"আন্তর্জাতিক আদিবাসী দিবস" পাতাটির দুইটি সংশোধিত সংস্করণের মধ্যে পার্থক্য

→‎বাংলাদেশে ক্ষুদ্র নৃগোষ্ঠী দিবস উদযাপন: বাংলাদেশ সংসদের এক আইনে বলা হয়েছে আদিবাসীদের নামের স্তন ক্ষুদ্র নৃগোষ্ঠী ব্যবহার করতে হবে
ট্যাগ: মোবাইল সম্পাদনা মোবাইল ওয়েব সম্পাদনা
(→‎বাংলাদেশে ক্ষুদ্র নৃগোষ্ঠী দিবস উদযাপন: বাংলাদেশ সংসদের এক আইনে বলা হয়েছে আদিবাসীদের নামের স্তন ক্ষুদ্র নৃগোষ্ঠী ব্যবহার করতে হবে)
ট্যাগ: মোবাইল সম্পাদনা মোবাইল ওয়েব সম্পাদনা
২৩ ডিসেম্বর, ১৯৯৪ সালে [[জাতিসংঘ|জাতিসংঘের]] সাধারণ পরিষদে [[বিশ্ব ক্ষুদ্র নৃগোষ্ঠী দিবস|আন্তর্জাতিক ক্ষুদ্র নৃগোষ্ঠী দিবস]] [[International Day of the World's Indigenous Peoples]] বা [[আর্ন্তজাতিক দিবস]]<nowiki/>টি পালনে ৪৯/২১৪ বিধিমালায় স্বীকৃতি পায়। আর্ন্তজাতিক দিবসটি বিশ্বের ৯০টি দেশে ৩৭০ বিলিয়ন ক্ষুদ্র জাতিসত্ত্বা ও আদিবাসী প্রতিবছর ৯ আগস্ট উদযাপন করে থাকেন। উল্লেখ্য, জাতিসংঘ কর্তৃক ১৯৯৩ সালকে আদিবাসী বর্ষদ হিসেবে ঘোষণা করা হয়েছিল। বিশ্বব্যাপী ক্ষুদ্র জনগোষ্ঠি ও আদিবাসী জনগণ তাদের নিজস্ব সাংস্কৃতিক পরিচয়, ভূমির অধিকার, অঞ্চল বা টেরিটরির অধিকার, প্রাকৃতিক সম্পদের অধিকার ও নাগরিক মর্যাদার স্বীকৃতি দাবীতে দিবসটি পালিত হয়। কানাডার [[অস্ট্রেলিয়া]]য় ৫২টি ক্ষুদ্র জাতিগোষ্ঠি(আমাটা, বামাগা, কয়েন প্রভৃতি) বা আদিবাসী বসবাস করছে। আমেরিকায় ক্রো জাতি, আর্জেন্টিনায় কাসি জাতি।<ref>[[http://www.un.org/en/events/indigenousday/background.shtml International Day of the World's Indigenous Peoples 9 August]]</ref>
 
==বাংলাদেশে আদিবাসীক্ষুদ্র নৃগোষ্ঠী দিবস উদযাপন==
 
প্রতি বছর ৯ আগস্ট [[আর্ন্তজাতিক দিবস]]টি বিশ্বব্যাপী পালিত হলেও বাংলাদেশে ২০০৪ থেকে পালিত হয়ে আসছে। মূলত, ২০০১ সালে বাংলাদেশ আদিবাসী ফোরাম গঠিত হবার পরে বেসরকারীভাবে বৃহৎকারে আর্ন্তজাতিক দিবসটি পালিত হচ্ছে। দেশের সমতলে আদিবাসীক্ষুদ্র নৃ-জনগোষ্ঠি চাঁপাইনবাবগঞ্জ, রাজশাহী, নওগাঁ, জয়পুরহাট, রংপুর, দিনাজপুর জেলাগুলিতে সাঁওতাল, গারো, শিং, ওঁরাও, মুন্ডারি, মাহাতো, রাজোয়ার, কর্মকার ও মাহালী সম্প্রদায়ের জাতিগোষ্ঠি বসবাস করছে। অন্যদিকে পার্বত্য চট্টগ্রামে (রাঙ্গামাটি, খাগড়াছড়ি ও বান্দরবান) চাকমা, মারমা, ত্রিপুরা, তঞ্চঙ্গ্যা, মুরং বা ম্রো, খিয়াং, লুসাই, পাংখোয়া,বম, খুমী ও চাক জনগোষ্ঠি বসবাস করছে। বিশ্বের তাবৎ ক্ষুদ্র ও আদিবাসী নৃ-জনগোষ্ঠির পাশাপাশি বাংলাদেশের ৩০ লক্ষাধিক আদিবাসীরাওক্ষুদ্র নৃগোষ্ঠী ও তাদের নিজস্ব সাংস্কৃতিক পরিচয়, ভূমির অধিকার ও নাগরিক মর্যাদার স্বীকৃতি দাবীতে দিবসটি উদযাপন করে থাকেন। <ref>[[http://www.amritabazar.com/bangladesh/news/27539/%E0%A6%86%E0%A6%9C-%E0%A6%AC%E0%A6%BF%E0%A6%B6%E0%A7%8D%E0%A6%AC-%E0%A6%86%E0%A6%A6%E0%A6%BF%E0%A6%AC%E0%A6%BE%E0%A6%B8%E0%A7%80-%E0%A6%A6%E0%A6%BF%E0%A6%AC%E0%A6%B8 আজ বিশ্ব আদিবাসীক্ষুদ্র নৃগোষ্ঠী দিবস
৯ আগস্ট, ২০১৭]]</ref>
 
== মূল উপপাদ্য ==
 
৩৯টি

সম্পাদনা