"স্বেচ্ছাসেবী কাজ" পাতাটির দুইটি সংশোধিত সংস্করণের মধ্যে পার্থক্য

অনুবাদ
(অনুবাদ)
(অনুবাদ)
=== সামাজিক স্বেচ্ছাসেবী কাজ  বা কল্যানমুলক স্বেচ্ছাসেবী কাজ ===
ইউরোপের কিছু দেশের সরকারি আর বেসরকারি সংস্থাগুলো একটি নির্দিষ্ট সময় পর্যন্ত হাসপাতাল, স্কুল, স্মারক বহনকারী এবং কল্যাণ প্রতিষ্ঠানের মতো জায়গায় একটি সহায়ক অবস্থান প্রদান করে। অন্যান্য স্বেচ্ছাসেবী কাজের সাথে এর পার্থক্য হলো, একটি কঠোর আইনী বিধিমালা আছে যে, কোন সংস্থাগুলো স্বেচ্ছাসেবকদের নিয়োগ করতে পারবে আর কত সময়ের জন্য একজন স্বেচ্ছাসেবক স্বেচ্ছাসেবী কাজে নিয়োজিত থাকতে পারবে। এই ধরণের নিয়মের ফলে, একজন স্বেচ্ছাসেবক একটি নির্দিষ্ট পরিমান অর্থ সরকার থেকে আয় করতে পারে। ইউরোপের সব থেকে বড় জনশক্তি রয়েছে, জার্মান ফেডারেল ভলান্টিয়ার্স সার্ভিস এর (Bundesfreiwilligendienst), যেটি ২০১১ সালে যাত্রা শুরু করে, যার ২০১২ সালে ৩৫,০০০ এর বেশি ফেডারেল স্বেচ্ছাসেবক রয়েছে।[৩১] ভলান্টারী সোশ্যাল ইয়ার (Freiwilliges Soziales Jahr) হচ্ছে অস্ট্রিয়া আর জার্মানি- এর সবচে পুরোনো প্রতিষ্ঠান।[৩২][৩৩]   
 
=== বৃহত্তর ক্রীড়া প্রতিযোগিতায় স্বেচ্ছাসেবী কাজ ===
২০১৪ সালের সোচি উইন্টার অলিম্পিকসে ২৫,০০০ সোচি অলিম্পিকস স্বেচ্ছাসেবক কাজ করেছিল। তারা ২০ এরও বেশি কার্যক্ষেত্রে আয়োজকদের সাহায্য করেছিল: অতিথিদের সাথে অধিবেশন, নৌযাত্রায় সহযোগিতা, অনুষ্ঠানের শুরু আর সমাপ্তির আয়োজন, খাবার পরিবেশনদ্বারের আয়োজন, ইত্যাদি।স্বেচ্ছাসেবকদের আবেদন করার প্রক্রিয়া রাশিয়ার যেকোনো জাতি আর অন্যান্য দেশের জন্য উন্মুক্ত ছিল। সোচি ২০১৪ এর আয়োজক কমিটি প্রায় ২০০,০০০ আবেদনপত্র পেয়েছিলো, ৮ জন প্রার্থী প্রতি কার্যক্ষেত্রে জন্য। স্বেচ্ছাসেবকরা রাশিয়ার ১৭ টি শহরের ২৬ স্বেচ্ছাসেবক কেন্দ্রে প্রশিক্ষণ নিয়েছিল প্রায় এক বছরেরও বেশি সময় ধরে। অংশগ্রহণকারীদের অনেকের বয়স ১৭ থেকে ২২ বছর পর্যন্ত ছিল। এই সময়ই, ৫৫ বছরেরও বেশি বয়সের লোকেদের ৩০০০ আবেদনপত্র জমা পড়েছিল। ১৯৮০ সালের মস্কো অলিম্পিকসে এদের অনেকেই কাজ করেছিল। এটি সমসাময়িক রাশিয়াতে অনেক বড় স্বেচ্ছাসেবা কার্যক্রমের প্রথম অভিজ্ঞতা ছিল।
 
==== রাশিয়ার ২০১৭ ফিফা কনফেডারেশনস কাপ এবং ২০১৮ ফিফা বিশ্বকাপ ====
ইতিহাসে এই প্রথমবারের মতো রাশিয়া ফিফা বিশ্বকাপ আয়োজন করে ২০১৮ সালের ১৪ জুন থেকে ১৫ জুলাই পর্যন্ত। সেইসঙ্গে, এটাই প্রথমবার যখন বিশ্বকাপ খেলা ইউরোপ আর এশিয়া দুই জায়গায় অনুষ্ঠিত হবে। খেলাগুলি রাশিয়ার ১১ টি শহরের ১২ টি স্টেডিয়ামে অনুষ্ঠিত হবে।[৩৪]
 
২০১৮ সালের ফিফা বিশ্বকাপ এর জন্য স্বেচ্ছাসেবী কাজের কার্যক্রমে রাশিয়া আর অন্যান্য দেশের  সহস্র মানুষ যোগদান করে।
 
এই কার্যক্রমে বিভিন্ন পর্যায় ছিল: স্বেচ্ছাসেবকদের যোগদান, বাছাইকরণ আর প্রশিক্ষণ, প্রতিযোগিতা চলাকালীন তাদের কাজ সংগঠিত করা। ফিফা.কম এর মাধ্যমে ফিফা কনফেডারেশনস কাপ এবং ফিফা বিশ্বকাপ এর জন্য স্বেচ্ছাসেবকদের যোগদান শুরু হয় ২০১৬ সালের ১লা জুন আর শেষ হয় ২০১৬ সালের ৩০ শে ডিসেম্বর। কিছু সংখক স্বেচ্ছাসেবক ২০১৭ সালের ফিফা কনফেডারেশনস কাপ এ কাজ করেছিলেন: ১৭৩৩ জন লোক সেইন্ট পিটার্সবার্গ, ১৫৯০ জন মস্কো, ১২৬১ জন সোচি, ১২৬০ জন কাজান, মোট ৫৮৪৪ অংশগ্রহণকারী আয়োজকদের সাহায্য করেছিলেন।
 
২০১৮ ফিফা বিশ্বকাপ রাশিয়ার স্থানীয় আয়োজক কমিটির ১৭,০৪০  জন স্বেচ্ছাসেবকদের দ্বারা সংগঠিত হবে।
 
রাশিয়ার কিছু প্রধান উচ্চ শিক্ষার প্রতিষ্ঠান আয়োজক দেশের ১৫ সেচ্ছাসেবক কেন্দ্রের মাধ্যমে প্রার্থী যারা রাশিয়াতে বসবাস করে তাদের নির্বাচিত করে: সিনারজি ইউনিভার্সিটি, মস্কো স্টেট  ইনস্টিটিউট অফ ইন্টারন্যাশনাল রিলেশনস, প্লেখানভ রাশিয়ান ইউনিভার্সিটি অফ  ইকোনমিক্স, রাশিয়ান স্টেট সোশ্যাল ইউনিভার্সিটি, মস্কো অটোমোবাইল এন্ড রোড কনস্ট্রাকশন  ইউনিভার্সিটি, সেইন্ট পিটার্সবার্গ স্টেট ইউনিভার্সিটি অফ ইকোনমিক্স, সামারা স্টেট ইউনিভার্সিটি, ভলগা রিজিওন স্টেট একাডেমি অফ ফিজিক্যাল কালচার, স্পোর্ট এন্ড ট্যুরিজম, ডন স্টেট টেকনিকাল ইউনিভার্সিটি, অগরেব মর্ডোভিয়া স্টেট  ইউনিভার্সিটি, ভোলগোগ্রাড স্টেট  ইউনিভার্সিটি, স্টেট ইউনিভার্সিটি অফ নিজহনী নবগোরড, সামারা স্টেট এরোস্পেস  ইউনিভার্সিটি, ইম্মানুয়েল কান্ট্ বাল্টিক ফেডারেল ইউনিভার্সিটি, আর ইউরাল ফেডারেল ইউনিভার্সিটি।
৩৬টি

সম্পাদনা