"হ্যারিয়েট বিচার স্টো" পাতাটির দুইটি সংশোধিত সংস্করণের মধ্যে পার্থক্য

বট নিবন্ধ পরিষ্কার করেছে। কোন সমস্যায় এর পরিচালককে জানান।
(হটক্যাটের মাধ্যমে + 7টি বিষয়শ্রেণী ও তথ্যছক যোগ)
(বট নিবন্ধ পরিষ্কার করেছে। কোন সমস্যায় এর পরিচালককে জানান।)
==জীবনী==
===জন্ম ও পরিবার===
হ্যারিয়েট ১৮১১ সালের ১৪ই জুন [[কানেটিকাট|কানেটিকাটের]] লিচফিল্ডে জন্মগ্রহণ করেন।<ref name="ম্যাকফারল্যান্ড">{{বই উদ্ধৃতি|শেষাংশ1=ম্যাকফারল্যান্ড|প্রথমাংশ1=ফিলিপ|শিরোনাম=Loves of Harriet Beecher Stowe|তারিখ=২০০৭|প্রকাশক=গ্রোভ প্রেস|অবস্থান=নিউ ইয়র্ক|আইএসবিএন=978-0-8021-4390-7|পাতা=১১২}}</ref> তাঁরতার পিতা ক্যালভানিস্ট ধর্মযাজক লাইম্যান বিচার (১৭৭৫-১৮৬৩)। তিনি দাসপ্রথা বিলোপের পক্ষে ছিলেন। তাঁরতার মাতা রোক্সানা বিচার (জন্ম: ফুটি) একজন ধর্মপ্রাণ মহিলা ছিলেন। স্টো-এর যখন পাঁচ বছর বয়স তখন তিনি মারা যান।<ref name="কালের-কণ্ঠ-২০১৭">{{সংবাদ উদ্ধৃতি|শেষাংশ1=আল মোহন|প্রথমাংশ1=আব্দুল্লাহ|শিরোনাম=তোমায় সালাম হ্যারিয়েট বিচার স্টো|ইউআরএল=http://www.kalerkantho.com/print-edition/oboshore/2017/06/10/506963|সংগ্রহের-তারিখ=১৪ জুন ২০১৮|কর্ম=[[দৈনিক কালের কণ্ঠ]]|তারিখ=১০ জুন ২০১৭|ভাষা=bn}}</ref> রোক্সানার মাতামহ অ্যান্ড্রু ওয়ার্ড ছিলেন মার্কিন স্বাধীনতা যুদ্ধের একজন জেনারেল। ১৩ ভাইবোনের মধ্যে হ্যারিয়েট সপ্তম।<ref>{{বই উদ্ধৃতি|শেষাংশ1=হেড্রিক|প্রথমাংশ1=জোন|শিরোনাম=Harriet Beecher Stowe: a Life|তারিখ=১৯৯৪|প্রকাশক=অক্সফোর্ড বিশ্ববিদ্যালয় প্রেস|আইএসবিএন=0-19-506639-1|পাতা=৬|ইউআরএল=https://books.google.com.bd/books?id=tl8m84E2iFkC&lpg=PP1&dq=harriet+beecher+stowe&pg=PR4&redir_esc=y#v=onepage&q&f=false|সংগ্রহের-তারিখ=১৪ জুন ২০১৮}}</ref> তাঁরতার ভাইবোনদের মধ্যে উল্লেখযোগ্য হলেন বড় বোন ক্যাথরিন বিচার, যিনি একজন শিক্ষাবিদ ও লেখক ছিলেন; ভাই হেনরি ওয়ার্ড বিচার, একজন ধর্ম প্রচারক ও দাসপ্রথা বিলোপ আন্দোলনের সক্রিয় কর্মী; চার্লস বিচার, যিনি পরবর্তীতে মন্ত্রী হয়েছিলেন; এবং এডওয়ার্ড বিচার ছিলেন একজন ভাষাবিজ্ঞানী।<ref>{{বই উদ্ধৃতি|শেষাংশ1=অ্যাপলগেট|প্রথমাংশ1=ডেবি|শিরোনাম=The Most Famous Man in America: The Biography of Henry Ward Beecher|তারিখ=২০০৬|প্রকাশক=ডাবলডে রিলিজিয়াস পাবলিশিং গ্রুপ|আইএসবিএন=978-0-307-42400-6}}</ref>
 
===আঙ্কল টমস্‌ কেবিন ও গৃহযুদ্ধ===
স্টো তাঁরতার বড় বোন ক্যাথরিনের কাছে লেখাপড়া শেখা শুরু করেন। ছোটবেলা থেকেই তাঁরতার বই পড়ার নেশা ছিল। তাঁরতার সবচেয়ে প্রিয় বই ছিল [[আরব্য রজনী]]। ছোটবেলা থেকে তিনি দাসদের ওপর নিষ্ঠুর নির্যাতন দেখে বড় হয়েছেন, বিশেষ করে যুক্তরাষ্ট্রের দক্ষিণাংশে নির্যাতন বেশি ছিল। আমেরিকার দক্ষিণাংশের অঙ্গরাজ্য, অর্থাৎ সাউথ ক্যারোলিনা, লুইজিয়ানা, মিসিসিপি, ফ্লোরিডা, অ্যালাবামা, জর্জিয়া দাসপ্রথার পক্ষে ছিল। ফলে তাঁরতার মূল পরিকল্পনা ছিল উত্তরাংশের অঙ্গরাজ্যগুলোর (ভার্জিনিয়া, আরকানসাস, নর্থ ক্যারোলিনা অঙ্গরাজ্য) মানুষদের দাসপ্রথার ভয়াবহতা সম্পর্কে জানানো। সে পরিকল্পনা থেকেই তিনি ন্যাশনাল এরায় লিখতে শুরু করেন।<ref name="কালের-কণ্ঠ-২০১৭"/>
 
==তথ্যসূত্র==
১,৮৬,১২৭টি

সম্পাদনা