞানের একটি ধারাবাহিক ভূমিকা দেয়া হয়। মাইক্রোপিডিয়া হচ্ছে দ্রুত কোন বিষয় সম্পর্কে সংক্ষেপে জানার জন্য এবং আরও জানার ইচ্ছা থাকলে সেখান থেকে ম্যাক্রোপিডিয়াতে যেতে হয়। আর প্রোপিডিয়া একটি নিবন্ধকে অপেক্ষাকৃত বড় প্রেক্ষাপটে স্থাপন করে সে সম্পর্কিত অন্যান্য নিবন্ধের ধারণা দেয়। প্রায় ৭০ বছর ধরে ব্রিটানিকার মুদ্রিত সংস্করণের আকার প্রায় ধ্রুব ছিল- প্রায় ৫ লক্ষ বিষয়ের উপর প্রায় ৪ কোটি শব্দ। ১৯০১ সালের পর মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র থেকে প্রকাশিত হলেও ব্রিটানিকাতে ব্রিটিশ বানান পদ্ধতি ব্যবহার করা হয়।
১,৮৬,১২৭টি

সম্পাদনা