"বার্মায় ব্রিটিশ শাসন" পাতাটির দুইটি সংশোধিত সংস্করণের মধ্যে পার্থক্য

ট্যাগ: মোবাইল সম্পাদনা মোবাইল ওয়েব সম্পাদনা
ট্যাগ: মোবাইল সম্পাদনা মোবাইল ওয়েব সম্পাদনা
 
[[কোনবাউং রাজবংশ|কোনবাউং রাজবংশের]] শাসকরা [[ব্রিটিশ ভারত|ব্রিটিশ ভারতের]] অধীনস্ত [[চট্টগ্রাম]] নৌবন্দর বেষ্টন করে আসাম রাজ্য পর্যন্ত [[রাখাইন রাজ্য|আরাকান]] রাজ্যের সীমানা প্রসারিত করতে চাইলে বর্মার রাজবংশ ও [[ব্রিটিশ ইস্ট ইন্ডিয়া কোম্পানি]]র মধ্যে সংঘর্ষ বাঁধে৷ ১৭৮৪ থেকে ১৭৮৫ খ্রিস্টাব্দের মধ্রে বর্মী সেন্যবাহিনীর হাত থেকে [[আরাকান সাম্রাজ্য]] বেদখল হওয়ার পর ১৮২৩ খ্রিস্টাব্দে তারা আবার তা পুণর্দখল করার চেষ্টা করে ও সীমান্ত অতিক্রম করে৷ এটিই ছিলো ১৮২৪ থেকে ১৮২৬ খ্রিস্টাব্দের মধ্যে ঘটে যাওয়া [[প্রথম ইঙ্গ-বর্মা যুদ্ধ]]র অন্যতম প্রধান কারণ৷ ব্রিটিশরা এসময় [[ইয়াঙ্গুন|রেঙ্গুন]] পর্যন্ত একটি বৃৃহৎ সমুদ্রচালিত অভিযান চালালে ১৮২৪ খ্রিস্টাব্দের মধ্যে বিনাযুদ্ধে তারা রেঙ্গুন দখল করে৷ [[মান্দালয়|মান্দালয়ের]] নিকট [[আভা]](ইনোয়া)-এর দক্ষিণে অবস্থিত [[দনুব্যু]] অঞ্চলে বর্মী সেনাধ্যক্ষ [[মহা বন্ধুল]] নিহত হন ও তার সেনাবাহিনী নিকেষ করা হয়৷ বর্মা আসাম সহ উত্তর দিকের প্রদেশগুলি ব্রিটিশদের হাতে তুলে দিতে বাধ্য হয়৷<ref name="World Book Encyclopedia">World Book Encyclopedia</ref> ১৮২৬ খ্রিস্টাব্দে [[ইয়াণ্ডাবু সন্ধি]]র মাধ্যমে ব্রিটিশ ভারতে দীর্ঘতর, বিপুল অর্থক্ষয়ী এবং অন্যতম গুরুত্বপূর্ণ প্রথম ইঙ্গ-বর্মা যুদ্ধের পরিসমাপ্তি ঘটে৷ সরকারী হিসাবে পনেরো হাজার ইউরোপীয় এবং ভারতীয় সৈন্য সহ অগণিত বর্মী সৈন্য ও সাধারণের মৃৃত্যু হয় এবং উভয়পক্ষেরই বহু মানুষ আহত হয়৷<ref>{{cite book | title=The Making of Modern Burma | pages=18| author=Thant Myint-U|year=2001|publisher=Cambridge University Press |isbn=0-521-79914-7}}</ref> হিসাব মতো ব্রিটিশ সৈন্যবাহিনীর সেনাছাউনি বাবদ খরচ হয় ৫ মলিয়ন পাউন্ড এবং সর্বমোট খরচ ১৩ মিলিয়ন পাউন্ড, যার বর্তমান মূল্য ২০০৬ খ্রিস্টাব্দের বাজারদরে প্রায় ১৮.৫ এবং ৪৮ বিলিয়ন মার্কিন ডলার৷<ref name=rlf-113>{{cite book | title=The River of Lost Footsteps—Histories of Burma | pages=113, 125–127| author=Thant Myint-U|year=2006|publisher=Farrar, Straus and Giroux |isbn=978-0-374-16342-6}}</ref> এই বিপুল পরিমান অর্থক্ষয় ১৮৩৩ খ্রিস্টাব্দ অবধি ব্রিটিশ ভারতে অর্থনীতিকে চরম সঙ্কটাপন্ন করে৷<ref name=webster>{{cite book | title=Gentlemen Capitalists: British Imperialism in South East Asia, 1770–1890 | first=Anthony|last= Webster | publisher=I.B.Tauris | year=1998 | pages=142–145 | isbn=978-1-86064-171-8}}</ref>
 
১৮৫২ খ্রিস্টাব্দে ব্রিটিশরা [[সিঙ্গাপুর]] এবং [[কলকাতা]]র নোবন্দরের মধ্যবর্তী দক্ষিণ বর্মার [[সেগুন]] বন দাবী করে৷ বর্মীরা তৎক্ষনাৎ ব্রিটিশ গুপ্তচরকে বর্মা থেকে সরিয়ে নেওয়া পাল্টা দাবী তোলেন৷ ফলে দীর্ঘ ২৫ বছর শান্তিচুক্তির পরে ১৮৫২ খ্রিস্টাব্দে দ্বিতীয় ইঙ্গ-বর্মা যুদ্ধ শুরু হয়৷ ব্রিটিশরা যুদ্ধশেষে জয়লাভ করে এবং দক্ষিণ বর্মার একটি বিস্তীর্ণ অঞ্চলে আধিপত্য বিস্তার করে এবং দাবীকৃত সেগুনবন, তেল এবং [[উচ্চ মিয়ানমার|উত্তর বর্মার]] অমূল্যসম্পদ লাভ করে৷
 
রাজা মিন্দন মিন এই আধিপত্য এবং ঔপনিবেশিকতা আটকানোর ও প্রশাসনিক পুণর্বিন্যাসের যথাসাধ্য চেষ্টা করেন৷ তিনি প্রশাসনিক সংস্কার করে বর্মাকে বিদেশী আকর্ষনের জন্য আরো সুগ্রাহী করে তোলেন৷ কিন্তু ব্রিটিশরা সুকৌশলে তৃতীয় ইঙ্গ-বর্মা যুদ্ধের সূচনা করে, যা ১৮৮৫ খ্রিস্টাব্দের নভেম্বর মাসে ঘটে এবং দুসপ্তাহ পর্যন্ত স্থায়ী হয়৷ [[ব্রিটিশ ইস্ট ইন্ডিয়া কোম্পানি]] তাদের আক্রমনের পিছনে যুক্তি দেখান যে, বর্মার শেষ স্বাধীন রাজা থিবৌ মিন একজন অত্যাচারী রাজা ছিলেন এবং ষড়যন্ত্র করে তার দেশে ফ্রান্সের প্রভাব বৃৃদ্ধি করতে চাইছেন৷ ব্রিটিশ সৈন্যদল ১৮৮৫ খ্রিস্টাব্দের ২৮ শে নভেম্বর [[মান্দালয়|মান্দালয়ে]] প্রবেশ করে৷ এভাবে তিনটি যুদ্ধের পর এক এক করে ব্রিটিশ বাহিনী সমগ্র বর্মার ওপর নিজ অধিপত্য কায়েম করতে সফল হয়৷ এরপরে ১৮৮৬ খ্রিস্টাব্দের ১লা জানুয়ারী বর্মা ব্রিটিশ ভারতের একটি প্রদেশ হিসাবে আত্মপ্রকাশ করে৷<ref name="Encyclopædia Britannica"/>
 
ব্রিটিশরা উত্তর বর্মার বিস্তীর্ণ অঞ্চল নিজের উপনিবেশের অন্তর্ভুক্ত করে এবং পুরো বর্মাকে "ব্রিটিশ বর্মা" নামে একটি প্রদেশ হিসাবে "[[ব্রিটিশ ভারত]]"-এর আওতায় আনে৷ ১৮৮৬ খ্রিস্টাব্দের ২৬শে ফেব্রুয়ারী মাসে উত্তর ও দক্ষিণ বর্মাকে একত্রিত করে একটি বৃৃহত্তর প্রদেশে পরিণত করা হয়৷<ref name=DIB>{{cite book|title=Dictionary of Indian Biography|url=https://books.google.com/books?id=Y8AKI2nqPBQC|publisher=Ardent Media|year=1906|id=GGKEY:BDL52T227UN|page=82}}</ref>
 
[[File:British forces arrival mandalay1885.jpg|thumb|left|চিত্রগ্রাহক উইলগবাই ওয়ালেসের তোলা [[তৃতীয় ইঙ্গ-বর্মা যুদ্ধ|তৃতীয় ইঙ্গ-বর্মা যুদ্ধের]] শেষে ১৮৮৫ খ্রিস্টাব্দের ২৮শে নভেম্বরে ব্রিটিশ বাহিনির মান্দালয়ে আগমন]]
 
==তথ্যসূত্র==