"বামাখ্যাপা" পাতাটির দুইটি সংশোধিত সংস্করণের মধ্যে পার্থক্য

বট নিবন্ধ পরিষ্কার করেছে। কোন সমস্যায় এর পরিচালককে জানান।
(37.111.204.209-এর সম্পাদিত সংস্করণ হতে 150.129.177.17-এর সম্পাদিত সর্বশেষ সংস্করণে ফেরত)
ট্যাগ: পুনর্বহাল
(বট নিবন্ধ পরিষ্কার করেছে। কোন সমস্যায় এর পরিচালককে জানান।)
বামাখ্যাপা ছেলেবেলায় গৃহত্যাগ করে তিনি কৈলাশপতি বাবা নামে এক সন্ন্যাসীর শিষ্যত্ব গ্রহণ করেন। কৈলাশপতি বাবা তারাপীঠে থাকতেন। বামাখ্যাপা তারাপীঠেই [[দ্বারকা নদ|দ্বারকা নদে]]<nowiki/>র তীরে যোগ ও তন্ত্রসাধনা করেন। পরে তিনি নিকটবর্তী মল্লরাজাদের মন্দিরময় গ্রাম [[মালুটি]] (অধুনা [[ঝাড়খণ্ড]] রাজ্য)<nowiki/>তে যান যোগ সাধনার জন্যে। সেখানে দ্বারকার তীরে মৌলাক্ষী দেবীর মন্দিরে সাধনাকালে প্রায় ১৮ মাস অবস্থান করেন।
[[চিত্র:Bamakhyapa's_Temple.jpg|থাম্ব|Bamakhyapa's Temple. Maluti village, Jharkhand]]
ক্রমে তিনি তারাপীঠের প্রধান ধর্মীয় ব্যক্তিত্ব হয়ে ওঠেন। ভক্তরা বিশ্বাস করত তাঁরতার অলৌকিক ক্ষমতা আছে। তাই তাঁরাতারা রোগারোগ্য ও অন্যান্য প্রয়োজনে তাঁরতার কাছে আসত। বামাখ্যাপা মন্দিরের নিয়মকানুন মানতেন না। এমনকি দেবতার থালা থেকেই নৈবেদ্য তুলে খেয়ে নিতেন। কথিত আছে, [[নাটোর|নাটোরের]] মহারানিকে স্বপ্নে দেবী তারার প্রত্যাদেশ পান যে, দেবীপুত্র বলে বামাখ্যাপাকে যেন আগে খাওয়ানো হয়। এরপর থেকে মন্দিরে পূজার আগেই বামাখ্যাপাকে নৈবেদ্য প্রদান এবং তাঁকেতাকে অবাধে মন্দিরে বিচরণ করতে দেওয়া হত।<ref name="Harding">{{বই উদ্ধৃতি|শেষাংশ= Harding|প্রথমাংশ= Elizabeth U.|শিরোনাম= Kali: the black goddess of Dakshineswar|পাতাসমূহ=275–279|সংগ্রহের-তারিখ=2010-06-26| ইউআরএল=http://books.google.co.in/books?id=4woiJbQTsBQC&pg=PA274&dq=The+tantric+Tarapith&hl=en&ei=tIUhTLXiBoOFrAfmysXXDg&sa=X&oi=book_result&ct=result&resnum=3&ved=0CDIQ6AEwAg#v=onepage&q=The%20tantric%20Tarapith&f=false|প্রকাশক= Motilal Banarsidass Publ.|বছর=1998|আইএসবিএন=8120814509}}</ref> আরও কথিত আছে, দেবী তারা ভয়ংকর বেশে বামাখ্যাপাকে দর্শন দিয়েছিলেন এবং পরে মাতৃবেশে কোলে তুলে নিয়েছিলেন।<ref name="Kinsely, p. 111" /> তারাপীঠ শ্মশানে ও দুমকা জেলার মালুটি গ্রামের তার স্মৃতিমন্দির আছে।<ref>{{ওয়েব উদ্ধৃতি|ইউআরএল=http://www.khabarindiaonline.com/%E0%A6%AC%E0%A6%BE%E0%A6%AE%E0%A6%BE%E0%A6%96%E0%A7%8D%E0%A6%AF%E0%A6%BE%E0%A6%AA%E0%A6%BE%E0%A6%B0-%E0%A6%86%E0%A6%AC%E0%A6%BF%E0%A6%B0%E0%A7%8D%E0%A6%AD%E0%A6%BE%E0%A6%AC-%E0%A6%A4%E0%A6%BF%E0%A6%A5/|শিরোনাম=বামাখ্যাপার আবির্ভাব তিথি|শেষাংশ=খায়রুল আনম|প্রথমাংশ=|তারিখ=|ওয়েবসাইট=|প্রকাশক=খবর ইন্ডিয়া অনলাইন|সংগ্রহের-তারিখ=১১ এপ্রিল ২০১৭}}{{অকার্যকর সংযোগ|তারিখ=মার্চ ২০১৯ |bot=InternetArchiveBot |ঠিক করার প্রচেষ্টা=yes }}</ref>
 
== জনপ্রিয় সংস্কৃতিতে ==
 
===স্বামী বিবেকাকোনদের সাক্ষাৎ===
মাত্র ১৯ বয়সে ঠাকুর রামকৃষ্ণের সংস্পর্শে আসার পর নরেন্দ্রনাথ বামাখ্যাপাকে দর্শন করার জন্য তাঁরতার কলেজের সহপাঠী শরৎচন্দ্র চক্রবর্তীকে জানান। শরৎচন্দ্র তাঁকেতাকে বলেন, ‘তুমি তো ঠাকুরের দেখা পেয়েছো। আবার কেন সেই ব্রহ্মজ্ঞ পুরুষকে দেখতে চাও?’
ব্রহ্মজ্ঞ পুরুষদের চারটি অবস্থা বালকবৎ, জড়বৎ, উন্মাদবৎ এবং পিশাচবৎ। এই চারটি অবস্থাই ব্যামাক্ষ্যাপার মধ্যে দেখা যেত। কিন্তু ঠাকুর রামকৃষ্ণের মধ্যে পিশাচবৎ ভাবটি অনুপস্থিত ছিল। তাই বামাক্ষ্যাপাকে দেখার জন্য নরেন্দ্রনাথ আকুল হয়ে ওঠেন। শেষে শরৎচন্দ্রকে নিয়ে নরেন্দ্রনাথ চলে এলেন তারাপীঠে। সেখানে বামাক্ষ্যাপা ও নরেন্দ্রনাথ দেখা হয়। আর তাঁরতার সম্পর্কে বামাক্ষ্যাপা তাঁরতার বন্ধু শরৎচন্দ্রকে বললেন, এই যুবক একদিন ধর্মের মুখ উজ্জ্বল করবে।<ref name=":0">{{ওয়েব উদ্ধৃতি|ইউআরএল=http://bartamanpatrika.com/detailNews.php?cID=34&nID=109436&nPID=20180609|শিরোনাম=তারামায়ের ছেলে বামাক্ষ্যাপা|শেষাংশ=বর্তমান পত্রিকা|প্রথমাংশ=|তারিখ=|ওয়েবসাইট=bartamanpatrika.com|সংগ্রহের-তারিখ=2019-01-18}}</ref>
 
===মহর্ষি দেবেন্দ্রনাথ ঠাকুরের সাথে সাক্ষাৎ ===
 
===আশুতোষ মুখোপাধ্যায়ের সাথে সাক্ষাৎ===
বাংলার বাঘ স্যার আশুতোষ মুখোপাধ্যায় ১৯০১ খ্রিস্টাব্দে তাঁরতার মা এবং স্ত্রীকে নিয়ে তারাপীঠে বামাক্ষ্যাপাকে দর্শন করার জন্য গিয়েছিলেন। আশুতোষ বামাক্ষ্যাপাকে ভক্তিভরে প্রণাম করতেই তিনি বলে উঠেছিলেন, {{cquote|যা যা, তোর মনের ইচ্ছা পূর্ণ হবে। তুই শালা জজ হবি।}}
তিনি তো তখন হাইকোর্টের আইনজীবী। কিন্তু মনে জজ হওয়ার খুব ইচ্ছে ছিল তাঁর।তার। ১৯০৪ সালে তিনি হাইকোর্টের জজ হন।<ref name=":0" />
 
===রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর ও মুকুন্দদাসের সাথে সাক্ষাৎ===
১,৭৮,৫৭৪টি

সম্পাদনা