জি নিউজ: সংশোধিত সংস্করণের মধ্যে পার্থক্য

বট নিবন্ধ পরিষ্কার করেছে। কোন সমস্যায় এর পরিচালককে জানান।
(→‎বিতর্ক: সম্প্রসারণ)
(বট নিবন্ধ পরিষ্কার করেছে। কোন সমস্যায় এর পরিচালককে জানান।)
}}
 
'''''জি নিউজ''''' হল ভারতীয় টেলিভিশন চ্যানেল। এটি ১৯৯৯ সালের ৬ই জুলাই চালু হয়। এটি [[জি মিডিয়া]]র আওতাধীন সম্পত্তি ও এসেল গ্রুপের সহযোগী প্রতিষ্ঠান। চ্যানেলটির মালিক হলেন রাজ্য সভার সদস্য সুভাষ চন্দ্র।<ref>{{citeওয়েব webউদ্ধৃতি | urlইউআরএল=http://www.afaqs.com/news/story/38204_Zee-News-takes-punch-line | titleশিরোনাম=Zee News takes punch line | publisherপ্রকাশক=আফাকস | workকর্ম=আফাকস নিউজ ব্যুরো | dateতারিখ=24 July 2013 | accessdateসংগ্রহের-তারিখ=১৯ সেপ্টেম্বর ২০১৯ |langভাষা=en}}</ref>
 
==বিতর্ক==
===জিন্দল গ্রুপের ঘটনা===
এটি স্ট্রিং অপারেশনের প্রতিবেদনে প্রকাশ হয়েছিল এই চ্যানেলটি জিন্দল গ্রুপের নিকট থেকে ₹১০০ কোটি নিতে চেয়েছিল।<ref name="The Hindu">{{citeসংবাদ newsউদ্ধৃতি|titleশিরোনাম=Jindal plays CD, claemsss Zee editors demanded Rs. 100 crore|urlইউআরএল=http://www.thehindu.com/news/national/jindal-plays-cd-claims-zee-editors-demanded-rs-100-crore/article4031340.ece|accessdateসংগ্রহের-তারিখ=১৯ সেপ্টেম্বর ২০১৯ |langভাষা=en|newspaperসংবাদপত্র=[[দ্য হিন্দু]]}}</ref> এই ঘটনায় দুজন অভিজ্ঞ সাংবাদিক সুধীর চৌধুরী ও সমীর আহলুওয়ালিয়া<ref>{{Citeসংবাদ newsউদ্ধৃতি|urlইউআরএল=https://m.timesofindia.com/india/Two-Zee-editors-arrested-for-Rs-100-crore-extortion-bid/articleshow/17391903.cms|titleশিরোনাম=Two Zee editors arrested for 'Rs 100-crore extortion bid' |workকর্ম=[[দ্য টাইমস অব ইন্ডিয়া]] |accessdateসংগ্রহের-তারিখ=১৯ সেপ্টেম্বর ২০১৯ |langভাষা=en}}</ref> গ্রেফতার হন।<ref name="NDTV India">{{citeসংবাদ newsউদ্ধৃতি|titleশিরোনাম=Naveen Jindal vs Zee: Senior journalists arrested over alleged extortion|urlইউআরএল=http://www.ndtv.com/article/india/naveen-jindal-vs-zee-senior-journalists-arrested-over-alleged-extortion-298095|accessdateসংগ্রহের-তারিখ=১৯ সেপ্টেম্বর ২০১৯ |langভাষা=en |publisherপ্রকাশক=এনডিটিভি ইন্ডিয়া}}</ref><ref name="The Australian">{{citeসংবাদ newsউদ্ধৃতি|titleশিরোনাম=Jindal Group and Zee television in extortion scandal|urlইউআরএল=http://www.theaustralian.com.au/news/world/jindal-group-and-zee-television-in-extortion-scandal/story-e6frg6so-1226527713986?nk=e835e32ddf2956600de185626015a1b1|accessdateসংগ্রহের-তারিখ=১৯ সেপ্টেম্বর ২০১৯ |langভাষা=en |publisherপ্রকাশক=দি অস্ট্রেলিয়ান}}</ref> নবীন জিন্দাল ''জি নিউজ''-কে তার কাছ থেকে কয়লা কেলেঙ্কারির খবর না প্রকাশ করার শর্তে ১০০ কোটি রুপী হাতিয়ে নেওয়ার অভিযোগ করে। ''জি নিউজ'' এই অভিযোগ অমূলক বলে দাবী করে এবং জিন্দালকে তাদের জিন্দাল স্টিলের কয়লা কেলেঙ্কারি তদন্ত বন্ধের জন্য ২৫ কোটি রুপীর প্রস্তাব দেওয়ার জন্য পাল্টা অভিযুক্ত করে।<ref>{{citeওয়েব webউদ্ধৃতি|urlইউআরএল=http://timesofindia.indiatimes.com/business/india-business/Naveen-Jindal-accuses-Zee-News-of-extortion-channel-hits-back/articleshow/16956098.cms |titleশিরোনাম=Naveen Jindal accuses Zee News of extortion, channel hits back |publisherপ্রকাশক=[[দ্য টাইমস অব ইন্ডিয়া]] |dateতারিখ=2012-10-25 |accessdateসংগ্রহের-তারিখ=১৯ সেপ্টেম্বর ২০১৯ |langভাষা=en}}</ref>
 
===হুমকি===
''জি নিউজ'' লাইন অব কনট্রোলে ভারতীয় সেনাদের অবরোধ নিয়ে সম্প্রচারের জন্য লস্কর-ই-তাইবার জঙ্গী হাফিজ মুহাম্মদ সাঈদের নিকট থেকে উন্মুক্ত হুমকি পায়।<ref>{{Citeওয়েব webউদ্ধৃতি|urlইউআরএল=https://www.adgully.com/let-terrorist-hafiz-saeed-threatens-zee-news-in-pak-gathering-69073.html|titleশিরোনাম=LeT terrorist Hafiz Saeed threatens Zee News in Pak gathering|websiteওয়েবসাইট=www.adgully.com|languageভাষা=en-US|accessসংগ্রহের-dateতারিখ=১৯ সেপ্টেম্বর ২০১৯}}</ref><ref>{{Citeওয়েব webউদ্ধৃতি|urlইউআরএল=https://www.exchange4media.com/industry-briefing-news/zee-news-resolves-to-show-fearless-news-coverage-despite-threat-videos-from-let-terrorist-hafiz-saeed-66183.html|titleশিরোনাম=Zee News resolves to show fearless news coverage despite threat videos from LeT terrorist Hafiz Saeed |websiteওয়েবসাইট=Indian Advertising Media & Marketing News – exchange4media|languageভাষা=en|accessসংগ্রহের-dateতারিখ=১৯ সেপ্টেম্বর ২০১৯}}</ref>
 
==তথ্যসূত্র==
১,৯৬,০১৪টি

সম্পাদনা