"বার্মায় ব্রিটিশ শাসন" পাতাটির দুইটি সংশোধিত সংস্করণের মধ্যে পার্থক্য

ট্যাগ: মোবাইল সম্পাদনা মোবাইল ওয়েব সম্পাদনা
ট্যাগ: মোবাইল সম্পাদনা মোবাইল ওয়েব সম্পাদনা
 
১৯৩০ খ্রিস্টাব্দের মে মাসে ''[[ডোবামা এশিয়ায়োয়ান]]'' (আমরা বর্মী সংগঠন) প্রতিষ্টা করা হয়, যাদের সদস্যরা নিজেদের "থাকিন" বলে উল্লেখ করতো ("থাকিন" শব্দটি একটি বর্মী শব্দ যার ইংরাজী অর্থ "মাষ্টার" বা ভারতীয় শব্দ "সাহেব"-এর সাথে অধিক সামঞ্জস্যপূর্ণ)৷ তারা নিজেদেরকে দেশের রক্ষাকর্তা মনে করতো এবং উপনিবেশবিরোধী কার্যকলাপে নিযুক্ত থাকতো৷<ref name="ms"/> দ্বিতীয়বারের জন্য বিশ্ববিদ্যালয়ে ছাত্র আন্দোলনটি হয় ১৯৩৬ খ্রিস্টাব্দে৷ একই সময়ে [[ইয়াঙ্গুন বিশ্ববিদ্যালয়|রেঙ্গুন বিশ্ববিদ্যালয়ে]] একটি দেওয়াল পত্রিকার লেখার ওপর ভিত্তি করে বিশ্ববিদ্যালয়ে উচ্চপদস্থ আধিকারিক আক্রমনের সম্মুখীন হয়৷ এইসময়ে ছাত্রনেতা হিসাবে বিশ্ববিদ্যালয়ে "আউং সান" এবং "কো নু" নাম দুটি উঠে আসে যাদের নেতৃত্বে ছাত্র আন্দোলন ফলপ্রসু এবং অগ্নগর্ভ হয়ে উঠেছিলো৷ এই আন্দোলন [[মান্দালয়]] অবধি ছড়িয়ে পড়ে এবং "অল বর্মা স্টুডেন্ট ইউনিয়ন" (আবসু) বা নিখিল বর্মা ছাত্র সংগঠন প্রতিষ্ঠা পায়৷ "আউং সান" এবং "কো নু" উভয়েই ছাত্র আন্দোলনের মুখ থেকে দেশব্যাপী থাকিন আন্দোলনে যোগ দেয়৷<ref name="ms"/>
 
==ভারত ভেঙে বর্মার সৃষ্টি==
[[File:Royallake dalhousiepark rangoon1895.jpg|thumb|300px|১৮৯৫ খ্রিস্টাব্দে ফিলিপ অ্যাডলফ কিলারের তোলা রেঙ্গুনের ডালহৌসী পার্কের রয়্যাল লেক]]
 
ব্রিটিশরা ১৯৩৭ খ্রিস্টাব্দে [[ব্রিটিশ ভারত]] ভেঙে বর্মা প্রদেশটিকে পৃৃথক রাষ্ট্র ঘোষনা করে<ref>[http://www.time.com/time/magazine/article/0,9171,788006,00.html Sword For Pen], ''TIME Magazine'', 12 April 1937</ref> এবং তাদের এই উপনিবেশকে পূর্ণ নির্বাচন সমাবেশের অন্তর্ভুক্ত করে নতুন সংবিধান রচনা করে৷ এর সাথে তারা প্রশাসনিকসহ বিভিন্ন পদে স্থানীয় বর্মীদের নিয়োগ করা শুরু করে৷ কিন্তু কিছু বর্মীর মতে এই বিভাজন নীতির ফলে ভারতীয় কোনো উন্নয়ন বা পুণর্গঠনে বর্মা চিরকালের জন্য বঞ্চিত হবে কারণ ভারতের লোকবল ছিলো বর্মার চেয়ে অনেক বেশি৷ [[বা মাও]] বর্মার প্রথম প্রধানমন্ত্রী পদে নিযুক্ত হন কিন্তু ১৯৩৯ খ্রিস্টাব্দের মধ্যে উ সও তাকে এই পদ থেকে অব্যহতি দিতে বাধ্য করে৷ ১৯৪০ খ্রিস্টাব্দ থেকে তিনি স্বয়ং প্রধানমন্ত্রী পদে আসীন হলেও জাপানের সাথে মিত্রতার কথা আঁচ করতে পেরে ব্রাটিশ সরকার ১৯৪২ খ্রিস্টাব্দে ১৯ শে জানুয়ারী তাকে গ্রেপ্তার করলে তিনি প্রধানমন্ত্রীত্ব হারান৷
 
কেন্দ্রীয় বর্মার তৈলক্ষেত্রগুলি থেকে একাধিকবার ধর্মঘট-আন্দোলন ও প্রতিবাদ কর্মসূচী চলতে থাকে, এরকমই ১৯৩৮ খ্রিস্টাব্দে ঘটে যাওয়া একটি আন্দোলন বর্মা জুড়ে সুদূরপ্রসারী প্রভাব ফেলে৷ [[ইয়াঙ্গুন|রেঙ্গুনে]] জনসাধারণের সমর্থনে ছাত্র সংগঠনের পিকেটিন এবং বয়কট কর্মসূচী চলতে থাকে৷ ব্রিটিশ শাসনদণ্ড এই আন্দোলনের জন্য ঔপনিবেশিক সাম্রাজ্যবাদী সরকারকে দোষী সাব্যস্ত করলে তাদের সেনাবাহিনী রেঙ্গুন বিশ্ববিদ্যালয়ে ধরপাকড় শুরু করে ও "আউং কিয়ৌ" নামে বিশ্ববিদ্যালয়ের এক ছাত্রের মৃত্যু হয়৷ মান্দালয়ে পুলিশবাহিনীবিদ্রোহীদের জনসমাবেশে এলোপাথারি গুলি ছুঁড়লে ১৭ জন বৌদ্ধসন্যাসীর ঘটনস্থলেই মৃত্যু হয়৷ এর পর থেকে এই রক্তক্ষয়ী আন্দোলন মিয়ানমারের বর্মীপঞ্জিতে "১৩০০র বিপ্লব" বা স্থানীয় ভাষায় হ্তাউং থৌন ইয়াব্যেই আয়ৈদবোন" নামে পরাচিত৷<ref name="ms"/> এবং ২০ শে ডিসেম্বর দিনটিতে এই আন্দোলনের প্রথম শহিদকে স্মরণ করে [[বো আউং কিয়ৌ দিবস]]<ref>{{cite web|url=http://www.burmalibrary.org/reg.burma/archives/199912/msg00642.html|title=The Statement on the Commemoration of Bo Aung Kyaw|publisher=All Burma Students League|date=19 December 1999|accessdate=23 October 2006}}</ref>
 
==তথ্যসূত্র==