"উমেশচন্দ্র দত্ত" পাতাটির দুইটি সংশোধিত সংস্করণের মধ্যে পার্থক্য

বট নিবন্ধ পরিষ্কার করেছে। কোন সমস্যায় এর পরিচালককে জানান।
(বট নিবন্ধ পরিষ্কার করেছে। কোন সমস্যায় এর পরিচালককে জানান।)
(বট নিবন্ধ পরিষ্কার করেছে। কোন সমস্যায় এর পরিচালককে জানান।)
'''উমেশচন্দ্র দত্ত''' ([[১৮৪০]] - [[১৯০৭]]) একজন সমাজ সংস্কারক এবং শিক্ষাবিদ । [[পশ্চিমবঙ্গ|পশ্চিমবঙ্গের]] বর্তমান [[দক্ষিণ ২৪ পরগণা]] জেলার [[মজিলপুর|মজিলপুরে]] তিনি জন্মগ্রহণ করেন ।[[১৮৫৯]] এ প্রবেশিকা পরীক্ষায় তিনি দ্বিতীয় স্থান অধিকার করেন । স্ত্রীশিক্ষা বিস্তারে তিনি অদম্য উৎসাহী ছিলেন ।
 
তিনি [[মজিলপুর|মজিলপুরে]] দক্ষিণ ২৪ পরগণার প্রথম এবং সম্ভবত বাংলাদেশের তৃতীয় বালিকা বিদ্যালয় স্থাপন করেন।{{সত্যতা}} এই বিদ্যালয় স্থাপন করবার জন্য তাঁকেতাকে জমিদারের প্রবল অত্যাচার সহ্য করতে হয়েছিল । এরপর তিনি কলকাতার ট্রেনিং অ্যাকাডেমিতে (যার বর্তমান নাম [[বিদ্যাসাগর কলেজ]]) এবং হিন্দু স্কুলে কিছুদিন শিক্ষকতা করেন ।
[[১৮৬৩]] খ্রিস্টাব্দে বাংলার নারীদের মধ্যে শিক্ষার আলো এবং সচেতনতা আনার জন্য এবং তাঁদের মনের কথা তুলে ধরার জন্য একটি মহিলা মাসিক পত্রিকা [[বামাবোধিনী]] প্রকাশ করেন । এই পত্রিকাটি তিনি আমৃত্যু চুয়াল্লিশ বছর ধরে সম্পাদনা করেন । তিনি একে একে রাজপুর স্কুল, হরিনাভি স্কুল , কোন্নগর স্কুল এবং কলকাতার সিটি স্কুলের প্রধান শিক্ষকের দায়িত্ব পালন করেছিলেন । সিটি কলেজ প্রতিষ্ঠার পর আমৃত্যু তিনি তার অধ্যক্ষ ছিলেন । কলকাতার মূক ও বধির বিদ্যালয়ের তিনি প্রতিষ্ঠাতা ছিলেন ।
শিলাইদহে কবি [[মাইকেল মধুসূদন দত্ত|মাইকেল মধুসূদন দত্তের]] সমাধিতে 'দাঁড়াও পথিকবর জন্ম তব ....' খোদিত ফলকটি তাঁরতার উদ্যোগেই স্থাপিত হয়েছিল ।
 
{{অসম্পূর্ণ}}
১,৮১,০৪১টি

সম্পাদনা