"সৈয়দ ইশতিয়াক আহমেদ" পাতাটির দুইটি সংশোধিত সংস্করণের মধ্যে পার্থক্য

সম্প্রসারণ
(সম্প্রসারণ)
(সম্প্রসারণ)
}}
 
'''ব্যারিস্টার সৈয়দ ইশতিয়াক আহমেদ''' (১৮ জানুয়ারি ১৯৩২ - ১২ জুলাই ২০০৩) হলেন একজন প্রখ্যাত বাংলাদেশী আইনজ্ঞ এবং সংবিধান বিশেষজ্ঞ।<ref name=দৈজ১>{{সংবাদ উদ্ধৃতি |ইউআরএল=http://www.dailyjanakantha.com/details/article/106265/ব্যারিস্টার-ইশতিয়াকের-জন্মবার্ষিকী-আজ |শিরোনাম=ব্যারিস্টার ইশতিয়াকের জন্মবার্ষিকী আজ |সংবাদপত্র=দৈনিক জনকন্ঠ |তারিখ=১৬ জানুয়ারী ২০১৫|সংগ্রহের-তারিখ=২৭ সেপ্টেম্বর ২০১৯}}</ref> তিনি সেই বিরল ব্যক্তিদের একজন যারা দুটি [[বাংলাদেশের তত্ত্বাবধায়ক সরকার]]ের সময় উপদেষ্টা হিসাবে দায়িত্ব পালন করেছেন;<ref name="এসএ">{{ওয়েব উদ্ধৃতি |ইউআরএল=https://www.siaalaw.com/ |শিরোনাম=Syed Ishtiaq Ahmed & Associates (SIA&A) : About Us |প্রকাশক=SYED ISHTIAQ AHMED & ASSOCIATES |তারিখ= |সংগ্রহের-তারিখ=২৭ সেপ্টেম্বর ২০১৯}}</ref> তিনি [[১৯৯৬]] ও [[২০০১]] সালের তত্ত্বাবধায়ক সরকারের উপদেষ্টা হিসাবে দায়িত্ব পালন করেছেন। তিনি [[বাংলাদেশের এটর্নি জেনারেল|বাংলাদেশের তৃতীয় এটর্নি জেনারেল]] হিসাবে দায়িত্ব পালন করেছেন।<ref name="বাপি১">{{বই উদ্ধৃতি |লেখক=সুফিয়া আহমেদ |সম্পাদক=[[সিরাজুল ইসলাম]] |শিরোনাম=বাংলাপিডিয়া |ইউআরএল=http://bn.banglapedia.org/index.php?title=আহমেদ,_সৈয়দ_ইশতিয়াক |অধ্যায়=আহমেদ, সৈয়দ ইশতিয়াক|প্রকাশক=[[এশিয়াটিক সোসাইটি বাংলাদেশ]] |তারিখ=জানুয়ারি ২০০৩ |সংগ্রহের-তারিখ=২৭ সেপ্টেম্বর ২০১৯ |অবস্থান=[[ঢাকা]] |আইএসবিএন=984-32-0576-6 |পাতা= |উক্তি= }}</ref> তিনি ‘জাতির অভিভাবক’ নামে পরিচিত ছিলেন এবং সব সময় রাজনৈতিক পরিচিতি এবং সম্পৃক্ততা থেকে নিজেকে বিরত রেখেছেন।<ref name=দৈজ১/>
 
== জন্ম ও পারিবারিক পরিচিতি ==
 
সৈয়দ ইশতিয়াক ১৯৩২ সালের [[১৮ জানুয়ারি]] অবিভক্ত [[ব্রিটিশ ভারত]]ের যুক্ত প্রদেশের গাজীপুরে জন্মগ্রহণ করেন।<ref name="বাপি১"/> তার পিতা সৈয়দ জাফর আহমেদ দিনাজপুরের (পশ্চিমবঙ্গ) হিলির জমিদার ও ব্যবসায়ী ছিলেন।
 
== শিক্ষাজীবন ==
ইশতিয়াক হিলির রামনাথ ইংরেজি হাইস্কুলে ও পরে কলকাতা মাদ্রাসায় প্রাথমিক শিক্ষা গ্রহণের পর ১৯৪৭ সালে দেশবিভাগের পর পরিবারের সাথে পূর্ব বাংলায় চলে আসেন ও ১৯৪৮ সালে [[ময়মনসিংহ জিলা স্কুল]] থেকে ম্যাট্রিক, ১৯৫০ সালে [[ঢাকা কলেজ]] থেকে আই.এ., ১৯৫৩ সালে [[ঢাকা বিশ্ববিদ্যালযয়বিশ্ববিদ্যালয়]] থেকে অর্থনীতিতে স্নাতক (সম্মান) এবং ১৯৫৪ সালে এম.এ. ডিগ্রী অর্জন করেন। পরবর্তীতে তিনি উচ্চশিক্ষার্থে [[বৃটেন]] যান এবং ১৯৫৮ সালে সেখানকার লিংকনস ইন থেকে বার-এট-ল এবং লন্ডন স্কুল অব ইকনমিকস্ থেকে অর্থনীতিতে এম.এসসি. ডিগ্রী লাভ করেন।<ref name="বাপি১"/>
 
== কর্মজীবন ==
ইশতিয়াক হিলির রামনাথ ইংরেজি হাইস্কুলে ও পরে কলকাতা মাদ্রাসায় প্রাথমিক শিক্ষা গ্রহণের পর ১৯৪৭ সালে দেশবিভাগের পর পরিবারের সাথে পূর্ব বাংলায় চলে আসেন ও ১৯৪৮ সালে [[ময়মনসিংহ জিলা স্কুল]] থেকে ম্যাট্রিক, ১৯৫০ সালে [[ঢাকা কলেজ]] থেকে আই.এ., ১৯৫৩ সালে [[ঢাকা বিশ্ববিদ্যালযয়]] থেকে অর্থনীতিতে স্নাতক (সম্মান) এবং ১৯৫৪ সালে এম.এ. ডিগ্রী অর্জন করেন। পরবর্তীতে তিনি উচ্চশিক্ষার্থে [[বৃটেন]] যান এবং ১৯৫৮ সালে সেখানকার লিংকনস ইন থেকে বার-এট-ল এবং লন্ডন স্কুল অব ইকনমিকস্ থেকে অর্থনীতিতে এম.এসসি. ডিগ্রী লাভ করেন।<ref name="বাপি১"/>
 
১৯৬০ সাল থেকে আমৃত্যু আইন পেশায় নিয়োজিত থাকা ব্যারিস্টার ইশতিয়াক ১৯৬১ সাল থেকে ১৯৬৮ সাল পর্যন্ত ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে আইন শাস্ত্রের খন্ডকালীন অধ্যাপক, ১৯৭২ সালে অতিরিক্ত [[এটর্নি জেনারেল]] এবং ১৯৭৬ সাল থেকে ১৯৭৭ সাল পর্যন্ত [[এটর্নি জেনারেল|বাংলাদেশের তৃতীয় এটর্নি জেনারেল]] ছিলেন।<ref name="বাপি১"/>
তিনি বিচারপতি হাবিবুর রহমানের নেতৃত্বাধীন [[হাবিবুর রহমানের মন্ত্রীসভা|১৯৯৬ সালের তত্ত্বাবধায়ক সরকার]]ে ৩০ মার্চ হতে ২৩ জুন পর্যন্ত [[আইন, বিচার ও সংসদ বিষয়ক মন্ত্রণালয় (বাংলাদেশ)|আইন, বিচার ও সংসদ বিষয়ক মন্ত্রণালয়]] এবং [[স্থানীয় সরকার, পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় মন্ত্রনালয়|স্থানীয় সরকার, পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় মন্ত্রনালয়]]ে এবং বিচারপতি লতিফুর রহমানের নেতৃত্বাধীন [[লতিফুর রহমানের মন্ত্রীসভা|২০০১ সালের তত্ত্বাবধায়ক সরকার]]ে ১৬ জুলাই হতে ১০ অন্টোবর পর্যন্ত [[আইন, বিচার ও সংসদ বিষয়ক মন্ত্রণালয় (বাংলাদেশ)|আইন, বিচার ও সংসদ বিষয়ক মন্ত্রণালয়]] এবং [[বেসামরিক বিমান পরিবহন ও পর্যটন মন্ত্রণালয় (বাংলাদেশ)|বেসামরিক বিমান পরিবহন ও পর্যটন মন্ত্রণালয়]]ে দায়িত্ব প্রাপ্ত উপদেষ্টা হিসাবে নিযুক্ত ছিলেন।<ref name="তবা১">{{ওয়েব উদ্ধৃতি |ইউআরএল=https://legislativediv.gov.bd/site/page/6203cb42-4bbf-49b7-9077-eb54f3c09cf3 |শিরোনাম=লেজিসলেটিভ ও সংসদ বিষয়ক বিভাগ : সাবেক মন্ত্রীগণের কর্মকালসহ তালিকা |প্রকাশক=মন্ত্রিপরিষদ বিভাগ, [[গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকার]] |তারিখ=৮ মার্চ ২০১৭ |সংগ্রহের-তারিখ=২৭ সেপ্টেম্বর ২০১৯}}</ref>
== সম্মাননা ==
 
তার নামে আইন সাংবাদিকতায় পদক চালু করা হয়েছে, যাতে প্রিন্ট মিডিয়া ও ইলেক্ট্রনিক মিডিয়া ক্যাটাগরির প্রতিটিতে দু’টি করে মোট চারটি পদক দেয়া হয়।<ref name=বিডিনি>{{সংবাদ উদ্ধৃতি |ইউআরএল=https://www.banglanews24.com/national/news/bd/175506.details |শিরোনাম=আইন সাংবাদিকতায় ব্যারিস্টার ইশতিয়াক পদক |তারিখ=১৯ ফেব্রুয়ারি ২০১৩ |সংবাদপত্র=বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম |সংগ্রহের-তারিখ=২৭ সেপ্টেম্বর ২০১৯}}</ref>
== ব্যক্তিগত জীবন ==
 
সৈয়দ ইশতিয়াক আহমেদ ১৯৫৫ সালের জুনে [[সুফিয়া আহমেদ|সুফিয়া আহমেদের]] সাথে বিবাহবন্ধনে আবদ্ধ হন। সুফিয়া আহমেদ [[ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়]]ের ইসলামের ইতিহাস ও সংস্কৃতি বিভাগের অধ্যাপক এবং বাংলাদেশের প্রথম নারী [[জাতীয় অধ্যাপক]]।<ref name=ডেস্টা১>{{সংবাদ উদ্ধৃতি |ইউআরএল=http://www.thedailystar.net/author/dr-sufia-ahmed|শিরোনাম=DR SUFIA AHMED |সংবাদপত্র=দ্য ডেইলি স্টার |তারিখ= |সংগ্রহের-তারিখ=২৭ সেপ্টেম্বর ২০১৯}}</ref> তাদের দুই সন্তান; পুত্র সৈয়দ রিফাত আহমেদ [[বাংলাদেশ সুপ্রিম কোর্ট|বাংলাদেশ সুপ্রিম কোর্টের]] বিচারক এবং কন্যা রাইনা আহমেদ একজন চিকিৎসক।<ref name=ডেস্টা২>{{সংবাদ উদ্ধৃতি |ইউআরএল=http://archive.thedailystar.net/2003/07/21/d30721020526.htm |শিরোনাম=In memorium : Syed Ishtiaq Ahmed |তারিখ=২১ জুলাই ২০০৩ |সংবাদপত্র=দ্য ডেইলি স্টার |সংগ্রহের-তারিখ=২৭ সেপ্টেম্বর ২০১৯}}</ref>
 
== আরও দেখুন ==
* [[বাংলাদেশের অ্যাটর্নি জেনারেল]];
 
* [[বাংলাদেশের তত্ত্বাবধায়ক সরকার]];
* [[হাবিবুর রহমানের মন্ত্রীসভা|১৯৯৬ সালের তত্ত্বাবধায়ক সরকার]];
* [[লতিফুর রহমানের মন্ত্রীসভা|১৯৯৬২০০১ সালের তত্ত্বাবধায়ক সরকার]];
* [[সুফিয়া আহমেদ]]।
 
২৮,৯৪৪টি

সম্পাদনা