"দীনেশ গুপ্ত" পাতাটির দুইটি সংশোধিত সংস্করণের মধ্যে পার্থক্য

বট নিবন্ধ পরিষ্কার করেছে। কোন সমস্যায় এর পরিচালককে জানান।
ট্যাগ: মোবাইল সম্পাদনা মোবাইল অ্যাপ সম্পাদনা অ্যান্ড্রয়েড অ্যাপ সম্পাদনা
(বট নিবন্ধ পরিষ্কার করেছে। কোন সমস্যায় এর পরিচালককে জানান।)
[[চিত্র:Binay Badal Dinesh - Wikimedia Photowalk Kolkata 20111218 IMG 4578.jpg|thumb|[[কলকাতা]]র [[বিবাদীবাগ|বিবাদীবাগে]] বিনয় বসু ও বাদল গুপ্তের সঙ্গে দীনেশ গুপ্তের প্রতিমূর্তি (ডানদিকে)]]
[[চিত্র:Dinesh Gupta.jpg|right|thumb|দীনেশ গুপ্ত''' ([[১৯১২]]-[[১৯৩০]]) একজন বাঙালি বিপ্লবী ও মুক্তিসংগ্রামী]]
'''দীনেশচন্দ্র গুপ্ত''' (জন্ম - [[৬ ডিসেম্বর]], [[১৯১১]]: মৃত্যু - [[৭ জুলাই]], [[১৯৩১]]) ছিলেন [[ভারতের স্বাধীনতা আন্দোলন|ভারতের স্বাধীনতা আন্দোলনে]] অংশগ্রহণকারী একজন স্বনামধন্য [[বাঙালি]] বিপ্লবী। তিনি '''দীনেশ গুপ্ত''' নামেই সমধিক পরিচিত। তিনি [[ঢাকা]] ও [[মেদিনীপুর|মেদিনীপুরে]] বিপ্লবী সংগঠন গড়ে তুলেছিলেন। মেদিনীপুরে তাঁরতার সংগঠন পরপর তিন জন জেলা ম্যাজিস্ট্রেটকে হত্যা করেছিল।<ref name = charitabhidhan>''বাঙালি চরিতাভিধান'' প্রথম খণ্ড, সুবোধচন্দ্র সেনগুপ্ত ও অঞ্জলি বসু সম্পাদিত, সাহিত্য সংসদ, কলকাতা, সংশোধিত চতুর্থ সংস্করণ, ১৯৯৮, পৃ. ২০৭</ref> ১৯৩০ সালের ৮ ডিসেম্বর বিপ্লবী [[বিনয় বসু|বিনয় বসুর]] নেতৃত্বে তিনি ও [[বাদল গুপ্ত]] [[কলকাতা|কলকাতার]] [[রাইটার্স বিল্ডিং]] (বর্তমান [[মহাকরণ]]) ভবনে অভিযান চালিয়ে,
বিভাগের অত্যাচারী ইন্সপেক্টর জেনারেল সিম্পসনকে হত্যা করেন। রাইটার্স বিল্ডিং-এর অলিন্দে পুলিশের সঙ্গে তাঁদের খণ্ডযুদ্ধে বেশ কয়েকজন উচ্চপদস্থ ইউরোপীয় কর্মচারী গুরুতরভাবে আহতও হন। এরপর তাঁরাতারা আত্মহত্যার চেষ্টা করেন। অপর দুই বিপ্লবী আত্মহত্যায় সমর্থ হলেও মৃতপ্রায় দীনেশকে পুলিশ বাঁচিয়ে তুলতে সক্ষম হয়। বিচারে তাঁরতার ফাঁসির আদেশ হয়। মৃত্যুর পূর্বে জেলে বসে তিনি কয়েকটি চিঠি লিখেছিলেন। এই চিঠিগুলি ভারতের বিপ্লবী ইতিহাসের গুরুত্বপূর্ণ দলিল এবং সাহিত্যিক বিচারেও অত্যন্ত মূল্যবান।<ref name = charitabhidhan/> স্বাধীনতার পর তাঁরতারতাঁরতার অপর দুই সহবিপ্লবীর সম্মানার্থে কলকাতার প্রসিদ্ধ ডালহৌসি স্কোয়ারের নাম [[বিনয়-বাদল-দীনেশ বাগ]] (সংক্ষেপে বিবাদীবাগ) রাখা হয়।
 
== প্রাথমিক জীবন ==
বিপ্লবী দীনেশ গুপ্তের জন্ম হয় ১৯১১ সালের ৬ ডিসেম্বর (বাংলা ১৩১৮ সালের ২০ অগ্রহায়ণ) তদনীন্তন ঢাকা জেলার (অধুনা [[বাংলাদেশ]] রাষ্ট্রের [[মুন্সিগঞ্জ জেলা]]) যশোলঙে। তাঁরতার পিতার নাম সতীশচন্দ্র গুপ্ত ও মায়ের নাম বিনোদিনী দেবী। দীনেশ গুপ্তের ডাকনাম ছিল নসু।<ref name = charitabhidhan/> চার ভাই ও চার বোনের মধ্যে দীনেশ ছিলেন পিতামাতার তৃতীয় সন্তান। সতীশচন্দ্র ছিলেন ডাক বিভাগের কর্মচারী। চাকরির সূত্রে তিনি কিছুকাল গৌরীপুরে অবস্থান করেন। গৌরীপুরের পাঠশালাতেই দীনেশের শিক্ষারম্ভ। পরে নয় বছর বয়সে ভর্তি হন [[ঢাকা কলেজিয়েট স্কুল|ঢাকা কলেজিয়েট স্কুলে]]। প্রথম দিকে দীনেশ ঢাকার গ্যান্ডারিয়া অঞ্চলে দাদুর বাড়িতে বাস করতেন, পরে উয়াড়িতে পৈত্রিক বাসভবনে চলে আসেন। বাল্যকাল থেকেই দীনেশ ছিলেন নির্ভীক, বেপরোয়া ও বাগ্মী। এই সময় থেকেই তাঁরতার মনে স্বদেশ চেতনা ও ব্রিটিশ বিরোধিতার আদর্শ সঞ্চারিত হয়েছিল।<ref name = jibonsahityopatrabali>''শহীদ দীনেশ গুপ্তের জীবন, সাহিত্য ও পত্রাবলী'', অসিতাভ দাস, রচয়িতা, কলকাতা, ২০০৮, পৃ. ২-৩</ref>
 
== বিপ্লবী জীবনের সূচনা ==
কৈশোরে দীনেশ বেঙ্গল ভলেন্টিয়ার্স (বিভি) নামে একটি গুপ্ত বিপ্লবী সংগঠনের সদস্য হন।<ref>''শহীদ দীনেশ গুপ্তের জীবন, সাহিত্য ও পত্রাবলী'', পৃ. ৪</ref> ১৯২৬ সালে ঢাকা বোর্ড থেকে ম্যাট্রিক পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হওয়ার পর তিনি [[মেদিনীপুর|মেদিনীপুরে]] কর্মরত তাঁরতার বড়োদাদা যতীশচন্দ্র গুপ্তের কাছে বেড়াতে আসেন। এই সময় থেকেই মেদিনীপুর শহরে বিপ্লবী সংগঠন গড়ে তোলার সুপ্ত বাসনা তাঁরতার মনে জাগে। কিন্তু দলের নির্দেশে সেবার তাঁকেতাকে ঢাকায় ফিরে আসতে হয়েছিল বলে তিনি মেদিনীপুরে বিশেষ কিছুই পরে উঠতে পারেননি।<ref>''শহীদ দীনেশ গুপ্তের জীবন, সাহিত্য ও পত্রাবলী'', পৃ. ৬</ref>
 
১৯২৮ সালে তিনি [[ঢাকা কলেজ]] থেকে আইএসসি পরীক্ষা দেন। কিন্তু এই পরীক্ষায় তিনি কৃতকার্য হতে পারেননি। এরপর তিনি মেদিনীপুরে গিয়ে পড়াশোনা করার সিদ্ধান্ত নেন। দলের তরফ থেকে দীনেশকে মেদিনীপুরে বিভির শাখা স্থাপনের দায়িত্ব দেওয়া হয়। মেদিনীপুরে এসে দল সংগঠন ও সদস্য সংগ্রহের পাশাপাশি পড়াশোনাও চালিয়ে যান তিনি। <ref>''শহীদ দীনেশ গুপ্তের জীবন, সাহিত্য ও পত্রাবলী'', পৃ. ৮-১০</ref>
 
ঢাকা কলেজে পড়ার সময় ১৯২৮ সালে দীনেশ 'ভারতীয় জাতীয় কংগ্রেস'-এর কলকাতা সেশনের প্রাক্কালে নেতাজী সুভাষ চন্দ্র বোস সংগঠিত 'বেঙ্গল ভলান্টিয়ার্সে যোগদান করেন। শীঘ্রই বেঙ্গল ভলান্টিয়ার্স একটি সক্রিয় বিপ্লবী সংগঠনে পরিবর্তিত হয় এবং কুখ্যাত ব্রিটিশ পুলিশ অফিসারদেরকে হত্যা/ নিশ্চিহ্ন করার পরিকল্পনা করে। স্থানীয় বিপ্লবীদের আগ্নেয়াস্ত্র চালনা শেখানোর জন্য দিনেশ গুপ্ত কিছু সময় মেদিনীপুরেও ছিলেন।তাঁরছিলেন।তার প্রশিক্ষিত বিপ্লবীরা ডগলাস(Douglas), বার্জ(Burge) এবং পেডি(Peddy)--এই তিনজন জেলা ম্যাজিস্ট্রটকে পরপর হত্যা করেছিল।
 
== রাইটার্স ভবনে হামলা ==
সংগঠনটি জেলের ইন্সপেক্টর জেনারেল কর্নেল এনএস সিম্পসনকে টার্গেট করেছিল যে কিনা জেলখানার বন্দীদের উপর পাশবিক নির্যাতনের জন্য কুখ্যাত ছিল।এই বিপ্লবীরা সিদ্ধান্ত নিয়েছিলেন যে তারা শুধু সিম্পসনকে হত্যা করেই ক্ষান্ত হবেন না, বরং কলকাতার ডালহৌসি স্কোয়ারে অবস্থিত ব্রিটিশ শাসকদের সচিবালয় [[রাইটার্স বিল্ডিং|রাইটার্স ভবনে]] আক্রমণ করে ব্রিটিশ অফিস পাড়ায় ত্রাস সৃষ্টি করবেন ।
[[১৯৩০]] সালের [[ডিসেম্বর ৮|৮ই ডিসেম্বর]] দীনেশ তাঁরতার দুই সঙ্গী [[বিনয় বসু]] এবং [[বাদল গুপ্ত]]সহ ইউরোপীয় পোশাকে রাইটার্স বিল্ডিংয়ে প্রবেশ করেন এবং সিম্পসনকে গুলি করে হত্যা করেন।
ব্রিটিশ পুলিশ গুলি শুরু করে।যার ফলশ্রুতিতে এই তিন তরুণ বিপ্লবীর সাথে পুলিশের একটি সংক্ষিপ্ত বন্দুকযুদ্ধ হয়।টোয়াইনাম (Twynum), প্রেন্টিস(Prentice) এবং নেলসন(Nelson)-এর মত অন্য কিছু অফিসার গোলাগুলিতে আহত হয়।
পুলিশ দ্রুতই তাঁদেরকে পরাভূত করে ফেলে।কিন্তু এই তিনজনের গ্রেফতার হওয়ার কোনো ইচ্ছে ছিল না।
 
== বিচার এবং ফাঁসি ==
দীনেশ কোনোরকমে এ চরম আঘাত থেকে বেঁচে ওঠেন।তাঁকেওঠেন।তাকে বিচারের মুখোমুখি করা হয়েছিল এবং বিচারের রায় ছিল সরকারবিরোধী কর্মকাণ্ড এবং খুনের জন্য ফাঁসিতে ঝুলিয়ে মৃত্যু। [[১৯৩১]] সালের [[জুলাই ৭|৭ই জুলাই]] [[আলীপুর জেল|আলীপুর জেলে]] ফাঁসির দণ্ড কার্যকর করার সময় তাঁরতার বয়স ছিল মাত্র ১৯ বছর।
 
== গুরুত্ব ==
১,৮৬,১২৭টি

সম্পাদনা