স্নাতক উপাধি: সংশোধিত সংস্করণের মধ্যে পার্থক্য

→‎বাংলাদেশ: সংশোধন
(→‎বাংলাদেশ: সংশোধন)
 
== বাংলাদেশ ==
[[বাংলাদেশ|বাংলাদেশের]] শিক্ষা প্রতিষ্ঠানগুলোতে সাধারণভাবে চার বছর মেয়াদী সম্মান (অনার্স) ও তিন বছর মেয়াদী সাধারণ (পাস কোর্স) এই দুই ধরনের স্নাতক উপাধি প্রদান করা হয়। [[উচ্চ মাধ্যমিক সার্টিফিকেট|উচ্চ মাধ্যমিক পরীক্ষায়]] উত্তীর্ণ হওয়ার পরে এসব উপাধির জন্য ভর্তি হওয়া যায়। কলাবিদ্যা বা মানববিদ্যা ধারায় স্নাতক উপাধিকে ইংরেজিতে"[[কলাবিদ্যায় বি.এ.স্নাতক]]" (ইংরেজিতে ব্যাচেলর অফ আর্টস, "কলাবিদ্যায়সংক্ষেপে স্নাতক"বি.এ.) বলা হয়। [[ললিতকলা|চারুকলা]] ধারায় "[[চারুকলায় স্নাতক]]" (ইংরেজিতে ব্যাচেলর অফ ফাইন আর্টস]] বা সংক্ষেপে বি.এফ.এ. ("চারুকলায় স্নাতক"), অন্যদিকে [[সামাজিক বিজ্ঞান]] ধারায় "[[সামাজিক বিজ্ঞানে স্নাতক]]" (ব্যাচেলর অফ সোশ্যাল সায়েন্স, বাসংক্ষেপে বি.এস.এস. ("সামাজিক বিজ্ঞানে স্নাতক"), [[বিজ্ঞান]] ধারায় "[[বিজ্ঞানে স্নাতক]]" (ব্যাচেলর অফ সায়েন্স, বা সংক্ষেপে বি.এসসি. ("বিজ্ঞানে স্নাতক") এবং ব্যবসায় শিক্ষা ধারায় "[[বাণিজ্যে স্নাতক]]" (ইংরেজিতে ব্যাচেলর অফ কমার্স বা বি.কম.) কিংবা ("বাণিজ্যে[[ব্যবসায় প্রশাসনে স্নাতক]]") বা(ইংরেজিতে ব্যাচেলর অফ বিজনেস অ্যাডমিনিস্ট্রেশন, বাসংক্ষেপে বি.বি.এ ("ব্যবসায় প্রশাসনে স্নাতক") নামক উপাধি দেয়া হয়। [[প্রকৌশল]] বিশ্ববিদ্যালয়সমূহে চার বছর মেয়াদী স্নাতক শিক্ষাক্রম অনুসরণ করা হয় এবং এক্ষেত্রে সাধারণত "[[প্রকৌশল ক্ষেত্রে বিজ্ঞানে স্নাতক]]" (ব্যাচেলর অফ সায়েন্স ইন ইঞ্জিনিয়ারিং, সংক্ষেপে "বি. এসসি. ইঞ্জ") নামের উপাধি দেওয়া হয়। [[আইন]] বিষয়ে চার বছর মেয়াদী [[ব্যাচেলর অফ লজ| বা এলএল.বি.]] (অনার্স) তথা "[[আইনবিদ্যায় স্নাতক]] (সম্মান)" উপাধি" এবং দুই বছর মেয়াদী এলএল.বি. (পাস কোর্স) "আইনবিদ্যায় স্নাতক (সাধারণ)" উপাধি চালু আছে। চিকিৎসা মহাবিদ্যালয়গুলিতে (মেডিকেল কলেজ) স্নাতক শিক্ষাক্রম ৫ বছর মেয়াদী হয়ে থাকে।থাকে এবং এগুলি শেষ করলে [[চিকিৎসাবিজ্ঞান ও শল্যচিকিৎসায় স্নাতক]] (ইংরেজিতে সংক্ষেপে এম.বি.বি.এস.) উপাধি প্রদান করা হয়।
 
== তথ্যসূত্র ==
৫৭,৬২০টি

সম্পাদনা