"আন্দুলবাড়ীয়া ইউনিয়ন" পাতাটির দুইটি সংশোধিত সংস্করণের মধ্যে পার্থক্য

সম্প্রসারণ, তথ্যসূত্র
(→‎ইতিহাস: তথ্যসূত্র, সম্প্রসারণ)
(সম্প্রসারণ, তথ্যসূত্র)
 
== ইতিহাস ==
সুলতানি আমলের (১৩৩৮ খ্রিঃ - ১৫৩৮ খ্রিঃ) বেশ কিছু নিদর্শন আবিষ্কারের পর ধারণা করা হয়, ছয়শ' বছর আগেই এই ইউনিয়নে বেশ কিছু প্রসিদ্ধ বাজার এবং স্থাপনা গড়ে উঠে। এখনো এলাকার বিভিন্ন স্থানে কিছু পুরাতাত্বিক স্থাপনা দেখা যায়। খাঁজা পারেশ সাহেব (রহঃ) এর মাজার ও ইবাদতখানা, কর্চাডাংগার মন্দিরতলা, মিস্ত্রি পাড়া ঈদগাহের স্থাপনাঅজ্ঞাত ইমারত এগুলি উল্ল্যেখযোগ্য।
১৯৭১ সালের মহান মুক্তিযুদ্ধে আন্দুলবাড়িয়া ৮ নং সেক্টরের অধীনে ছিল। পাকবাহিনী ও মুক্তিযোদ্ধাদের মধ্যে এখানে একটি যুদ্ধ হয় যা <big>আন্দুলবাড়িয়ার যুদ্ধ</big> নামে পরিচিত।
এই যুদ্ধে ঘটনাস্থলেই শহীদ হন গ্রুপ কমান্ডার আনোয়ার হোসেন, হতাহত হন মুক্তিযোদ্ধা আব্দুল মান্নান সহ অনেকে<ref>{{ওয়েব উদ্ধৃতি|ইউআরএল=https://samajerkatha.com/2017/01/27/%E0%A6%AA%E0%A6%BE%E0%A6%95-%E0%A6%AC%E0%A6%BE%E0%A6%B9%E0%A6%BF%E0%A6%A8%E0%A7%80%E0%A6%B0-%E0%A6%B8%E0%A6%BE%E0%A6%A5%E0%A7%87-%E0%A6%B8%E0%A6%AE%E0%A7%8D%E0%A6%AE%E0%A7%81%E0%A6%96-%E0%A6%AF/|শিরোনাম=পাক-বাহিনীর সাথে সম্মুখ যুদ্ধে দু’চোখ হারানো আব্দুল মান্নান আজও মুক্তিযোদ্ধার স্বীকৃতি পাননি- সমাজের কথা}}</ref>।
==অর্থনীতি==
এ ইউনিয়নের অর্থনীতি মূলত কৃষি নির্ভর। এখানে ধান, ভূট্টা, পাট সহ বিভিন্ন ফসল উৎপাদিত হয়।
 
== দর্শনীয় স্থান ==
* খাঁজা পারেশ সাহেব (রহঃ) এর মাজার ও ইবাদতখানা, আনুমানিক ছয়শ'ত বছরের পুরানো সূফী সাধকের মাজার এবং তার ইবাদতখানা<ref>{{ওয়েব উদ্ধৃতি|ইউআরএল=https://samajerkatha.com/2017/01/27/%E0%A6%AA%E0%A6%BE%E0%A6%95-%E0%A6%AC%E0%A6%BE%E0%A6%B9%E0%A6%BF%E0%A6%A8%E0%A7%80%E0%A6%B0-%E0%A6%B8%E0%A6%BE%E0%A6%A5%E0%A7%87-%E0%A6%B8%E0%A6%AE%E0%A7%8D%E0%A6%AE%E0%A7%81%E0%A6%96-%E0%A6%AF/|শিরোনাম=পাক-বাহিনীর সাথে সম্মুখ যুদ্ধে দু’চোখ হারানো আব্দুল মান্নান আজও মুক্তিযোদ্ধার স্বীকৃতি পাননি- সমাজের কথা}}</ref>।
* কর্চাডাংগার মন্দিরতলা, সুলতানি আমলের মন্দির
 
 
[[বিষয়শ্রেণী:জীবননগর উপজেলার ইউনিয়ন]]
২৬১টি

সম্পাদনা