প্রধান মেনু খুলুন

পরিবর্তনসমূহ

→‎সংস্কৃতি: বিষয়বস্তু যোগ
 
== সংস্কৃতি ==
ওমানের পুরুষেরা সাধারনত নিজেদের কাধ থেকে গোড়ালি পর্যন্ত দীর্ঘ হাতা দিয়ে এক প্রকার জামা পরিধান করে যাকে ডিশডশা বা বাংলায় আমরা জুব্বা বলে থাকি।নারীরা সকালেই মাথা থেকে পা এর গোড়ালি পর্যন্ত সকল অঙ্গ ঢাকা কালো কাপড়ের আবাইয়া বা জাকে আমারা বোরকা বলে থাকি সেটি পরিধান করে।
 
 
==শিক্ষা ==
সমুদ্রগামী দেশ হওয়ায় ওমানের একটি গুরুত্বপূর্ণ প্রতীক হ'ল ধাও (যেটাকে পাল তোলা নৌকা বলা হয়ে থাকে) । এই নৌবহর গুলো শত শত বছর ধরে আরব উপদ্বীপ, ভারত এবং পূর্ব আফ্রিকা বরাবর ব্যবসায়ের উদ্দেশ্যে ব্যবহৃত হয়ে আসছে। প্রকৃতপক্ষে, ওমানি ধাও প্রাচীনতম ব্যবহারের বিষয়টি অষ্টম শতাব্দীতে চীন পৌঁছেছিল। আধুনিক দিনের ব্যবহারে এই ধাও গুলো বাণিজ্য, পর্যটন এবং মাছ ধরার লক্ষ্যে কাজ করে এবং ওমানের উপকূলরেখার পাশেই এগুলি দেখা যায়।
 
==শিক্ষা ==
প্রাপ্তবয়স্কদের স্বাক্ষরতার হার ২০১০ সালে ছিল ৮৬.৯%।<ref name=unescolit>{{ওয়েব উদ্ধৃতি|শিরোনাম=National adult literacy rates (15+), youth literacy rates (15–24) and elderly literacy rates (65+)|ইউআরএল=http://stats.uis.unesco.org/unesco/TableViewer/tableView.aspx?ReportId=210|প্রকাশক=UNESCO Institute for Statistics}}</ref> ১৯৭০ সালের আগে দেশে ৩টি মাত্র স্কুল এবং তাতে ১০০০জন মত ছাত্র ছিল। [[সুলতান কাবুস]] এর সময় থেকে শিক্ষার বিস্তার ঘটতে থাকে। বর্তমানে ১০০০টি স্কুল এবং সেগুলোতে প্রায় ৬৫০,০০০জন ছাত্র ছাত্রী আছে।
ওমানের প্রথম বিশ্ববিদ্যালয় [[সুলতান কাবুস বিশ্ববিদ্যালয়]] ১৯৮৬সালে প্রতিষ্ঠিত হয়।
৪টি

সম্পাদনা