"ক্রিটেশিয়াস–প্যালিওজিন বিলুপ্তি ঘটনা" পাতাটির দুইটি সংশোধিত সংস্করণের মধ্যে পার্থক্য

 
==== ক্রোকোডাইলিফর্ম ====
মাস্ট্রিক্টিয়ান জীবাশ্ম বিবরণে ক্রোকোডাইলিয়ান ও তাদের জ্ঞাতি মিলিয়ে দশটি গোত্রের চিহ্ন পাওয়া যায়। এদের মধ্যে পাঁচটি K-Pg সীমানা অতিক্রম করতে ব্যর্থ হয়। অন্য পাঁচটি গোত্রের জীবাশ্ম মাস্ট্রিক্টিয়ান ও প্যালিওসিন দুই দিক থেকেই পাওয়া গেছে। জীবিত সব কয়টি ক্রোকোডাইলিফর্ম গোত্রই স্থলে বা মিঠেজলের পরিবেশে বাস করত। একমাত্র ব্যতিক্রম ছিল ড্রাইরোসরিডি, যারা মিঠেজল ও নোনাজল উভয় পরিবেশেই থাকত। বিলুপ্তি ঘটনা এড়াতে ক্রোকোডাইলিফর্মদের সাফল্য সম্ভবতঃ এসেছিল তাদের অংশতঃ জলচর জীবনযাত্রা এবং মাটিতে গর্ত করে থাকার ক্ষমতার দৌলতে। গর্তে ঢুকে গেলে বাইরের প্রতিকূল পরিবেশের ক্ষতিকর প্রভাব অনেকাংশে এড়ানো যায়। ২০০৮ খৃঃ ইয়ুভ ও সহকর্মীরা প্রস্তাব দেন যে আধুনিক সামুদ্রিক কুমিরছানারা যেমন জীবনের প্রথম কিছুদিন মিঠেজলে থাকে, তাদের ক্রিটেশিয়াস-প্যালিওজিনবাসী পূর্বজদের ছানাপোনারাও তেমনি মিঠেজলে থাকত, যার ফলে অন্যান্য সামুদ্রিক সরীসৃপ লুপ্ত হয়ে গেলেও তারা বেঁচে যায়। বিলুপ্তি ঘটনাটিতে মিঠেজলের বাস্তুতন্ত্র নোনাজলের বাস্তুতন্ত্রের মত ব্যাপকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হয়নি।
মাস্ট্রিক্টিয়ান জীবাশ্ম বিবরণে ক্রোকোডাইলিয়ান ও তাদের জ্ঞাতি মিলিয়ে দশটি গোত্রের চিহ্ন পাওয়া যায়। এদের মধ্যে পাঁচটি K-Pg সীমানা অতিক্রম করতে ব্যর্থ হয়।
 
==== টেরোসর ====
টেরোসরদের একটি গোত্র আঝদার্কিডি অবশ্যই মাস্ট্রিক্টিয়ানে বেঁচে ছিল, আর ক্রিটেশিয়াস-প্যালিওজিন বিলুপ্তির সময়ে লুপ্ত হয়ে যায়। এরা ছিল মধ্য ক্রিটেশিয়াসের দশটি গোত্র সম্বলিত একটি ক্রমহ্রাসমান শাখার শেষ প্রতিনিধি। মাস্ট্রিক্টিয়ানে আরও অনেক টেরোসর গোত্রের অস্তিত্বের সম্ভাবনা আছে, যেমন অর্নিথোকেইরিড, টেরানোডোনিড, নিক্টোসরিড ও সম্ভবতঃ টাপেজারিড, যদিও শেষোক্ত গোত্রটির কেবল আংশিক অবশেষই পাওয়া গেছে এবং সেগুলিকে নির্দিষ্ট কোনও গোষ্ঠীর বলে দাগিয়ে দেওয়া মুশকিল। টেরোসরদের বিলোপন চলাকালীনই পাখিদের বিবর্তনীয় বিকিরণ চলছিল; আগে মনে করা হত আধুনিক পাখিরা এই সময়ে প্রত্যক্ষ প্রতিযোগিতা বা খালি বাস্তুতান্ত্রিক ধাপ পূরণ করার সুবাদে প্রাচীন পাখি ও টেরোসরদের হারিয়ে দেয়। কিন্তু টেরোসর ও পাখিদের বিবর্তনীয় উত্থান ও পতনের মধ্যে কোনও কার্যকারণ সম্পর্কের চিহ্ন পাওয়া যায়নি। অন্ত্য ক্রিটেশিয়াস পর্যন্তও কিছু কিছু ক্ষুদ্রাকার টেরোসর টিঁকে ছিল। এমনকি K-Pg ঘটনার ঠিক আগে বাস্তুতন্ত্রের কোনও কোনও ধাপ এই টেরোসরেরা পাখিদের কাছ থেকে ছিনিয়েও নিয়েছিল।
 
==== পাখি ====
অধিকাংশ পুরাজীববিদ পাখিদেরকে ডাইনোসরদের একমাত্র জীবিত প্রতিনিধি মনে করেন (দেখুন [[পাখিদের উৎপত্তি]])। মনে করা হয় এনান্টিঅর্নিথিন ও হেস্পারর্নিথিফর্ম সমেত সমস্ত উড্ডয়নে অক্ষম থেরোপডই বিলুপ্ত হয়ে গিয়েছিল। পাখিদের জীবাশ্মের বারংবার বিশ্লেষণ থেকে দেখা যায় K-Pg ঘটনার আগে পাখিদের প্রজাতিকরণ হয়েছিল, আর হাঁস, মুরগি ও র‍্যাটাইট পাখিরা উড্ডয়নে অক্ষম ডাইনোসরদের সঙ্গে একই সময়ে বাস করত। বিভিন্ন পক্ষী-প্রজাতির বহুসংখ্যক জীবাশ্ম থেকে K-Pg সীমানার তিন লক্ষ বছর আগে পর্যন্ত প্রাচীন পাখিদের অস্তিত্বের প্রমাণ পাওয়া যায়। ঐ সীমানার পরে প্যালিওজিনে এদের আর কোনও চিহ্ন দেখা যায় না; অর্থাৎ তখন পাখিদেরও একটি বৃহৎ বিলোপনের শিকার হতে হয়েছিল। ক্রিটেশিয়াসের যাবতীয় পাখিদের এক সামান্য অংশই প্যালিওজিনে টিঁকে ছিল। এদের থেকেই আজকের যাবতীয় পাখি এসেছে। এভিসরাই একমাত্র পক্ষীগোষ্ঠী যারা নিশ্চিতভাবে ক্রিটেশিয়াস-প্যালিওজিন বিলুপ্তি ঘটনা পেরিয়ে এসেছিল। এদের বেঁচে যাওয়ার কারণ হিসেবে বলা হয় ডুব দেওয়া, সাঁতার কাটা, আর জলাজঙ্গলে ও ঝোপেঝাড়ে আশ্রয় নেওয়ার ক্ষমতার জন্য এদের সুবিধা হয়েছিল। এভিয়ানদের অনেক প্রজাতি মাটি খুঁড়তে পারে, বা গর্তের মধ্যে বা উইঢিপিতে বাসা করে থাকতে পারে। এই সমস্ত গুণই K-Pg সীমানায় প্রাকৃতিক দুর্যোগের প্রভাব প্রতিহত করতে সাহায্য করেছিল। বিলুপ্তি ঘটনার পরে তাদের দীর্ঘমেয়াদী অস্তিত্ব সুনিশ্চিত হয়েছিল বাস্তুতন্ত্রে অধুনা বিলুপ্ত, উড্ডয়নে অক্ষম ডাইনোসরদের ছেড়ে যাওয়া ধাপগুলি পূরণ করার মাধ্যমে।
 
== তথ্যসূত্র ==